রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজনৈতিক অস্থিরতার কবলে ঠাকুরগাঁওয়ের পোল্ট্রি শিল্প

রবিউল এহসান রিপন, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় ডাকা টানা অবরোধের কবলে পড়ে ঠাকুরগাঁওয়ে পোল্ট্রি শিল্প ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে এসে ঠেকেছে। ক্রমাগত আর্থিক লোকসানের কারণে খামার মালিকদের এক ভয়াবহ দুঃসময় অতিবাহিত করতে হচ্ছে। একদিকে মুরগীর খাদ্যের দাম বৃদ্ধি, অন্যদিকে খামারে উৎপাদিত ডিম ও মুরগীর দাম কমে যাওয়ায় উভয়মুখী সংকটে পোল্ট্রি শিল্পের এই দুর্দশা।

 

যানবাহনের কারণে ঠাকুরগাঁওয়ে খাদ্য আনতে পারছেন না পোল্ট্রি ব্যবসায়ীরা। একই সঙ্গে ঠাকুরগাঁওয়ের বাইরেও পাঠানো যাচ্ছে না উৎপাদিত ডিম। ফলে একদিকে খাদ্য সঙ্কট, অন্যদিকে অবিক্রিত ডিম নিয়ে লোকসানের মুখে পড়েছেন প্রায় দুই হাজার খামারি। লোকসান টানতে গিয়ে ডিম উৎপাদনকারী (লেয়ার) খামারিদের অনেকেই এরই মধ্যে পথে বসেছেন।

 

এ খাতের ব্যবসায়ীরা বলেন, শিগগিরই এ অচলাবস্থা কাটিয়ে উঠতে না পারলে অচিরেই সম্ভাবনাময় শিল্পটি ধ্বংস হয়ে যাবে। এতে এর সঙ্গে জড়িত ঠাকুরগাঁওয়ের প্রায় ২ হাজার মানুষ বেকার হয়ে পড়বে।

 

ঠাকুরগাঁওয়ে পোল্ট্রি শিল্প অ্যাসোসিয়েশনের দেওয়া তথ্যানুযায়ী, দুই বছর আগেও ঠাকুরগাঁওয়ে তিন হাজারের মতো ছোট-বড় ব্রয়লার মুরগির খামার ছিল। নানা কারণে বর্তমানে তা কমে প্রায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। দফায় দফায় লোকসানের বোঝা মাথায় নিয়ে এসব খামারি ঘুরে দাঁড়ানোর আশায় নিজেদের ব্যবসা নিয়ে টিকে ছিলেন। কিন্তু চলমান অবরোধ-হরতালে আবারো লোকসানের মুখে পড়েছেন খামারিরা।

 

সদর উপজেলা রায়পুর এলাকার খামারি খালেকুজ্জামান সুমন বলেন, ঠাকুরগাঁওয়ে পোল্ট্রি শিল্প ধ্বংসের সূত্রপাত অবরোধের আগ থেকেই। বেশ কিছুদিন থেকেই ব্রয়লার মুরগির কাঙ্খিত দাম পাওয়া যাচ্ছিলো না। মুরগি ও ডিমের বাজারমূল্য কম থাকায় খামারিদের যখন লোকসান গুণতে হচ্ছে, তখন গোদের উপরে বিষফোঁড়া হয়ে দাঁড়িয়েছে রাজনৈতিক অস্থিরতা ও চলমান অবরোধ-হরতাল কর্মসূচি।

 

তিনি জানান, মাসজুড়ে টানা অবরোধের মধ্যে হরতাল লেগেই আছে। কখনও কেন্দ্রীয়ভাবে আবার কখনও আঞ্চলিক হরতালের কবলে পড়ছে ঠাকুরগাঁও। এসব কর্মসূচিতে তারা মূলত দুইটি সমস্যায় পড়েছেন। এক হচ্ছে খামারিরা তাদের উৎপাদিত ডিম বাজারে বিক্রি করতে পারছেন না। অপরদিকে খাওয়ার ও ওষুধ জেলার বাইরে থেকে খামারে আনতে পারছেন না।

 

মিজানুর রহমান বলেন, ঠাকুরগাঁওয়ের বাইরে ডিম পাঠানোর পাশাপাশি খামারগুলো এখন খাদ্য সঙ্কটে পড়েছে।

 

তিনি জানান, ঢাকা, সিরাজগঞ্জ ও বগুড়া থেকে মুরগির খাবার আনতে হয় তাদের। কিন্তু টানা অবরোধের কারণে তারা মুরগির খাবার আনতে পারছেন না।

 

বাজারে এখন লেয়ার মুরগির জন্য ৫০ কেজির প্রতি বস্তা খাদ্যের দাম এক হাজার ৮০০ টাকা এবং মাংস উৎপাদনকারী মুরগির খাদ্যের দাম বস্তা প্রতি দুই হাজার ৩০০ টাকা। পোল্ট্রি ফিডের দামের সমস্যা না হলেও খাবার না পাওয়াটাই সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এতে ঠাকুরগাঁওয়ে বিভিন্ন মুরগির খামারে বর্তমানে দেখা দিয়েছে চরম খাদ্য সঙ্কট।

 

এদিকে, ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার পোল্ট্রি ফিড ব্যবসায়ী হাসেম জানান, ২ হাজার লেয়ার মুরগি নিয়ে একটি খামার আছে তার। প্রতিদিন ওই খামার থেকে গড়ে দুই হাজার ডিম উৎপাদন হয়। পরিবহন সঙ্কটের কারণে গত এক সপ্তাহ ধরে খামারের উৎপাদিত ডিম বাজারে নিয়ে বিক্রি করতে পারেননি তিনি। এতে খামারে অবিক্রিত প্রায় ১৫ হাজার ডিম জমেছে। ১২ থেকে ১৫ দিন পর্যন্ত খামারে ডিম সংরক্ষণ করা যায়। তাই অবরোধ প্রত্যাহার না হলে তার অনেক বড় লোকসান গুণতে হবে।

 

পোল্ট্রি ব্যবসায়ি আব্দুল হান্নান বলেন, অবরোধের কারণে ঠাকুরগাঁওয়ে পোল্ট্রি শিল্প এখন ধ্বংসের মুখে। এমনিতেই ব্যবসা খারাপ যাচ্ছিলো। এর মধ্যে অবরোধ-হরতালে ব্যবসা লাটে উঠেছে। চলমান কর্মসূচি প্রত্যাহারে আশু পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে জেলায় পোল্ট্রি শিল্পের সঙ্গে জড়িত প্রায় দুই হাজার খামারির জীবন-জীবিকায় অনামিশার অন্ধকার নেমে আসবে। এজন্য দ্রুত সমস্যা সমাধানের দাবি জানান পোল্ট্রি খামারিদের এই নেতা।

Spread the love