শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২ ১৪ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মুক্তিযুদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনায় দেশবার্তার সাহিত্য পাতা নিয়মিত প্রকাশে সহযোগিতা চাইলেন সম্পাদক চিত্ত ঘোষ

ষ্টাফ রিপোর্টার ঃ দিনাজপুর হতে প্রকাশিত দৈনিক আজকের দেশবার্তা কার্যালয়ে ১ ডিসেম্বর বুধবার সন্ধ্যায় দিনাজপুরের বিশিষ্ট কবি, লেখক, গবেষকদের মনোরম আড্ডা ও চা চক্র অনুষ্ঠিত হলো। দেশবার্তা সম্পাদক চিত্ত ঘোষের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই চা চক্রে উপস্থিত ছিলেন গবেষক, কবি, কলামিষ্ট, গল্পকারদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সরকারি সিটি কলেজের অধ্যক্ষ মোজাম্মেল বিশ্বাস, বীরগঞ্জ ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ ড. মাসুদুল হক, প্রভাষক প্রশান্ত সেন, সরকারি মহিলা কলেজের ইতিহাস বিভাগের প্রধান আলী ছায়েদ, কেবিএম কলেজের প্রভাষক ও কবি মুসফেরা তাসনীম, গবেষক ও কবি চাষা হাবিব, বাংলাদেশ ইতিহাস সম্মিলনী দিনাজপুর শাখার সভাপতি ও গবেষক ড. আব্দুস ছালাম, বিশিষ্ট গল্পকার মাহবুব আলী, বিশিষ্ট কলামিষ্ট কায়ছার আলী, বিশিষ্ট কবি মোহাম্মদ আব্দুল হাই, বিশিষ্ট কবি ও নাট্যকর্মী তরিকুল আলম, কবি ও বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহবাজ আলী খান, কবি ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেন, বিশিষ্ট কবি ফাতেমা বেগম, বিভাগীয় লেখক পরিষদ দিনাজপুর এর সাধারন সম্পাদক বিশিষ্ট কবি ও নাট্যাভিনেতা ওয়াসিম আহমেদ শান্ত, গল্পকার ও শিক্ষক কাওকাবুন, বিশিষ্ট কবি ও হাবিপ্রবির সহকারি রেজিষ্ট্রার অডিতি রায়, বিশিষ্ট কবি ও উপস্থাপক তুষার শুভ্র বসাক, বিশিষ্ট কবি ও উপস্থাপক কমল কুজুর, বিশিষ্ট কবি মেহনাজ পারভীন, বিশিষ্ট কবি ও কাব্য কথা সম্পাদক নিরঞ্জন হীরা, কাহারোলের বিশিষ্ট কবি ও সংগঠক সদাশীত প্রফুল্ল রায়, অভিনয় শিল্পী মাসুদা পারভীন, হিলির বিশিষ্ট কবি প্রিয়াংকা রায় প্রমুখ।
কবি, সাহিত্যিক, গবেষকগণ স্বরিচিত কবিতা আবৃত্তি করেন এবং দেশবার্তায় সাহিত্য পাতা প্রকাশের উদ্যোগকে অভিনন্দন জানান। তারা দেশবার্তায় সাহিত্য পাতা কেমন হওয়া দরকার তার উপর অভিমত-মতামত ব্যক্ত করেন ও বিভিন্ন পরামর্শ দেন। গবেষক মোজাম্মেল বিশ্বাস বলেন, দেশবার্তায় সাহিত্য পাতা বের হচ্ছে, এটা আমাদের সকলের জন্য একটি বড় পাওয়া। কিন্তু এটা সবাইকে মনে রাখতে হবে যে, একটি সংবাদপত্র একটি সমাজকে গড়ে তোলে, একজন লেখককেও গড়ে তোলে। তাই সাহিত্য পাতায় লেখা প্রকাশের আগে দাড়ি, কমা, সেমিকোলন দেখে নেয়া দরকার, বানান সঠিক আছে কি না, তা দেখে নেয়া প্রয়োজন। ভুল বানানে কোন লেখা প্রকাশ হওয়া উচিৎ নয়। সংবাদপত্রে ভুল বানান, ভুল বাক্য, দাড়ি, কমা, সেমিকোলনের ভুল ব্যবহার থাকলে তা যেমন দৃষ্টিকটুলাগে তেমনি লেখক ও সংবাদপত্র সম্পর্কেও দায়িত্বশীলতা নিয়েও প্রশ্ন সৃষ্টি করে।
গবেষক ও আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলের কবি ড. মাসুদুল হক বলেন, বর্তমানে অনেক পত্রিকা, অনেক বই প্রকাশ হচ্ছে, কিন্তু পাঠক বাড়ছে না। অনেকে বই কেনেন লোক দেখানোর জন্য। বলা যায় মানুষের চেতনায় এখন শিল্প-সাহিত্য তেমনভাবে কাজ করছেনা। ছেলে-মেয়েরা সংস্কৃতিহীন হয়ে যাচ্ছে। এই অবস্থার পরিবর্তন হতে হবে। এ ক্ষেত্রে দেশবার্তার উদ্যোগ অভিনন্দনযোগ্য।
গবেষক ও কবি আলী ছায়েদ বলেন, সাহিত্যের বিষয়টি একটু ভিন্ন রকমের। লিখলেই সাহিত্যক হওয়া যাবে, এমন ভাবার কারণ নেই। সাহিত্যিক হওয়ার জন্য সবাইকে ভাল লেখার চেষ্টা করতে হবে।
কবি আবুল হোসেন বলেন, এই দেশ শত শত বছর থাকবে। তাই দেশবার্তা সাহিত্যের সকল লেখায় যেন দেশপ্রেম থাকে।
কবি মো. আব্দুল হাই বলেন, সাহিত্যেও মধ্যে যেন সংকীর্ণতা না সেই বিষয়টি লক্ষ্য রাখতে হবে।
গল্পকার মাহবুব আলী বলেন, ফেসবুকে একটি লেখা দিলে তাৎক্ষণিক কমেন্ট পাওয়া যায়। তাতে কওে একজন লেখক বুঝতে পারেন যে, তার লেখাটা কেমন হয়েছে। দেশবার্তা সাহিত্যে প্রকাশিত লেখা অনলাইনে প্রকাশের ব্যবস্থা করলে ভাল হয়। তাতে লেখা সম্পর্কে অনেকের মতামত পাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে।
শাহবাজ আলী খান বলেন, দেশবার্তা সাহিত্যের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস যেন থাকে, তার ব্যবস্থা নিতে হবে।
কবি মুসফেরা তাসনীম দেশবার্তা সাহিত্যে প্রকাশিত লেখাগুলোকে ভবিষ্যতে সংকলন আকারে প্রকাশ করার আহ্বান জানান।
প্রিয়াংকা রায় দেশবার্তায় প্রকাশিত লেখার মধ্যে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রাপ্য সম্মান যেন সঠিকভাবে বজায় থাকে সে বিষয়টি খেয়াল রাখার আহ্বান জানান।
সভাপতির বক্তব্যে দেশবার্তা সম্পাদক চিত্ত ঘোষ বলেন, এক সময় দিনাজপুরের সংবাদপত্রগুলোয় নিয়মিত সাহিত্য পাতা বের হতো। এর ফলে এখানকার লেখক-সাহিত্যকরা তাদের লেখা প্রকাশের মাধ্যম খুঁজে পেতেন। বর্তমানে সংবাদপত্রগুলোয় সাহিত্য পাতা বের হচ্ছে না। ফলে কবি-সাহিত্যকদেও লেখা প্রকাশের পথ রুদ্ধ হয়ে গেছে। বিশেষ করে নবীন লেখকরা তাদেও প্রতিভা প্রকাশের জায়গা পাচ্ছেন না। এই কারণে দেশবর্তায় সাহিত্য পাতা প্রকাশের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে যেন স্থানীয় লেখকদের লেখা প্রকাশের একটি নিয়মিত প্লাটফর্ম থাকে।
তিনি নবীন-প্রবীন সবাইকে নিয়মিত লেখা দিয়ে দেশবার্তা সাহিত্য নিয়মিত প্রকাশের ব্যাপারে সহযোগিতা করার জন্য লেখকদের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি ঘোষণা করেন যে, দিনাজপুর নাট্য সমিতির উদ্যোগে দিনাজপুর জেলায় একটি সাহিত্য সম্মেলন করার উদ্যোগ নেবেন। তিনি দেশবর্তা সাহিত্য পাতা মুক্তিযুদ্ধের মূল্যবোধে ও অসাম্প্রদায়িক চেতনায় প্রকাশের জন্য লেখকদের কাছ থেকে পর্যাপ্ত লেখা আহ্বান করেন। তিনি বলেন, আপনারা লেখা দিন, আমরা প্রকাশ করব।
চা-চক্রে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন দৈনিক আজকের দেশবার্তার বার্তা সম্পাদক হামিদুল হক টিপু। অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন দেশবার্তার সিনিয়র রিপোর্টার ও সাহিত্য সম্পাদক এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষষক গবেষক আজহারুল আজাদ জুয়েল। চা-চক্র আয়োজনে সার্বিক সহযোগিতা করেন দেশবার্তার ষ্টাফ রিপোর্টার রফিক প্লাবন। অনুষ্ঠানে কবি মো. আব্দুল হাই, অদিতী রায়, মেহনাজ পারভীন, নিরঞ্জন হিরা, ড. আব্দুস ছালাম প্রমুখ দেশবার্তা সম্পাদক চিত্ত ঘোষকে স্বরচিত গ্রন্থ উপহার দেন। দেশবার্তার সাহিত্য সম্পাদক আজহারুল আজাদ জুয়েলকে কবি অদিতি রায় উপহার দেন তার পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা অজিত রায় রচিত কাব্যগ্রন্থ ‘একাত্তরের আলো জ্বলছে।’
উল্লেখ্য, গত ১৭ নভেম্ভর হতে দেশবার্তা সাহিত্য প্রকাশ করা হচ্ছে। যে কেউ এই পাতায় গল্প, কবিতা, প্রবন্ধ, নিবন্ধ পাঠাতে পারবেন। লেখা কম্পিউটারে কম্পোজ করে sanandastar@gmail.com অথবা a.azadjewel@gmail.com ইমেইলে অথবা উভয় ইমেইলে পাঠাতে পারবেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email