শনিবার ২০ এপ্রিল ২০২৪ ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘যেকোনো উপায়ের’ পরিণতি কি লাশ খালে-বিলে-নদীতে ভেসে উঠবে : রিজভী

বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন,বিরোধী দলের অস্তিত্ব রেখে কখনই নাৎসী শাসন বজায় রাখা যায় না। ‘তাই বাংলাদেশী নাজীরা বিরোধী দল, বিরোধী মত, সরকারকে সমালোচনা করার অধিকার, যা সংবিধান ও বহুদলীয় গণতন্ত্রে স্বীকৃত সেটিকে উচ্ছেদ করার চূড়ান্ত পরিকল্পনা বাস্তবায়নে উঠে পড়ে লেগেছে। জনমনকে বিভ্রান্ত করতে তাদের হাইপার প্রপাগান্ডার ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে। এই প্রপাগান্ডা একতরফা বিরোধী দলের বিরুদ্ধে।’

গণমাধ্যমে পাঠানো বিএনপির সহ-দফতর সম্পাদক মো. আব্দুল লতিফ জনি প্রেরিত বৃহস্পতিবার বিকেলে এক বিবৃতিতে তিনি এ সব কথা বলেন।

রিজভী আহমেদ বলেন, ‘সরকারের প্রপাগান্ডার পাল্টা বক্তব্যের সুযোগ বিরোধী দলের থাকে না। কারণ তাদের পক্ষে কোনো গণমাধ্যমে সংবাদ পরিবেশিত হলে সেই সংবাদ মাধ্যমটির মৃত্যু ঘটবে। বিরোধী দলের কথা বলার সুযোগ দূরে থাক তাদের বক্তব্য রাখার সব জায়গা কেড়ে নেওয়া হয়।’

‘যেকোনো উপায়ে দমন করুন, দায়িত্ব আমার’ গত বুধবার পুলিশের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া এই বক্তব্য সম্পর্কে গভীর উদ্বেগ ও শঙ্কা প্রকাশ করে রিজভী আহমেদ প্রশ্ন রাখেন, ‘যেকোনো উপায়ের’ পরিণতি কী তাহলে আরও অনেক লাশ খালে-বিলে-নদীতে ভেসে উঠবে? যৌথবাহিনীর হাতে চলবে গ্রামের পর গ্রামে খান্ডব দাহন। বিরোধী দলের আরও অসংখ্য নেতাকর্মীদের হত্যার পর বলা হবে বন্দুকযুদ্ধের কাহিনী?’

রিজভী আহমেদ ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘কিন্তু গোয়েন্দা বাহিনীর বন্দুকযুদ্ধের আষাঢ়ে গল্প বানানো হলেও খিলগাঁও ছাত্রদল নেতা নুরুজ্জামান জনি, নড়াইল পৌরসভার কাউন্সিলর ইমরুল কায়েস, কানসাটের ছাত্রদল নেতা মতিয়ার রহমান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ছাত্রশিবির নেতা আসাদুজ্জামান তুহিনসহ জোটের আরও বেশ কিছু নিষ্ঠাবান কর্মীকে এরই মধ্যে পরিকল্পিতভাবে টার্গেট হত্যা করা হয়েছে।’

তিনি প্রশ্ন করেন, এরা কি নাশকতা করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়েছে? এদের সবাইকে নিজবাড়ি কিংবা আত্মীয়-স্বজনের বাসা থেকে যৌথবাহিনী, গোয়েন্দা পুলিশ বা র‌্যাব তুলে নিয়ে গিয়ে হত্যা করেছে। অথচ এদের মায়ের আহাজারি, পরিবারের কান্না কেন গণমাধ্যমে প্রকাশিত ও প্রচারিত হয় না? এরা কি বাংলাদেশের মানুষ নয়? এত আদম সন্তানের লাশ, এত কান্নার রোল কেন গণমাধ্যম আড়াল করে রাখছে?

রিজভী আহমেদ বলেন, ‘পেট্রোলবোমা ছুড়ে নিরীহ মানুষকে অগ্নিদগ্ধ করা শুধু অমানবিকই নয়, যারা এগুলোর সঙ্গে যুক্ত তারা পাশবিক বিবেকের অমানুষ। কিন্তু এই জঘন্য অপকর্মের দায় চাপানো হচ্ছে বিরোধী দলের ওপর। কারণ সরকারি শক্তির নিয়ন্ত্রণে গণমাধ্যম। তাদের হুকুমেই গণমাধ্যমে ঢালাও প্রচার চালানো হচ্ছে বিরোধী দলের বিরুদ্ধে। যেখানে বিএনপি চেয়ারপারসন ও ২০ দলীয় জোট নেতা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া নিজ কার্যালয়ে অবরুদ্ধ, দলের মহাসচিবসহ হাজার হাজার নেতাকর্মী কারাগারে, লাখ লাখ নেতাকর্মী মিথ্যা মামলা কাঁধে নিয়ে বাড়িছাড়া, প্রতিদিন অসংখ্য নেতাকর্মীদের বাসায় চলছে যৌথবাহিনীর তাণ্ডব, চলছে ক্রসফায়ারের নামে বিরোধী জোটের মানুষ হত্যা, সেই রকম ভয়-আতঙ্ক ও উৎকণ্ঠার মধ্যে নেতাকর্মীরা জীবন বাঁচাবে না গাড়িতে আগুন অথবা পেট্রোলবোমা ছুড়বে?’
রিজভী আহমেদ দৃঢ়কণ্ঠে বলেন, ‘মিথ্যা মামলা দায়ের করে আর আটকের হুমকি দিয়েও যেমন পুত্রশোকে কাতর বেগম জিয়াকে গণতন্ত্র পুনঃরুদ্ধারের দৃঢ় সংকল্প থেকে বিন্দুমাত্র টলানো যায়নি। তেমনি সরকারের হুমকির বিরুদ্ধে মানুষের প্রত্যয়, দৃঢ়তা ও অঙ্গীকার আরও বেশী শক্তিশালী হয়েছে চলমান আন্দোলনকে অব্যাহত রেখে বিজয়ের পথে ধাবিত করতে। সরকারি প্রচণ্ড আক্রমণ সত্ত্বেও নেতাকর্মীরা জোরাল কণ্ঠের আওয়াজে মিছিল করে শান্তিপূর্ণ অবরোধ কর্মসূচি পালন করে যাবে।’
Spread the love