রবিবার ২২ মে ২০২২ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রংপুর সুগার মিলে আখ চাষিদের পাওনা ৯ কোটি টাকা সময় মত না পাওয়ায় দিশাহারা

জিল্লুর রহমান মন্ডল পলাশ, গাইবান্ধা

গাইবান্ধা জেলার একমাত্র ভারী শিল্প প্রতিষ্ঠান রংপুর সুগার মিলের বিভিন্ন জোন এলাকার আখ চাষিদের পাওনা রয়েছে ৯ কোটি টাকা। কষ্ট করে আখ চাষ করে সেই আখের মূল্য না পাওয়ায় চাষিরা মানবেতর জীবণ শুরু করেছে। ২৩ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত এ সুগার মিলে প্রায় ৫৭ দিনে প্রায় ৭০ হাজার ৬শ মেট্রিকটন আখ মাড়াই করে ৪ হাজার মেট্রিকটন চিনি উৎপাদন করা হয়েছে। সুগার মিলের বিভিন্ন জোন এলাকায় এখনও পর্যাপ্ত আখ থাকায় মার্চ মাসের ৩য় সপ্তাহ পর্যন্ত চলতি মাড়াই মৌসুম চালানো সম্ভব হবে বলে ধারনা করছেন সুগার মিল কর্তৃপক্ষ।

 

জানা গেছে, গত ২ ডিসেম্বর ৭০ হাজার মে.টন আখ মাড়াই করে ৪ হাজার ৫শ মে.টন চিনি উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে রংপুর সুগার মিলে ২০১৩-১৪ মাড়াই মৌসুমের আখ মাড়াই শুরু করা হয়েছে। সুগার মিলটিতে চলতি মৌসুমে আখ মাড়াই শুরু হওয়ার পর থেকে ২৩ ফেব্রুয়ারী দুপুর পর্যন্ত ৫৭ দিনে প্রায় ৭০ হাজার ৫শ মে.টন আখ মাড়াই করে ৪ হাজার ৫ দশমিক ৮১ মে.টন চিনি উৎপাদন হয়েছে। বর্তমানে এ সুগার মিলে প্রতিদিন গড়ে ১ হাজার ২শ  মে.টন আখ মাড়াই হয়ে ৭২ দশমিক মে.টন চিনি উৎপাদন হচ্ছে।

 

২৩ ফেব্রুয়ারী দুপুরে রংপুর সুগার মিলের মহা ব্যবস্থাপক (কৃষি) অলিক সোম এ প্রতিনিধিকে জানান, সুগার মিলের বিভিন্ন জোন এলাকায় এখনও প্রায় ২৩ থেকে ২৪ হাজার মে.টন আখ রয়েছে। এসব আখ দিয়ে সুগার মিলটি আরও প্রায় ২০ দিন চালানো সম্ভব হবে। ইতি মধ্যেই আমরা লক্ষ্য মাত্রার চাইতে অনেক বেশি আখ মাড়াই করতে পেরেছি এবং আগামী ২০ দিনে আরও বেশি আখ মাড়াই করে বেশি চিনি উৎপাদন করতে পারবো। বর্তমানে সুগার মিলে যেসব আখ মাড়াই করা হচ্ছে তাতে চিনি আহরণের হার শতকরা ৫ দশমিক ৯৫ ভাগ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। মিলটিতে আখ মাড়াই শুরু হওয়ার পর থেকে যান্ত্রিক ক্রটি, আখ সরবরাহ কম, বৃষ্টি সহ বিভিন্ন কারণে মাত্র ১শ ৫২ ঘন্টা বন্ধ ছিল বলে সুগার মিল সূত্রে জানা গেছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email