বৃহস্পতিবার ১১ অগাস্ট ২০২২ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রাজিব গান্ধীর খুনিদের মুক্তি ন্যায়বিচারের পরিপন্থী: মনমোহন

manmohanভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী রাজিব গান্ধী হত্যা মামলার আসামিদের মুক্তি দেয়ার বিরোধিতা করেছেন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং। তিনি বলেছেন, রাজিবের খুনিদের মুক্তি দেয়া হবে ন্যায়বিচারের সব মানদন্ডের পরিপন্থী’।

ভারতের সুপ্রিম কোর্টের এক রায়ের সূত্র ধরে দক্ষিণাঞ্চলীয় তামিলনাড়ু রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতা রাজিব হত্যা মামলার আসামিদের মুক্তি দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ার একদিন পর মনমোহন এ কথা বললেন।  নয়াদিলি­ তামিলনাড়ু সরকারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আইনি লড়াই চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং আজ (বৃহস্পতিবার) নয়াদিলি­তে এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘‘রাজিব গান্ধী হত্যাকান্ড ছিল ভারতের প্রাণের ওপর আঘাত। ভারতের একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও আমাদের মহান নেতার পাশাপাশি আরো কিছু নিরপরাধ ভারতীয় নাগরিকের হত্যাকারীদের মুক্তি দেয়া হবে ন্যায়বিচারের সব মানদন্ডের পরিপন্থী। আমরা সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে যে যুদ্ধ করছি তাকে হালকাভাবে নেয়া কোনো দল বা রাজ্য সরকারের উচিত হবে না।’’ ১৯৯১ সালের মে মাসে তামিলনাড়ু রাজ্যে নির্বাচনি জনসভায় ভাষণ দিতে গিয়ে আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত হন সাবেক প্রধানমন্ত্রী রাজিব গান্ধী। ওই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতা বুধবার ঘোষণা করেছিলেন, তিনি কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে পরামর্শ করে চলতি সপ্তাহান্তের ওই হত্যাকান্ডের সাত আসামির সবাইকে ছেড়ে দেবেন।  ১৯৮৪ সালের অক্টোবরে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী তার শিখ দেহরক্ষীদের গুলিতে নিহত হওয়ার পর ভারতের ইতিহাসের সবচেয়ে কমবয়সী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন ইন্দিরাপুত্র রাজিব। পাঁচ বছর পর লোকসভা নির্বাচনে ক্ষমতা হারান তিনি। শ্রীলঙ্কার তামিল বিদ্রোহীদের নিরস্ত্র করার লক্ষ্যে ১৯৮৭ সালে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী রাজিব গান্ধী কলম্বোর সঙ্গে যে চুক্তি করেছিলেন তার প্রতিশোধ নিতে এক এলটিটিই আত্মঘাতী নারীর হামলায় তিনি নিহত হন বলে ব্যাপকভাবে ধারণা করা হয়।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email