সোমবার ১৫ অগাস্ট ২০২২ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যুক্তরাজ্য সরকার নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেনি : প্রধানমন্ত্রী

Pmআওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, যুক্তরাজ্য সরকার ৫ জানুয়ারির নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেনি। শেখ হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার ক্ষেত্রেও তাদের কোনো দ্বিধা ছিল না। তিনি বলেন, যুক্তরাজ্য সরকারের যদি বাংলাদেশ সরকার সম্পর্কে কোনো দ্বিধা থাকত, তাহলে দেশটির প্রধানমন্ত্রী বারবার ফোন করে দাওয়াত দিতেন না। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন তাকে ১০ নং ডাউনিং স্ট্রিটে নিজে ‘রিসিভ’ করেন বলেও জানান তিনি। আজ শনিবার গণভবনে যুক্তরাজ্য সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন। তিনি বলেন, যুক্তরাজ্য সফরের মধ্য দিয়ে দুই দেশের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক নতুন মাত্রায় উন্নীত হয়েছে।
৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়ে যুক্তরাজ্য সরকার অস্বস্তিতে আছে, বিভিন্ন পত্রিকায় এ বিষয়ে সংবাদের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে শেখ হাসিনা বলেন, ইলেকশন নিয়ে আলোচনা হবেই। পার্টিসিপেটরি ইলেকশন, আনকন্টেসটেড …. এসব নিয়ে আলোচনা থাকতেই পারে। কিন্তু ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ফরোয়ার্ড লুকিং। তিনি বলেছেন, যা হবার হয়েছে ফিরে তাকাতে চাই না। শেখ হাসিনা বলেন,  যুক্তরাজ্য সরকারের যদি বাংলাদেশ সরকার সম্পর্কে কোনো দ্বিধা থাকত, তাহলে তাকে দেশটির প্রধানমন্ত্রী বারবার ফোন করে দাওয়াত দিতেন না। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন তাকে ১০ নং ডাউনিং স্ট্রিটে নিজে ‘রিসিভ’ করেন বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বৈঠকে ডেভিড ক্যামেরন বলেছেন, সামনে এগোতে হবে। আমরা সামনে দেখতে চাই। উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে কাজ করে যেতে চাই। ওই বৈঠকে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে ডেভিড ক্যামেরন হতাশা প্রকাশ করেছে বলে বিএনপি দাবি করছে। এ বিষয়ে তার বক্তব্য জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, কিছু আনকন্টেস্টেড ইলেকশন নিয়ে কথা হয়েছে। আলোচনার সময় যেকোন বিষয় উঠতেই পারে। কিন্তু পরে যেগুলো বললেন সেগুলো তো তারা (বিএনপি) বলছেন না।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি মনেকরি বাংলাদশের অর্থনীতি ও সামাজিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে এই সফর অত্যন্ত সফল ও ফলপ্রসূ হয়েছে। এর মাধ্যমে আমাদের দু’দেশের সুসম্পর্ক এক নতুন মাত্রায় উন্নীত হবে। তিনি বলেন, সকল শক্তির সঙ্গে সম্পর্ক আরো দৃঢ় ও স্থায়ী করাই আমাদের সরকারের লক্ষ্য। বিভিন্ন দেশের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক উন্নয়নে আমাদের সরকার যে কোনো সময়ের চেয়ে এখন অনেক বেশি সচেষ্ট।
‘১৫ আগস্টের মতো ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটবে’ বিএনপি নেতাদের এমন হুমকি সম্পর্কে সাংবাদিকদের করা প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জিয়া পরিবারই ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ডের সাথে সম্পৃক্ত। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু এ দেশের মানুষকে স্বাধীনতা দিয়ে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন। আর ঠিক এ সময়ে ১৫ আগস্টের ঘটনা ঘটিয়ে জাতিকে স্তব্ধ করে দেয়। একজন ছোট্ট শিশুকেও তারা রেহাই দেয় নাই।
শেখ হাসিনা বলেন, আমরা, আমার বোন ও আমি দেশের বাইরে বঙ্গবন্ধু হত্যার তদন্ত কমিটি করি। সেই সময় দেশে একটা ইনিভেস্টিগেশন টিম আসতে চাইলেও জিয়াউর রহমান তাদের আসতে দেননি। স্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয় যে কারা এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত ছিল। ঈদের পর বিএনপি আন্দোলনে নামবে বলে যে হুমকি দিয়েছে তার সমালোচনা করে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, মাঠে নামুক না। মাঠে আওয়ামী লীগ আছে, মানুষ আছে। মাঠের খেলা মাঠেই হবে। ফুটবল মাঠে কে কয়টা গোল দেয়, সেটা সেখানেই দেখা যাবে।
সরকারের সঙ্গে জামায়াতের আঁতাতের কারণে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার থেমে আছে বলে অভিযোগ রয়েছে- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আঁতাতের রাজনীতি আমরা করি না। আওয়ামী লীগ দেশের স্বার্থে কাজ করে।
প্রসঙ্গত যুক্তরাজ্য সরকার ও ইউনিসেফ আয়োজিত গার্ল সামিটে অংশগ্রহণ এবং যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনার পর ৩ দিনের সফর শেষে গত বৃহস্পতিবার দেশে ফেরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গার্ল সামিটে অংশ নিতে প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের আমন্ত্রণে গত সোমবার লন্ডন পৌঁছান শেখ হাসিনা। টানা দ্বিতীয় মেয়াদে সরকারের দায়িত্ব নেয়ার পর এটাই ছিল যুক্তরাজ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রথম সফর। গার্ল সামিটে ২০২১ সালের মধ্যে বাল্যবিবাহ বন্ধের অঙ্গীকার করেছেন তিনি।
লন্ডনে পৌঁছানোর পরদিন মঙ্গলবার ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিটে ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। অর্থনীতি, সামাজিক ও নারী উন্নয়নে অগ্রগতির ‘ভূয়সী প্রশংসা’ করে ডেভিড ক্যামেরন বাংলাদেশকে সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আশ্বাস দেন। এ সাফল্য কিভাবে এলো- তা দেখতে বাংলাদেশ সফরেরও আগ্রহ প্রকাশ করেন তিনি। গার্ল সামিটে অংশ নিয়ে শেখ হাসিনা বাংলাদেশে বাল্যবিয়ে কমে আসার চিত্র এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রে নারীর অগ্রগতির কথা তুলে ধরেন। সম্মেলনের ফাঁকে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এবং ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালকের সঙ্গেও বৈঠক করেন শেখ হাসিনা। এ সফরে তার সঙ্গী ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email