বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রহস্যের বেড়াজালে সৈয়দপুরে রেলওয়ের উচ্ছেদ অভিযান

মো. জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি

রহস্যের বেড়াজালে বন্দি হয়ে রইল সৈয়দপুর রেলওয়ের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের অভিযান। বিভিন্ন গণমাধ্যমে রেলওয়ের জমিতে বহুতল ভবনের খবর প্রকাশিত হলে রেল কর্তৃপক্ষ এসব উচ্ছেদের পরিকল্পনা করে। আর ভবনগুলো গুড়িয়ে দিতে সংশ্লিষ্টরা স্কেবেটরসহ প্রবেশ করে এ রেলশহরে। তবে কাজের কাজ কিছুই হয়নি। তারা উচ্ছেদ অভিযানের আগের রাতে শহরের ব্যবসায়ি নেতাদের সাথে বৈঠক করে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

 

সেই ধারাবাহিকতায় পরের দিন তারা শুধু উচ্ছেদের নামে ক্ষুদ্র-ক্ষুদ্র বৈধ দোকান-পাটগুলো গুড়িয়ে দেন। এতে সম্পূর্ণরুপে অবৈধ বহুতল ভবন নির্মাতারা একবারেই থাকেন ধরাছোঁয়ার বাইরে। ফলে স্বল্প পুঁজির ব্যবসায়িরা দোকান পাট হারিয়ে অনাহারে-অর্ধাহারে মানবেতর জীবন যাপন করছে। আর উচ্ছেদ অভিযানের পরেও আবারো মহোৎসব লেগেছে রেলওয়ের জমিতে অবৈধ বহুতল ভবন নির্মাণের।

জানা যায়, ১৮৭০ সালে আসাম-বেঙ্গল রেলওয়ের বিশাল এ কারখানা স্থাপনের পর থেকেই একে একে ৭৯৯.৯৮ একর সম্পত্তির মধ্যে ধীরে-ধীরে সাড়ে ৬শ একর ভূ-সম্পত্তি বেদখল হয়ে যায়। বেদখলকারীরা রেলওয়ের ভূমি অফিস পাকশী থেকে বরাদ্দ নিয়ে দোকান পাট নির্মাণ করে শুরু করেন ব্যবসা। অনেকে রেল বিভাগের কাছে কোন অনুমতি না নিয়েই রেল সম্পত্তিতে নির্মাণ করেন দোকান পাট, বহুতল ভবন ও ঘরবাড়ি। ১৯৮৫ সালে সৈয়দপুর পৌরসভার কাছে এ সম্পত্তির মধ্যে বাণিজ্যিক এলাকা ২৫.৫০ একর সম্পত্তি জেলা প্রশাসক হস্তান্তর করেন। শর্তসাপেক্ষে এ এলাকার আয় হতে পৌর কর্তৃপক্ষ রেলওয়েকে ৪০ ভাগ প্রদান করবে। এতে রেলওয়ের এ জমিতে দিন-দিন বাড়তে থাকে বহুতল ভবন। এ নিয়ে দেশের বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক, আঞ্চলিক ও স্থানিয় পত্র-পত্রিকায় ‘‘রেলের জমিতে অবৈধভাবে বহুতল ভবন নির্মাণের হিড়িক’’ জাতীয় খবর প্রকাশ হয়। এতে রেল কর্তৃপক্ষ গত ১৮ ও ১৯ মার্চ উচ্ছেদ অভিযান চালানোর পরিকল্পনা করেন। সে মতে পূর্বের রাতে রেল সংশ্লিষ্টরা এসে স্থানিয় ব্যবসায়িসহ রাজনৈতিক নেতাদের নিয়ে বৈঠক করেন। আর বৈঠকের পরেই উচ্ছেদের দিনে দৃশ্যপট পাল্টে যায়। প্রথম দিনে রেলওয়ে কারখানা সংলগ্ন, ষ্টেশন ও রেললাইনের দুই ধারে উচ্ছেদ করেন। এছাড়া যারা রেল বিভাগের কাছে অনুমতি না নিয়েই অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করেছেন শুধু তাদের বিরুদ্ধেই উচ্ছেদ অভিযান চালানোর কথা সাংবাদিকদের বলেন রেলওয়ের উচ্ছেদকারিরা। কিন্তু রেল কর্তৃপক্ষ করেছে সম্পূর্ণ উল্টো কাজ। বৈধ দোকান পাট ভেঙ্গে তারা অবৈধদের বহুতল ভবন নির্মাণের উৎসাহ যুগিয়েছেন। এতে সাধারন থেকে ক্ষুদ্র ব্যাবসায়িরা বুঝতে পারেন উচ্ছেদের নামে সৈয়দপুরে কোটি টাকার বাণিজ্য হয়েছে। আর এ নিয়ে কয়েকজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী অভিযোগ করেন, অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ না করে লোক দেখানো লিজ নেয়া ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদ করেছেন তারা। এছাড়া উচ্ছেদের তালিকা নিয়ে তারা কাদের দোকান ভাঙ্গছেন। নানা প্রশ্নের কৌতুহলি তারা। এসব কি হচ্ছে? রেল কর্তৃপক্ষের অবৈধ ভাবে দোকান ভাঙ্গার কারণে অনেকে আজ পথে বসেছে। আর দুঃচিন্তায় সিরাজ হোটেলের মালিক সিরাজুল ইসলাম এ ঘটনার সপ্তাহ না পেরুতেই মারা যান। বেচুয়া নামের এক পান দোকানি অভিযোগ করেন, দোকানপাট উচ্ছেদে ১/১১ এর সময়কে হার মানিয়েছে। বর্তমানে নিমণ শ্রেণীর ব্যবসায়ীরা খোলা আকাশের নিচে পড়ে আছেন। এখন তারা ভাবছে খাবে কি? অনেকের পরিবারে নেমে এসেছে ভয়াবহ অবস্থা। কারণ অভিযানের আগে তাদেরকে কোন নোটিশ প্রদান করা হয়নি। আর অভিযানের সময় তাদের দোকানের মালামাল বের করতে কোন রকম সময় দেয়নি। এসব ব্যবসায়ী অভিযানের সময় তাদের ব্যবসার পুঁজি হারিয়ে ফেলেছে। এজন্য তারা দায়ী করেছে রেলওয়ের বিভাগীয় স্টেট অফিসার মোস্তাক আহমেদকে। তার নেতৃত্বে ওই দিন অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অপরদিকে বাংলাদেশ কেমিস্ট এন্ড ড্রাগিস্টস সমিতির সৈয়দপুর শাখার উদ্যোগে শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও পাঁচমাথা মোড়ে প্রতিবাদ সভা করেছে ওইদিন রাতে। এছাড়া সৈয়দপুর পৌরসভা ভেঙ্গে দেয়া স্থাপনাগুলো তাদের দাবী করে রেলওয়ের বিরুদ্ধে মামলা করবে বলে ঘোষণা দিয়েছে।

Spread the love