রবিবার ১৪ অগাস্ট ২০২২ ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মোফাজ্জল হোসেনঃ পার্বতীপুরের নিবেদিত মুখ

-আজহারুল আজাদ জুয়েল-

 

রেলওয়ে শহর পার্বতীপুরের পরিচিতি আছে দেশজুড়ে। আর বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী মোহাম্মদ মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরীর পরিচিতি পুরো পার্বতীপুর জুড়ে। ভাষা আন্দোলন, উনসত্তুরের গণঅভুত্থান সহ একাত্তরের উত্তাল দিনগুলিতে তার সক্রিয় পদচারণা তাকে যেমন পরিচিতি এনে দিয়েছে তেমনি সামাজিক কাজে ব্যাপক অংশগ্রহণের কারণে পার্বতীপুরের প্রিয় মুখে পরিণত করেছে।

পার্বতীপুরের চন্ডীপুর ইউনিয়নে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে হাজী মোহাম্মদ মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরীর জন্ম১৯৩০ সালে। পিতা আলহাজ্ব সোলায়মান, মাতা সেরাজুন নেছা ফেলানী। তিন বোন, পৃথিবীর মায়া ছেড়ে চলে গেছেন। মানুষের ভালবাসায় সিক্ত হয়ে বেঁচে আছেন মোফাজ্জল, এলাকার তথ্য ভান্ডার হিসেবে।

বিলম্বিত শিক্ষা জীবন তার। প্রথম চন্ডীপুরে, পরে পার্বতীপুর জ্ঞানাঙ্কুর উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষা জীবন শুরু। বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনের সময় জ্ঞানাঙ্কুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্র ছিলেন। এই সময় তার বয়স ছিল ২১-২২। ছিলেন পরিপূর্ণ তরুণ। সেই সময়ের তরুণ ছাত্রনেতা সরদার মোশাররফ হোসেনের নেতৃত্বে যে মিছিল হতো তাতে সক্রিয় থেকেছেন তিনি। শ্লোগান দিয়েছেন রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই, তোমার ভাষা আমার ভাষা বাংলা ভাষা বাংলা ভাষা। সেই সময় ভাষার দাবীতে আরো যারা মিছিলে অংশ নিয়েছেন তাদের অন্যতম ছিলেন শামসুদ্দিন আহমেদ, আফতাবউদ্দিন আহমেদ প্রমুখ।

‘ সরদার মোশাররফ হোসেন তখন চমৎকার ভাষণ দিতে পারতেন। বাংলা ভাষার সমর্থনে তার যুক্তিপুর্ণ বক্তব্য ছাত্রদেরকে মুগ্ধ করত। ২১ ফেব্রুয়ারী রফিক, সালাম, বরকত, জববারের হত্যাকান্ডের ঘটনার প্রতিবাদে জ্ঞানাঙ্কুর উচ্চ বিদ্যালয়ের বেশিরভাগ ছেলে তার নেতৃত্বে মিছিল করেছে’, জানালেন মোফাজ্জল।

বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন, উনসত্তুরের গণঅভ্যুত্থান, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ হতে শুরু করে যতগুলো রাজনৈতিক আন্দোলন হয়েছে, তার সবগুলোতেই সক্রিয় থেকেছেন মোফাজ্জল চৌধুরী। রাজনৈতিক কারণে সফর করেছেন গ্রাম-গ্রামান্তরে। দিনাজপুর নাট্য সমিতি হলে ১৯৬৯ সালে অনুষ্ঠিত ছাত্রলীগের এক বিরাট সম্মেলনে যোগ দিয়ে কেন্দ্রীয় নেতাদের মনোযোগ আকর্ষণ করেছিলেন। সম্মেলন শেষে ফেরার পথে জাতীয় ছাত্র নেতা নূরে আলম সিদ্দিকী, শেখ শহীদ পার্বতীপুরে এলে তাদেরকে চা নাস্তা খাইয়ে আপ্যায়ন করেছিলেন তিনি।

১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনকে সামনে রেখে বঙ্গবন্ধু সারাদেশে রেল পথে সাংগঠনিক সফর করছিলেন। তিনি দিনাজপুর জেলায় একটি জনসভা করে পরদিন দুপুরের দিকে ট্রেনযোগে পার্বতীপুরে যান এবং তৎকালীন ইপিআর ক্যাম্প মাঠে জনসভা করেন। পার্বতীপুর রেল স্টেশন হতে প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে এই ইপিআর ক্যাম্প মাঠ। রেল ষ্টেশন হতে মাঠে কিভাবে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে যাওয়া যাবে তা নিয়ে আওয়ামীলীগের স্থানীয় নেতারা দূর্ভাবনায় পড়েন।

কারণ সেই সময় পার্বতীপুরে সাধারণ মানুষের কোন কার, মাইক্রো ছিল না। গাড়ীর ব্যবহার ছিল না। শুধুমাত্র একটি গাড়ি, যার মালিক পার্বতীপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। গাড়িটি আইয়ুব খানের আমলে সরকারীভাবে স্কুলটিকে অনুদান দেয়া হয়েছিল।

সেই সময় স্কুলটির ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ছিলেন মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী, জহুরুল হক ও আব্দুল মজিদ। রাজনৈতিকভাবে সবাই আওয়ামী লীগার। নেতাদের সাথে বসে তারা সিদ্ধান্ত নেন যে, বঙ্গবন্ধুকে রেল ষ্টেশন হতে জনসভার মাঠ পর্যন্ত আনা-নেয়ার কাজে স্কুলের গাড়িটিকে ব্যবহার করা হবে। তবে এ বিষয়ে তারা স্কুল কমিটির সভাপতির অনুমোদন নেবেন। সভাপতি অনুমোদন না দিলে তারা নিজেরা নিজে অনুমোদন দেবেন।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এই তিন নেতা এবং পার্বতীপুর পেরৈ আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল আউয়াল স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও এসডিও আব্দুল লতিফের সাথে দেখা করেন এবং স্কুলের গাড়িটি বঙ্গবন্ধুকে রেল ষ্টেশন হতে ইপিআর মাঠ পর্যন্ত আনা-নেয়ার কাজে ব্যবহারের জন্য অনুমোদন প্রার্থনা করেন। সেই সময় বঙ্গবন্ধুর জনপ্রিয়তা তুঙ্গে উঠেছিল। সম্ভবত এসডিও সাহেব নিজেও বঙ্গবন্ধুর ভক্ত হয়ে পড়েছিলেন। তদুপরি এই চার জনের সবাই স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ছিলেন। তাই গাড়িটি বঙ্গবন্ধুকে বহনের কাজে তিনি আপত্তি করেন নি। তবে উল্লেখিত ৪ ব্যক্তির কাছ থেকে একটি লিখিত বন্ড নিয়েছিলেন। বন্ড এ লেখা ছিল, গাড়িটির কোন প্রকার ক্ষয়-ক্ষতি হলে তারা সেটা নিজেদের টাকায় ঠিক করবেন অথবা নতুন গাড়ি কিনে দিবেন। এরপর অনুমোদন পত্র প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলীর কাছে জমা দেন। বলাবাহুল্য নির্ধারিত দিনে সেই গাড়িতে করে বঙ্গবন্ধূ শেখ মুজিবুর রহমানকে পার্বতীপুর রেল স্টেশন হতে জনসভার মাঠে এবং সেখান থেকে আবার রেল স্টেশনে নিয়ে আসার পর সেটা স্কুলে ফেরত দেওয়া হয়েছিল। এই জনসভায় লক্ষ্যে লোকের সমাগম হয়েছিল এববং মানুষ বিপুলভাবে বঙ্গবন্ধুকে পুস্পমাল্যে বরণ করেছিল। বঙ্গবন্ধু জনসভা শেষ করে বিকাল ৫টার দিকে মাঠ ত্যাগ করেন। এখানে তিনিন তার বক্তব্যে পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের বিভিন্ন বৈষম্যের কথা তুলে ধরেনন এবং জনগণকে বাঙালির অীধকার প্রতিষ্ঠায় নৌকা মার্কায় ভোট দেয়ার জন্য আহবান জানান।

অবশ্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী জানান, পার্বতীপুরে আসার অনেক আগেই তিনি বঙ্গবন্ধুকে প্রথম দেখেছিলেন রাজশাহীতে। রাজশাহীর আজিজুল হক (১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নির্বাচিত এমএনএ) এবং তার ছোট ভাই জুম্মা খান পার্বতীপুর জ্ঞ্যানাংকুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র থাকা অবস্থায় পরিচয় হয়েছিল। বিশেষ করে জুম্মা খানের সাথে বন্ধুত্ব গড়ে উঠে। তাদের বাবা চয়েন খা পার্বতীপুর রেলওয়ের একজন কর্মকর্তা ছিলেন। অপরদিকে লেখাপড়া শেষে জুম্মা খান দিনাজপুরে সিভিল ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনের অনেক আগে জুম্মা খান একবার তাদের রাজশাহীর বাড়িতে মোফাজ্জল হোসেনকে বেড়াতে নিয়ে যান। ঐ সময় রাজশাহীতে সাংগঠনিক সফরে এসে ঐ বাড়িতে আসেন সেই সময়ের জনপ্রিয় রাজনৈতিক নেতা শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি নেতা-কর্মীদের সাথে মত বিনিময় করেন এবং বাঙালির অধিকার আদায়ে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার পরামর্শ দেন। মত বিনিময়কালেও বঙ্গবন্ধুর বক্তব্যে তেজস্বীতা ছিল।

মোফাজ্জল হোসেনের রাজনৈতিক জীবনে আলোড়ন সৃষ্টি করা ঘটনা ছিল পাকিস্তানী জাতীয় পতাকা পুড়িয়ে দেয়ার ঘটনা। এই ঘটনায় তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করেছিল তৎকালিন পাকিস্তান সরকার। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর সেই মামলার নিস্পত্তি হয়েছিল এবং আদালত তাকে বেকসুর খালাস দিয়েছিল। পতাকা পোড়ানোর এই ঘটনা ঘটেছিল মুক্তিযুদ্ধ শুরম্নর অনেক আগে।

আমরা সবাই জানি যে, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ পাকিস্তানী পতাকা নামিয়ে বাংলাদেশী মানচিত্র খচিত পতাকা উত্তোলনের একটি কর্মসূচি দিয়েছিলো। কর্মসূচিটি ছিল ১৯৭১ সালের ২৩ মার্চ। সেই কর্মসূচী দেশ জুড়ে সফল হয়েছিল এবং স্বাধীকার ও স্বাধীনতা আন্দোলনে তা মাইলফলক হিসেবে কাজ করেছিল। কিন্তু বাঙ্গালি-বিহারী সংঘর্ষের জের ধরে ১৯৭১ সালের মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহেই পাকিস্তানী পতাকা নামিয়ে তাতে আগুন ধরিয়ে দেয়ার চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটিয়েছিলেন মোফাজ্জল চৌধুরীসহ আরো ক’জন। এ ঘটনায় রাষ্ট্রদোহ মামলা হয়। মামলার আসামী করা হয় মোফাজ্জল চৌধুরীসহ, ইসাহাক আলী, শের আলী, জসিমউদ্দিনকে।

মোফাজ্জল হোসেনের মতে বিহারীরা ছিল উগ্র ও হিংস্র। তিনি বলেন, পার্বতীপুরে বিহারীরা আসে পাকিস্তান সৃষ্টির পর। মুসলমান হিসেবে আমরা তাদেরকে অভ্যর্থনা জানিয়েছি, খাবার দিয়েছি। তাদেরকে রাজাবাসর, হলদীবাড়ী, আমেরিকান ক্যাম্পসহ বিভিন্ন জায়গায় থাকার বব্যবস্থা করে দিয়েছি। কিন্তু পরে তারা বাঙালিদের অনেক ক্ষতি করে। তারা বাঙালিদের মালামাল কেড়ে নিত। খেলাধূলা করতে গেলে মারধর করত। তারা উগ্র স্ববভাবের ছিল।

একাত্তরের মার্চ মাসের পুরোটাই ছিল আন্দোলন, সংগ্রামে উত্তাল। এ সময় বিহারী-বাঙ্গালী উত্তেজনাও সারাদেশে ছিল। তবে বিহারী অধ্যুষিত রেলওয়ে শহর পার্বতীপুরে উত্তেজনা একটু বেশি ছিল। পার্বতীপুরের তেলকল সিনেমা হলের পাশে অবাঙ্গালীদের একটা স্কুলের কাছে মার্চের প্রথম সপ্তাহে বিহারীদের সাথে বাঙ্গালীদের হঠাৎ বড় ধরণের সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষের জের ধরে দু’পক্ষের উত্তেজনা ও সংঘাত বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে পড়ে। এর ফলে দু’পক্ষের অনেকে আহত হয় এবং বেশ কিছু বাড়িতে অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটে। পার্বতীপুর কলেজেও আগুন ধরিয়ে দেয় বিহারীরা। এতে বিক্ষূব্ধ হয়ে মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরীর নেতৃত্বে মনসুর আলী, মজিবর রহমান মন্টু, তোফাজ্জল হোসেন, জবেদ আলী, নুরুল ইসলাম নুরু, আজমল হোসেন, আমিনুল হক প্রমুখ যুবক তেলকল সিনেমা হল সংলগ্ন বিহারীদের স্কুলে উড়তে থাকা পাকিস্তানী পতাকা নামিয়ে পুড়িয়ে দেন। এখানে বিহরীদের সাথে সংঘর্ষ হয়। এতে আহত হন অনেকে। পরে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হয়, যে কথা আগেই তুলে ধরা হয়েছে।

Jewl Vai 2  এরপর শুরু হয় মুক্তিযুদ্ধ। যুদ্ধের শুরুতে সৈয়দপুর হতে ১১জন বাঙালি সৈনিক পার্বতীপুরে এলে মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী ও তার সঙ্গিরা তাদেরকে সহযোগিতা করেন। ঐ সৈনিকদের পার্বতীপুরের দক্ষিণপাড়া, হাবড়া, হলদীবাড়িসহ বিভিন্ন স্থানে পর্যায়ক্রমে অবস্থান ও সহযোগিতা করা হয়। হাবড়ায় অবস্থানকালে পাকিস্তানি সেনাদের সাথে প্রচন্ড গোলাগুলি হয় এবং একজন বাঙালি সৈনিক মারা যায়। এখান থেকে চন্ডীপুর হয়ে তিলাই নদী দিয়ে বাঙালি সৈনিকদেরকে সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে যেতে সাহায্য করেন মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী, ইব্রাহিম প্রামানিক, মনছুর আলী, নুরুল ইসলাম নুরু, মোঃ নেজামউদ্দিন, জহুরুল হক, আমিনুল হক আমিন প্রমুখ সৈনিকদের অস্ত্র ও মালামাল বহন করে সীমান্ত পার করে দেন।

প্রতিরোধ যুদ্ধ চলাকালে পার্বতীপুরের জাহানাবাদ গ্রাম নিবাসী আলহাজ্ব আব্দুল জববার তার দুইটি বন্ধুক জসীমউদ্দিন আহমেদ ও   ইব্রাহিম মানিকের হাতে তুলে দেন এবং গুলির ব্যাগ দেন নুরুল ইসলাম নুরুর হাতে। তারা মোফাজ্জল চৌধুরীর নেতৃত্বে আরো লোকজনকে পাকিন্তানিদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। কিন্তু পাকিস্তানি সেনাদের তীব্র আক্রমনের মুখে পিছু হটতে থাকেন এবং এক পর্যায়ে তারা ঐসব অস্ত্র সহকারে ভারতে পালিয়ে যান।

ভারতে অবস্থাননকালে তারা পতিরাম ক্যাম্প, কাটলা ক্যাম্প, বড়াহার ক্যাম্প সহ বিভিন্ন ক্যাম্পে ও যুদ্ধক্ষেত্রে যান এবং যখন যে নির্দেশনা লাভ করেন, সেই মোতাবেক কজ করতে থাকেনন। পতিরাম ক্যাম্পে পার্বতীপুর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খতিবুর রহমানের সাথে দেখা হয় এবং তার নির্দেশে মোফাজ্জল হোসেন ভারতে আসা পার্বতীপুরের লোকজনের সম্পর্কে খোঁজ খবর নিয়ে তাদের সুবিধা-অসুবিধার কথা রিপোর্ট করতে থাকেন। পরে তিনি কাটলা ক্যাম্পে যোগ দেন। এখানে সংসদ সদস্যদের এক সভায় দিনাজপুর সদর আসনের এমএনএ এম আব্দুর রহিম জোনাল চেয়াম্যান নির্বাচিত হলে ফুলবাড়ি কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল আজিজ নেতৃত্বে, উপাধ্যক্ষ আব্দুল সামাদ, মোফাজ্জল চৌধুরীর, নজরুল ইসলাম, ডাঃ আব্দুর রহমান, নুরুল ইসলাম নুরু, আমিনুল ইসলাম আমিন প্রমুখ দেখা করেন এবং তার নির্দেশনা প্রার্থনা করেন। এম আব্দুর রহিম তাদেরকে ওয়েলফেয়ার কমিটিতে যোগ দেয়ার পরামর্শ দিলে তারা সবাই তাতে যোগ দেন। তাদেরকে জোনাল ওয়েলফেয়ার কমিটির সদস্য হিসেবে পার্বতীপুর, ফুলবাড়ি, বিরামপুরের বিশেষ দায়িত্ব দেয়া হয় যা তারা বিজয়ের পূর্ব মুহুর্ত পর্যন্ত পালন করেন। অধ্যাপক ইউসুফ আলী, সরদার মোশাররফ হোসেন, খতিবর রহমান প্রমুখ নেতৃবৃন্দ সীমান্ত এলাকায় বিভিন্ন সময়ে তাদের কার্যক্রম পরিদর্শন করেন ও প্রশংসা করেন।

ওয়েলফেয়ার গ্রুপের সদস্য হিসেবে মোফাজ্জল হোসেন বড়হার ক্যাম্পেও আব্দুল আজিজের নেতৃত্বে যান এবং ক্যাম্পে আর্মি সদস্য মোফাজজাল হোসেনের সাথে সপ্তাহে সপ্তাহে দেখা করেন এবং তার নির্দেশনা মোতাবেক বিভিন্ন স্থানে রেকি করতে যান। রেকি ও যুদ্ধ এক সাথে চলতে থাকে। জ্বলেশ্বরীতে যুদ্ধ করার সময় ফুলবাড়ির কাজিহাল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধাদের খাওয়া দাওয়ার ব্যবস্থা করে দেনন। দাদুল এলাকায় যুদ্ধ করার সমায় পার্বতীপুরের এ টি এম রেজাউল ইসলাম বুলবুল তাদেরকে বিভিন্নভাবে সহায়তা করেন।

পার্বতীপুর সংলগ্ন ফুলবাড়ি উপজেলা হানাদার মুক্ত হয় ১৯৭১ সালের ৪ ডিসেম্বর। এর আগের দিন ৩ ডিসেম্বর রাত ১২টার দিকে মুক্তিযোদ্ধাদের একটি দল ডাঃ মোজাফফর ও আব্দুল আজিজের নেতৃত্বে ফুলবাড়িতে প্রবেশ করেন্এববং ৪ ডিসেম্বর সকালের মধ্যে ফুলবাড়ি হানাদার মুক্ত হয়। মুক্তিযোদ্ধাদের এই দলে ছিলেন মনসুর আলী সরকার, লিয়াকত আলী, আব্দুল সামাদ, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী, নিজামউদ্দিন সরকার, নুরুল ইসলাম নুরু, আমিনুল হক আমিন প্রমুখ। দলের কয়েকজন সদস্য যথাক্রমে মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী, নিজামউদ্দিন সরকার, নুরুল ইসলাম নুরু, আমিনুল হক আমিনকে মিত্র বাহিনীর ক্যাপটেন ভারতীয় সৈনিক যাদবের হাতে তুলে দেয়া হয় এবং তার নেতৃত্বে দলটি দুপুর ১টার মধ্যে পার্বতীপুরে প্রবেশ করেন। ফলে একই দিনে পার্বতীপুরও হানাদার মুক্ত হয়।

মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘একবার পার্বতীপুর জ্ঞ্যাণাংকুর হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক জহুরুল হক আমাকে বললেন, আলাউদ্দিনরা যুদ্ধ করছে, চলো দেখা করে আসি। আমরা গিয়ে শুনি যে, আলউদ্দিনের গ্রপের একজন যোদ্ধা পাক সেনাদের গুলিতে মারা গেছে। তার নাম মোজাফফর রহমান। বাড়ি পার্বতীপুরের নতুন বাজারে। এটা শুনে মন খারাপ হয়ে যায়।’

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী দেশ পূনর্গঠণ কাজে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। পাকিস্তান আমল থেকে তিনি রাজনীতির পাশপাশি সামাজিক কাজে যুক্ত থাকতেন। সেই ধারা স্বাধীনতার পরেও অব্যাহত রাখেন। তিনি পাকিসত্মান আমলে চন্ডীপুর ইউনিয়ন পরিষদে বিডি মেম্বার নির্বাচিত হয়েছিলেন। সেই সময় অনেকগুলা রাস্তা নির্মাণ করেন। হলদীবাড়িতে হাসপাতাল নির্মাণের লক্ষ্যে একটি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা কমিটি করেন ষাটের দশকে। যা পরে বাসত্মবরূপ লাভ করে। ১৯৬৪ হতে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত ৩১ বছর একটানা সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন পার্বতীপুর বালিকা বিদ্যালয়ের। পার্বতীপুর কেজি স্কুল ও মনিরিয়া হাই স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি তিনি, ছিলেন পার্বতীপুর ডিগ্রী কলেজের নির্বাহী সদস্য। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধা হাইস্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও বিখ্যাত প্রগতি ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি তিনি। পার্বতীপুরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রতিষ্ঠার সাথে যুক্ত এই অদম্য মানুষটি এখনো ধরে রেখেছেন তার জনপ্রিয়তা। এখনো তিনি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত থেকে মানব সেবায় নিজেকে বিলিয়ে দিয়ে যাচ্ছেন।

পার্বতীপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান উপদেষ্টা মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী তার রাজনৈতিক কর্মকান্ডের শুরু থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও নীতি অনুসরণ করেছেন এবং এখনো করে যাচ্ছেন। ৮৫ বছরের এই সময়েও আলোকচ্ছটা কর্মকান্ড দিয়ে নিজেকে পার্বতীপুরবাসীর প্রিয় মুখে পরিণত করেছেন। মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক চলচ্চিত্র ‘গরিলা’য় অভিনয় করেছেন ‘নাতি-নাতনীকে পালিয়ে নিয়ে যাওয়ার দৃশ্যে। তার কাছে আছে পুরনো দিনের অনেক স্মৃতি। অনেক তথ্য। পার্বতীপুরের পুরনো দিনের রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক পরিস্থিতির কথা জানতে চাইলে লোকে তাকেই দেখিয়ে দেন। তাকে অনেকে তথ্য ভান্ডার হিসেবে অভিহিত করে থাকেন।

লেখক-আজহারুল আজাদ জুয়েল, সাংবাদিক

পাটুয়াপড়া, দিনাজপুর, ইমেল-a.azadjewel@gmail.com

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email