শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ ২রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

যেমনি তার আদর্শ তেমনি গড়ে তুলেছেন শিক্ষা নীড়

এম.এ.হক,দিনাজপুর ॥ দিনাজপুরের খানসামা উপজেলার জোনাব আলী শাহ্কে কেনা চিনে, সবাই এক নামে যেমন তাকে চিনে,তেমনি তার পূত্র মোঃ আবজাল হোসেন শাহ্ একজন আদর্শ শিক্ষক ও একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা হিসাবে নিজেকে পরিচিত করে তুলেছেন । বাব-দাদার সৃতি চারনে গড়ে তুলেন সমাজ সেবা মূলক প্রতিষ্ঠানও। জেলার খানসামা উপজেলার গোয়ালডিহি সেন্টার ডাঙ্গা যেখানে এক সময়ে অর্থাৎ প্রতিষ্ঠানগুলী গড়ে উঠার পূর্বে ছিল ধধু অন্ধকার, প্রতিনিয়ত ঘটতো ডাকাতি,চুরিসহ নানা অপ্রিতিকর ঘটনা । এজন্যে অন্ধকারে আলোর জম্ন দেখাগেছে আদর্শ পিতার আদর্শ শিক্ষক। এটি ছবির মধ্যে সিমাবদ্ধ নয়, ফোকাস নয়, বাস্তব চিত্র ফুঁটিয়ে তুলে ঐ এলাকায় আলোড়ন সৃষ্টি করে চলেছেন যা আজ শুধু খানসামায় নয় জেলা জুরে সৃষ্ট প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে লাভ করেছেন পরিচিতি। তার মধ্যে বিন্দু মাত্র ছাপ নেই অর্থের অহংকার। ছোট বেলা থেকেই নিজে কিছু করার জন্য আগে নিজে উচ্চ শিক্ষা গ্রহন করেন। বাবার চাল মিল,ধান,চাউল,গম আটার ব্যাবসার হিসাব অত্যন্ত পংখানুপংখু ভাবে রাখতেন তিনি যা আজও বিদ্যমান। নিজে যেমন হয়েছেন আদর্শ শিক্ষক ও সফল প্রতিষ্ঠাতা তেমনি ছোট ভাই ও ছেলেদের উচ্চ শিক্ষা অর্জনে তার অবদান চির স্বরনীয়। প্রথমত: ঐ স্থানে পশ্চিম গোয়ালডিহি সেন্টার ডাঙ্গা প্রাথমিক বিদ্যালয় ১৯৭৫ সালে বাশেঁর বেড়া ও ঢেউটিনের ছাউনি দিয়ে স্কুল যাত্রা শুরু করলেও এক পর্য্যায়ে উক্ত স্কুলটি সরকারী ভাবে নিবন্ধিত হয় ২০০৮ সালে যার রেজীঃ নং ৪৫৮/৮। পরে সরকারী প্রাথমীক বিদ্যালয়ে রুপান্ত্রিত হয়ে ১৯৯৯ সালে সরকারী অর্থায়নে নির্মিত হয় একতলা বিশিষ্ট ইটের তৈরী পাকা ভবন। তখনো বন্দ হয়নি ওই এলাকায় চুরী ডাকাতির মত নানা অঘচন। এরপর ১৯৯২ সালে গোয়ালডিহি নিম্ন মাধ্যমিক বালিকা স্কুল টিনের বেড়া-টিনের ছাউনি দিয়ে নির্মিত স্কুলটি প্রতিষ্ঠা করেন। যা আজ গোয়ালডিহি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। তখনকার ওই এলাকায় কাজ করা বে-সরকারী প্রতিষ্ঠান প্লান বাংলাদেশ,দিনাজপুর এর সহযোগীতায় একতলা বিশিষ্ট একাডেমিক ভবন নির্মিত হয়। ওই ভবনটি ১৮ ডিসেম্বর উদ্ভেধন করেন, তৎকালীন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদেও সাবেক হুইপ মোঃ মিজানুর রহমান মানু। এড়ারাও নিজ উদ্যোগে অসংখ্য ছোট-বড় স্কুল বিল্ডিং নির্মান করেন ১০ জন দাতা সদস্য,স্ব-ইচ্ছায় প্রতিষ্ঠানকে ভালবেশে কিছু দানবীরের দেয়া অর্থে। থেমে নেই ওই আদর্শবান পিতার আদর্শবান শিক্ষকের পথচলা। নির্মিত হয় দিনাজপুর শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরের বাজেটের অর্থায়নে আধুনিক ৪ তলা বিশিষ্ট একাডেমিক ভবন। এটি গত ২৩ মার্চ/২১ উদ্বোধন করেন, সাবেক পররাষ্ট্র মন্ত্রী বর্তমানে অর্থ মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি জনাব আবুল হাচান মাহমুদ আলী এম,পি। এই বালিকা স্কুলটি গোয়ালডিহি বালিকা স্কুল ও কলেজ হওয়ার প্রক্রিয়ায় রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। তার শ্রদ্ধেয় পিতামহ অর্থাৎ দাদুর নাম করনে ১৯৯৪ সালে প্রতিষ্ঠাও করেছিলেন, সেন্টারডাঙ্গা মহির উদ্দিন শাহ্ হাফেজিয়া,কওমিয়া মাদ্রাসা লিল্লাহ বোডিং ও এতিমখানা। যেটিতে মোট নিবাসী রয়েছেন ১০৫ জন এর মধ্যে সমাজ কল্যান মন্ত্রনালয়ের ক্যাপিটেশন গ্রান্ট প্রাপ্ত হয়েছেন ৫২ জন। এখানেও রয়েছে এতিম শিশুদের উন্নত থাকা-খাওয়া, উচ্চ শিক্ষা গ্রহনের সু-ব্যাবস্থা উন্নত নাগরিগ রুপে তাদের গড়ে তোলার জন্য রয়েছে নিয়মিত আধুনিক শিক্ষা ব্যাবস্থা। আছে শিশুদের জন্য সঠিক ইতিহাস ও জ্ঞান অর্জনে লাইব্রেরীর ব্যবস্থা। রয়েছে অসংখ্য বিল্ডিং। চলছে এখানেও ৪ তলা বিশিষ্ট বিল্ডিং নির্মানের কাজও। কিনেছেন আরও অনেক জমি। এক কখায় আদর্শ শিক্ষা নিড় গড়ে তুলেছেন ওই এলাকায়। ফলে,এক দিকে যেমন উপকৃত ওই এলাকার গরিব-অসহায় ব্যাক্তিদের,তেমনি বেড়েছে সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের জীবন-মান উন্নয়নে নানা বিধ কর্মযজ্ঞ। তিনি আরও জানান, এসব প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে বেকারদের কর্ম-সংস্থানে যেমন সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে,তেমনি এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো গড়ে ওঠায় মানুষের সমাগম বেড়ে যাওয়ায় গড়ে ওঠে একটি নতুন বাজার স্কুল সংলগ্ন। রয়েছে সার্বক্ষনিক বিদ্যুৎ ব্যাবস্থা। শিক্ষার আলোয় আলোকিত হওয়ায় পাশাপাশি এই স্থানে বন্দ হয়েছে চুরি ডাকাতীরমত না বিধ ঘটনা। তিনি সরকারী,বে-সরকারী প্রতিষ্ঠান,দেশের সামর্থবানদের তার এসব প্রতিষ্ঠানে আর্ধিক সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে শুবিধা বঞ্চিত শিশুদের আধুনিক চাহিদা গুলী পূরনে অবদান রাখার আহবান জানান। উল্লেখ্য যে, গত শনিবার শেষ মহর্ত পর্যন্ত ১২ সেপ্টেম্বর স্কুল কলেজ খোলার নিমিত্তে প্রতিষ্ঠান গুলী পরিস্কার-পরিছন্ন রাখার নিমিত্তে কাজ তদারকী করছিলেন এই প্রধান শিক্ষক। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সহকারী উপজেলা মাধ্যমিক অফিসার মোঃ শাহজাহান সরকার,সাংবাদিক আনোয়ারুল হকসহ স্কুল,এতিম খানা ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলীর কর্মকর্তা-কর্মচারীগণসহ এতিম নিবাসের শতাধিক শিশু-কিশোর।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email