বুধবার ২০ অক্টোবর ২০২১ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

রংপুর বিভাগের গবেষকদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি মুক্তিযুদ্ধ জ্ঞানকোষে দিনাজপুরের সাংবাদিক আজহারুল আজাদ জুয়েলের ৫৩ লেখা

ষ্টাফ রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ জ্ঞানকোষে দিনাজপুরের বিশিষ্ট সাংবাদিক, কলামিষ্ট, লেখক ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক আজহারুল আজাদ জুয়েলের ৫৩টি লেখা স্থান পেয়েছে। এশিয়াটিক সোসাইটির উদ্যোগে গত ডিসেম্বর মাসে এই জ্ঞানকোষ প্রকাশ পায়। এর বাজারজাত শুরু হয় এ বছর ফেব্রুয়ারি মাসে।

এশিয়াটিক সোসাইটির ২০১২-২০১৩ কাউন্সিল এর ১২তম সভায় মুক্তিযুদ্ধ জ্ঞানকোষ রচনা ও প্রকাশনার সিদ্ধান্ত হয়েছিল। ঐ সিদ্ধান্তের আলোকে সারাদেশে প্রতি জেলায় ১জন করে সমন্বয়ক সমন্বয়ক ও প্রতি উপজেলায় একজন করে গবেষক নিয়োগ দিয়ে দেশব্যাপী মুক্তিযুদ্ধ জ্ঞানকোষ রচনার কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। দিনাজপুর জেলায় মুক্তিযুদ্ধ জ্ঞানকোষের সমন্বয়ক নিয়োজিত হয়েছিলেন অধ্যাপক ছফর আলী। তিনি দিনাজপুরের ১৩ উপজেলায় ১৩ জন গবেষক নির্বাচিত করেন। তাঁর নেতৃত্বে দিনাজপুর সার্কিট হাউজে গবেষকদের সাথে মুক্তিযুদ্ধ জ্ঞানকোষের প্রধান সম্পাদক জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. হারুন-উর-রশিদ ও ব্যবস্থাপনা সম্পাদক ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান ড. সাজাহান মিয়ার  বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে উপজেলা ভিত্তিক গবেষকদের নিয়োগপত্র হস্তান্তর করা হয়। কিন্তু এর অল্পদিনের মধ্যে অধ্যাপক ছফর আলী মৃত্যুবরণ করেন। এরপর ড. মাসুদুল হক জেলা সমন্বয়কের দায়িত্ব লাভ করেন।

সাংবাদিক আজহারুল আজাদ জুয়েল মুক্তিযুদ্ধ জ্ঞ্যানকোষ প্রণয়নের লক্ষে পার্বতীপুর উপজেলার জন্য গবেষক হিসেবে নিয়েজিত হয়েছিলেন। চিরিরবন্দর উপজেলার জন্য নির্বাচিত গবেষক ড. মনিরুজ্জামান অসুস্থ্য হলে আজহারুল আজাদ জুয়েলকে পরে ঐ উপজেলার গবেষক মনোনীত করা হয়। এছাড়া জ্ঞানকোষের প্রধান সম্পাদকের আহ্বানে তিনি বীরগঞ্জ, বোচাগঞ্জ, কাহারোল, খানসামা, বিরল, হাকিমপুর, লালমনিরহাটের সদর, কালিগঞ্জ, আদিতমারী ও হাতীবান্ধা উপজেলার মুক্তিযুব্ধ বিষয়ে বেশ কিছু ভুক্তি রচনা করেন। সব মিলিয়ে ১০ খন্ডের মুক্তিযুদ্ধ জ্ঞানকোষে তার লেখা ছাপানো হয়েছে ৫৩টি। ১ম খন্ডে ৫টি (পৃষ্ঠা-৪৩, ৬১, ১১০, ২৭২, ৩১৫), দ্বিতীয় খন্ডে ৭টি (পৃষ্ঠা-৮৫, ১৫৫, ২১৮, ৩৭৬, ৩৯৫, ৪০১, ৪৪৬), ৩য় খন্ডে ৭টি (পৃষ্ঠা-০৫, ২১, ৩৭, ১৫৭, ১৫৮, ৩৬১, ৩৬৫), চতুর্থ খন্ডে ৩টি (পৃষ্ঠা-৭৪, ২৯১, ৩৫৬), পঞ্চম খন্ডে ৩টি (২৯২, ৪৫২, ৪৫৮), ষষ্ঠ খন্ডে ৭টি (পৃষ্ঠা-৩৫, ১২৫, ২২৩, ২২৬, ২২৭, ২৪৪, ৪২০), সপ্তম খন্ডে ৫টি (পৃষ্ঠা-৯৯, ২০১, ৪০৭, ৪২০, ৪৩০), অষ্টম খন্ডে ২টি (পৃষ্ঠা-২৮, ৩৮৬), ৯ম খন্ডে ৭টি (পৃষ্ঠা-৩৯, ১৭৭, ২৪৫, ২৪৬, ২৪৭, ৩৭৬, ৩৯৯) এবং দশম খন্ডে ৬টি (পৃষ্ঠা-৬০, ২৪৭, ৩০৯, ৩৫৮, ৩৯২, ২৪৭) লেখা বা ভুক্তি রয়েছে।

রংপুর বিভাগের গবেষকদের মধ্যে আজহারুল আজাদ জুয়েলের লেখা এসেছে সবচেয়ে বেশি। লেখাগুলির উল্লেখযোগ্য শিরোনাম হলো : পার্বতীপুর উপজেলা, চিরিরবন্দর উপজেলা, অমিয় কুমার গুহ, আইরখামার বধ্যভূমি ও গণকবর, আজিমাবাদ আনসার ক্লাব, আরাজী চৌপুকুরিয়া গণহত্যা, আলোকডিহি জেবি স্কুল গণহত্যা, করতোয়া নদীর উপর রেল ব্রিজ অপারেশন, কাঁকড়া রেল সেতু বধ্যভূমি, কামারপাড়া গণহত্যা, কুলাঘাট যুদ্ধ, কৃষ্ণনগর যুদ্ধ, কেটরাহাট যুদ্ধ, খড়িবাড়ি গণহত্যা, খিয়ারপাড়া গণহত্যা, খোলাহাুিট গণহত্যা, গোবিন্দপুর গণহত্যা, গোবিন্দপুর যুদ্ধ, চিরিরবন্দর থানা যুদ্ধ, জাহানাবাদ গণহত্যা, তুষভান্ডার যুদ্ধ, দামাইক্ষেত্র গণহত্যা, পঁচিশ মাইল যুদ্ধ, পালপাড়া গণহত্যা, পুরাতন বাজার গণহত্যা, ফুটকিবাড়ী গণহত্যা, বড়খাতা ব্রিজ অপারেশন, বড়বাড়ি যুদ্ধ, বড়বাড়ি শহীদ স্মৃতি সৌধ, বত্রিশ হাজারী বধ্যভূমি, বানীযুগী গণহত্যা, বুড়িদলা বিলপাড় গণহত্যা, ভরন্ডা গণহত্যা, মহুয়া গাঁ গণহত্যা, মাকনা বাঁশতলা গণকবর, মাঝাপাড়া গণকবর, মাহেরপুর যুদ্ধ, মোঘলহাট অপারেশন, রত্নাই ব্রিজ গণহত্যা, রায়পাড়া গণহত্যা, লালমনিরহাট ফায়ার সার্ভিস রোড বধ্যভূমি, লালমনিরহাট রেলওয়ে ওভার ব্রিজ সংলগ্ন ট্রলিল্যান্ড বধ্যভূমি, লালমনিরহাট রেলওয়ে গণকবর, শাহগ্রাম রেল ব্রিজ অপারেশন, শিঙ্গারী গাঁ স্মৃতিসৌধ, সম্মুখ সমর স্মৃতি সৌধ, সেনগ্রাম গণহত্যা (বীরগঞ্জ), স্বর্ণমতি ব্রিজ বধ্যভূমি, হলদীবাড়ী-দোলাপাড়া গণহত্যা, হাতীবান্ধা অপারেশন, সেনগ্রাম গণহত্যা (বিরল) ইত্যাদি।

এই জ্ঞানকোষের লেখক সংখ্যা পাঁচ শতাধিক। আজহারুল আজাদ জুয়েল ছাড়া দিনাজপুর জেলার আরো লিখেছেন এম এ কাফি সরকার, মোজাম্মেল হক, আবদুল জলিল আহমেদ, মাসুদুল হক, মারুফা বেগম, মো. রবিউল হক, মো. হাবিবুল ইসলাম, লাভলী আজাদ লিজা, সৈয়দ রেদওয়ানুর রহমান প্রমুখ। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, এনসাইক্লোপিডিয়ার ফরম্যাট অনুসরণে এন্ট্রিভিত্তিক বর্ণমালার ক্রমানুসারে মুক্তিযুদ্ধ জ্ঞানকোষের খন্ডগুলো সাজানো হয়েছে। প্রতি খন্ডে পৃষ্ঠা সংখ্যা ৪৬০ এর উপর। প্রাথমিকভাবে প্রতিটি খন্ড ৫ হাজার করে মুদ্রিত হয়েছে।  পুরো সেট (১০ খন্ড) এর মূল্য রাখা হয়েছে ১২ হাজার টাকা। তথ্য সংগ্রহ, গবেষণা, প্রকাশনা পর্যন্ত ব্যায় হয়েছে প্রায় পৌনে ৬ কোটি টাকা। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে এই জ্ঞানকোষ এর ইংরেজী ভার্সন এবং এর সিডি ও ডিভিডি একযোগে প্রকাশ করা হবে বলে এশিয়াটিক সূত্রে জানা গেছে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email