শুক্রবার ১২ অগাস্ট ২০২২ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যে কোন মুহুর্তে কাদের মোল্লার ফাঁসি

56893১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধে জাড়িত থাকার অভিযোগে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে দায়ের করা মামলায় মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল কাদের মোল্লার ফাঁসির প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। কারা কর্তৃপক্ষের হাতে মৃত্যু পরোয়ানা পৌঁছে গেছে। এখন শুধু কার্যকরের আদেশের বাকি। স্বল্পসময়ের মধ্যেই তার ফাঁসির রায় কার্যকর করা হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সম্ভাব্য সবধরনের পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য প্রস্তুতি নিয়েছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীও। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারসহ রাজধানী ঘিরে নিরাপত্তা বলয় গড়ে তুলেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। কূটনৈতিক এলাকাসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। এমনকি নিরাপত্তা ছক থেকে বাদ যায়নি পুলিশ সদর দফতরও। চোরাগোপ্তা হামলা, বিশৃঙ্খলাসহ যে কোনো ধরনের নাশকতা মোকাবেলায় রাজধানীর ৩২টি স্পর্শকাতর পয়েন্টে কঠোর গোয়েন্দা নজরদারির পাশাপাশি স্ট্রাইকিং ফোর্স, দাঙ্গা পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। আজ রবিবার বিকাল থেকেই রাজধানীর দোয়েল চত্বর, বঙ্গবাজার এলাকা, সচিবালয়ের প্রবেশপথ ও মৎস্য ভবন সংলগ্ন রাস্তার দুপাশেও পুলিশ ব্যারিকেড দিয়ে রাখা হয়েছে। হাইকোর্ট চত্বরে গাড়ি প্রবেশের ক্ষেত্রে কড়াকড়ি আরোপ করেছে পুলিশ। ট্রাইব্যুনালের বিচারক, প্রসিকিউটর ও সাক্ষীদের নিরাপত্তাও জোরদার করা হয়েছে। এমনকি বিচার সংশ্লিষ্ট এসব ব্যক্তিদের বাসভবনে মোতায়েন করা হয়েছে হাউজ গার্ড।
আজ বিকালেই আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের ডেপুটি রেজিস্টার অরুণাভ চক্রবর্তী লাল কাপড়ে বাঁধা কাদের মোল্লার মৃত্যু পরোয়না ঢাকা কারাগার কর্তৃপক্ষ, জেলা ম্যাজিস্ট্রট এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পৌঁছে দেন। কাদের মোল্লার মৃত্যু পরোয়ানা হাতে পাওয়ার পর ঢাকা জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আজ সন্ধ্যায় কেন্দ্রীয় কারাগারে গিয়ে ফাঁসিতে ঝোলানোর কাষ্ঠ পরিদর্শন করেন। কারা কর্তৃপক্ষ আইজি প্রিজন মাইন উদ্দিন খন্দকার নিশ্চিত করেন, ট্রাইব্যুনাল থেকে কাদের মোল্লার ফাঁসির রায়ের কপি পেয়েছে। ইতিমধ্যে সব ধরনের প্রস্ততিও নেয়া হয়েছে। সরকারের অনুমতি পেলেই রায় কার্যকর করার উদ্যোগ নেয়া হবে।
মৃত্যু পরোয়ানা জারি হওয়ার পরও কাদের মোল্লার আইন অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তার পরিবার। তবে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাইবে কিনা সে ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। তবে কাদের মোল্লা নিজেই নাকি প্রাণভিক্ষা চাইতে নিষেধ করেছেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email