শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যুদ্ধের হুমকি দিলেন রিজভী!

Rijviএবার সরকারকে তুমুল যুদ্ধের হুমকি দিয়ে বিএনপির যুগ্মমহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেছেন, সব দলের অংশগ্রহণে একটি অবাধ নির্বাচন আয়োজনে বিএনপির আহ্বানকে দুর্বলতা ভেবে অগ্রাহ্য করলে তাতে তুমুল যুদ্ধেরই পদধ্বনি শোনা যাবে। তিনি বলেন, ৫ জানুয়ারির প্রহসনের নির্বাচন বাতিল করে সকলের অংশগ্রহণমূলক নির্দলীয় সরকারের অধীনে গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য আলোচনার আহ্বান বিএনপি জানিয়ে এসেছে এবং এখনো জানিয়ে যাচ্ছে। দেশের শান্তি ও স্থিতিশীলতা রক্ষা এবং গণতান্ত্রিক রাজনীতির চলমানতা রক্ষার স্বার্থেই বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল এ অকুণ্ঠ এবং উদাত্ত আহ্বান জানিয়ে যাচ্ছে। আজ শনিবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। এ সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবির খোকন, সহ দফতর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনি, আসাদুল করিম শাহিন, যুবদলের সিনিয়র সহ সভাপতি আবদুস সালাম আজাদ, স্বেচ্ছাসেবক দলের মীর সরাফত আলী সপু প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।
দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর ‘খুনি-সন্ত্রাসীদের সঙ্গে আলোচনা নয়’ বক্তব্যের জবাবে রিজভী বলেন, কিন্তু আমরা হুঁশিয়ারি দিয়ে বলতে চাই, শান্তি ও রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার জন্য অবিলম্বে সব দলের অংশগ্রহণে সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠানের আহ্বানকে দুর্বলতা ভেবে অগ্রাহ্য করলে তাতে তুমুল যুদ্ধেরই পদধ্বনি শোনা যাবে। কারণ কবরের শান্তি যুদ্ধের চেয়ে আরও বেশি নিঃসঙ্গ ও আরও বেশি ভয়ংকর। তিনি বলেন, গণতন্ত্রে যে আলোচনা বা বিতর্কের একটা জায়গা আছে, তা আওয়ামী লীগ বিশ্বাস করে না।
প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের দিকে ইঙ্গিত করে রিজভী বলেন, আলোচনার আহ্বান না শুনে তিনি (প্রধানমন্ত্রী) দেশে কবরের শান্তি নামিয়ে এনে নিজে শান্তিতে থাকতে চান। তবে তা পারবেন না।বরং এতে তুমুল যুদ্ধের পদধ্বনিই শোনা যাবে। তিনি বলেন, বিরোধীদলের আন্দোলনকে আপনি সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বলছেন। তাহলে মন্ত্রীর জামাই কর্তৃক নারায়ণগঞ্জের ৭ খুন, দলীয় নেতাকর্মী কর্তৃক ফেনীর একরাম খুন, মিরপুরের কালশীতে খুন বিশ্বজিৎ, সানাউল্লাহ নূর বাবু, ত্বকীর খুন কী?
বিএনপির সঙ্গে আলোচনার কথা কেন বলা হচ্ছে তা আমার বোধগম্য নয়- প্রধানমন্ত্রীর এমন মন্তব্যের জবাবে রিজভী বলেন, তার (শেখ হাসিনা) তো বোধগম্য না হওয়ারই কথা। কারণ ভোটারবিহীন নির্বাচনে বিদেশি শক্তির সাহায্যে সরকার গঠন করে সাদ্দাতের বেহেশত পেয়ে গেছেন। এখন তিনি ক্ষমতার রক্ষার জন্য বিরোধী দল দমন ছাড়া কিছুই বোঝেন না। তিনি বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচন প্রধানমন্ত্রীর পারিবারিক জন্মদিনের অনুষ্ঠানের মতো। বিএনপি তাদের পাতানো নির্বাচনে গেলে বানুমতির খেলা দেখাতো।
বিএনপিকে সন্ত্রাসী ও খুনি দল বলে অবহিত করায় প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনা করে রিজভী বলেন, আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো যে বন্দুক ব্যবহার করে তা সারাদেশে জেলা আওয়ামী লীগের কমিটিগুলো কিনে দেয়নি। তাদের বন্দুক কেনা হয়েছে জনগণের টাকায়, সুতরাং সে বন্দুকের নল দেশের বিরোধী দল দমনে বেশি দিন ব্যবহার করা যাবে না, কারণ এ নল যেকোনো সময় বিপরীত দিকে ঘুরে যেতে পারে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email