বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর এম, আব্দুর রহিমের ইন্তেকাল

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, মুক্তিযুদ্ধকালিন মুজিব নগর সরকারের পশ্চিমাঞ্চলীয় জোনের চেয়ারম্যান, সাবেক সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট এম, আব্দুর রহিম ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহে —–রাজেউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯০ বছর।
মরহুমের পুত্র হুইপ ইকবালুর রহিম জানান, বার্ধক্যজনিত রোগে আক্রান্ত এম, আব্দুর রহিম ঢাকার বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ রোববার বেলা ১১টা ২০ মিনিটে মৃত্যু বরন করেন।
এর আগে ২ আগষ্ট এম, আব্দুর রহিম দিনাজপুরে তার বাসভবনে অসুস্থ্য হয়ে পড়লে দিনাজপুরে জিয়া হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতালে ভর্তি করা হয় এবং লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। পরবর্তীতে উন্নত চিকিৎসার জন্য ৯ আগষ্ট ঢাকায় বারডেমে নেয়া হয়।
এম. আব্দুর রহিম ১৯২৭ সালের ২১ নভেম্বর দিনাজপুর সদর উপজেলার শংকপুর ইউনিয়নের জালালপুর গ্রামের এক সম্ভান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭০ সালে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়ে ১৯৭১ সালে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে বৃহত্তর দিনাজপুর অঞ্চলের মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হিসেবে অক্লান্ত পরিশ্রম করেন। পাক বাহিনীরা দিনাজপুর আক্রমন করলে এম আব্দুর রহিমকে আহ্বায়ক করে দিনাজপুরে মুক্তিযুদ্ধ সংগ্রাম পরিষদ গঠন করা হয়। মানবিক মূল্যবোধ আর দেশাত্ববোধের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে তিনি ভারতের পতিরাম, রায়গঞ্জ, কালিয়াগঞ্জ, বালুরঘাট, গঙ্গারামপুরসহ বিভিন্ন এলাকার শরনার্থী শিবিরে আশ্রয় নেয়া মানুষের পাশে দাড়িয়েছিলেন। ৭১-এর ১৭ই এপ্রিল মুজিবনগর সরকার গঠন হলে গোটা দেশকে যুদ্ধ পরিচালনার জন্য ১১টি বেসামরিক জোনে ভাগ করা হয়। মুজিবনগর সরকার এম আব্দুর রহিমকে পশ্চিম জোনের জোনাল চেয়ারম্যান নিযুক্ত করে। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি ১৮ ডিসেম্বর সকাল ১১টায় দিনাজপুর গোর-এ শহীদ বড় ময়দানে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম দিনাজপুরে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন। এসময় মিত্র বাহিনীর এ অঞ্চলের অধিনায়ক ব্রিগেডিয়ার ফরিদ ভাট্টি ও কর্ণেল সমশের সিং এর নেতৃত্বে তাকে গার্ড অব অনার দেয়া হয়।
রাজনীতিক এম আব্দুর রহিম সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে সংবিধান প্রণয়ন কমিটির অন্যতম সদস্য ছিলেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যখন স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতি ছিলেন তখন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সহসভাপতি হিসেবে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এম আব্দুর রহিম ১৯৯১ সালে দিনাজপুর সদর আসন থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য পুনরায় নির্বাচিত হন।
তিনি বেশ কিছুদিন যাবৎ বার্ধক্যজনিত কারনে অসুস্থ্য থাকলে তাকে হেলিকপ্টার যোগে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। ঢাকার বারডেম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন বলে নিশ্চিত করেছেন তার বড়পুত্র বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম। তার মৃত্যুর খবর এসে পৌছলে দিনাজপুরে নেমে আসে শোকের ছায়া।

Spread the love