শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মোহাম্মদ আলী চৌধুরীর অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল দিনাজপুর কলেজিয়েট স্কুল আজ প্রতিষ্ঠিত বিদ্যাপিঠ

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুর মহিলা কলেজ সংলগ্ন মেয়েদের কলেজিয়েট স্কুল এন্ড কলেজ আজ একটি প্রতিষ্ঠিত বিদ্যাপিঠ। বিশিষ্ট সমাজ সেবক মোহাম্মদ আলী চৌধুরীর অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এই বিদ্যাপিঠ। তৎকালীন অডিট কমিটির আহবায়ক মোহাম্মদ আলী চৌধুরী ২০০৬ হতে ২০০৮ পর্যন্ত আহবায়ক হিসেবে আভ্যন্তরীণ রিপোর্ট প্রকাশ করেন। উক্ত রিপোর্টের খবর প্রকাশ হওয়ায় এবং অনিয়ম, দুর্নীতি প্রকাশ পাওয়ায় অধ্যক্ষ মোঃ হাবিবুল ইসলাম মোহাম্মদ আলী চৌধুরীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ২৫ এপ্রিল তিনি শিক্ষকদের সভা ডাকেন। ওই সভায় উপস্থিত শিক্ষক আতিয়ার রহমান, মনি মোহন রায়, কামরুল হক, আফসারুজ্জামান প্রমুখ অডিট রিপোর্টটি ভূয়া বলে দাবী করলেও কলেজ শাখার প্রভাষক শাহনা পারভীন বলেন, দাখিলকৃত অডিট রিপোর্টটি সঠিক এবং নির্ভুল। অধ্যক্ষর পক্ষের কিছু শিক্ষক বলেন, আমরা মোহাম্মদ আলী সাহেবকে ডেকে এনে অপমান করব। অধ্যক্ষ একথার প্রেক্ষিতে বলেন, মোহাম্মদ আলী চৌধুরী একজন সম্মানিত ব্যক্তি। তার বিরম্নদ্ধে কিছু করা যাবে না। একজন শিক্ষক জানান, ১৯৮০‘র দশক শেষ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত মোহাম্মদ আলী চৌধুরী এই কলেজিয়েট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিকে প্রতিবন্ধী অবস্থা থেকে আজ জেলার একটি শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রূপ দিতে সক্ষম হয়েছেন। তবে তাকে কলেজিয়েটের পক্ষ থেকে ডেকে দাওয়াত করে এনে তার বিরম্নদ্ধে উপর্যুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

গত ২০১৩ সালের জানুয়ারী মাসে কলেজিয়েট মাঠে সাবেক সুরেন্দ্রনাথ কলেজের প্রাক্তন ছাত্রীদের পূণর্মিলনী সভায় কলেজিয়েটের সাবেক অধ্যক্ষ গুল বেগম বলেন, আজকের কলেজিয়েট উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় যে মর্যাদা নিয়ে দাড়িয়েছে তার কৃতিত্ব মোহাম্মদ আলী চৌধুরী। উলেস্নখ্য, মোহাম্মদ আলী চৌধুরী সংসদ সদস্য বা মন্ত্রী না হয়েও কারো কাছে কোন অর্থ সাহায্য না নিয়ে জাফরপুর ব্রীজ নির্মাণ, ফুলবাড়ি ব্রীজ পুনর্নিমাণ, খয়েরবাড়ি ব্রীজ পুনর্নির্মাণসহ অসংখ্য জনকল্যণমুখী কাজ করেছেন। এত গুণের অধিকারী একজন ব্যক্তিত্ব মোহাম্মদ আলী চৌধুরীকে তার কোন অপরাধে বা কার কি ক্ষতি করার কারণে অধ্যক্ষ হাবিবুল ইসলাম শাস্তি দিতে চান তা ছাত্রী, অভিভাবক ও জনগণ জানতে চায়। জানতে চায় কেন এই মহাপ্রাণ ব্যক্তিত্বের প্রতি এত ক্ষোভ অধ্যক্ষ হাবিবুলের? তারা এর সুবিচার দাবি করেন।