শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মিথ্যা মামলার বেড়াজালে এক স্কুল শিক্ষক

মসজিদ উন্নয়নের জন্য কাজ করতে গিয়ে মসজিদের মুসল্লিসহ এক স্কুল শিক্ষক মিথ্যা মামলার বেড়াজালে পড়ে হয়রানীর শিকার হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। ঘটনাটি ঘটেছে দিনাজপুর জেলার নবাবগঞ্জ উপজেলার মাহমুদপুর ইউনিয়নের ভেবটগাড়ী আশ্রয়ন কেন্দ্র সংলগ্ন এলাকায়।
এলাকাবাসি ও ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, ভেবটগাড়ী আশ্রয়ন প্রকল্প সংলগ্ন এলাকার পতিত খাস জমিতে জনৈক রেজাউল করিম নামে এক ব্যক্তি ১০/১২ বছর আগে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপন করেন। স¤প্রতিকালে গাছগুলো বিভিন্ন কারণে নষ্ট হতে থাকলে ওই গ্রামের একটি মসজিদের উন্নয়নের জন্য গাছগুলো সেখানে দান করার আলোচনা হয়। সেই মোতাবেক মসজিদ কমিটির লোকজন গত বছরের ২১ অক্টোবর গাছ কর্তন করতে গেলে আশ্রয়ন কেন্দ্রে বসবাসরত ভূমিহীন আনারুল ইসলামের স্ত্রী বেগুনী বেগম অসৎ উদ্দেশ্যে গাছগুলো নিজের বলে দাবী করেন।
এক পর্যায় বেগুনী বেগম সেখানে মসজিদ কমিটির সঙ্গে গাছ কাটা নিয়ে বাক বিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন। শেষ পর্যন্ত  কমিটির কাছ থেকে তিনি গাছ দেখভালের ১০হাজার টাকা দাবী করেন। টাকা না পেয়ে প্রতিপক্ষকে ফাঁসানোর জন্য ওই দিন নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন। সেখানে তিন দিন চিকিৎসা নেওয়ার পর ওই এলাকার মধ্যম মাগুরা কাঁঠালপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় শিক্ষক ইকবাল হোসেনসহ ১৪জন ব্যক্তির বিরুদ্ধে নবাবগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
এদিকে মামলার বাদী স্থায়ী জন্ম নিয়ন্ত্রন পদ্ধতি গ্রহনকারী বেগুনী বেগম মামলায় উল্লেখ করেছেন, আসামী শিক্ষক ইকবাল হোসেনের পায়ের লাথিতে তার তিন মাসের গর্ভপাত হয়েছে। এই মর্মে বেগুনি বেগম নবাবগঞ্জ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে কোন চিকিৎসা সনদ সংগ্রহ করতে না পেরে মামলাটির ভিত পাকাপুক্ত করতে রংপুরের একটি ডায়াগণস্টিক সেন্টার থেকে ৩ মাসের গর্ভপাতের একটি ভুয়া সনদ সংগ্রহ করেন।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত স্কুল শিক্ষক ইকবাল হোসেন জানান, এলাকার প্রাক্তন ইউপি চেযারম্যান নায়েব আলী নিজ স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য বেগুনি বেগমকে লোলিয়ে দিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা আনয়ন করেছেন। আমি আদৌ ঘটনার সাথে জড়িত ছিলাম না। তিনি জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে অনুসন্ধান করলেই বেগুনি বেগমের জন্ম নিয়ন্ত্রনের স্থায়ী পদ্ধতি গ্রহন করার সনদ পাওয়া যাবে। তবে বেগুনী বেগম বলেন, নবাবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স আমার গর্ভপাতের সনদপত্র না পেয়ে একজন ডাক্তারের পরামর্শে আমি রংপুরের একটি ক্লিনিক থেকে ৩ মাসের গর্ভপাত ঘটানোর সনদপত্র সংগ্রহ করেছি।
ওই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নবাবগঞ্জ থানার এসআই জিয়াউর রহমান (১) বলেন, মামলাটির চুড়ান্ত রিপোর্ট আদালতে দাখিল করা হয়েছে। এখন সম্পুন্ন বিষয়টি আদালতের। অন্যদিকে এ ঘটনায় এলাকার সচেতন মহলে চরম অসন্তোষ বিরাজ করছে। এদিকে শিক্ষক, ইউপি সদস্যসহ মুসল্লীদের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে আশ্রায়ন প্রকল্প এলাকায় মানববন্ধন করেছে এলাকার সর্বস্তরের জনগন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email