মঙ্গলবার ১৬ অগাস্ট ২০২২ ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রাণীরবন্দর নজরুল পাঠাগার ও ক্লাব যেন আলোকবর্তিকা

মানিক চিরিরবন্দর রানীরবন্দর প্রতিনিধি দিনাজপুর: : চিরিরবন্দর উপজেলার পুরাতন, ঐতিহ্যবাহি ও সুনামধন্য প্রতিষ্ঠান হচ্ছে রাণীরবন্দর নজরুল পাঠাগার ও ক্লাব৷ এটি প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই অত্রাঞ্চলের মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে৷ এটি বৃহত্তর রাণীরবন্দর অঞ্চলের মানুষের মধ্যে যেন আলোকবর্তিকা৷ নজরুল পাঠাগার ও ক্লাবটি উপজেলার নশরতপুর ইউনিয়নে এক মনোরম-স্বাচ্ছন্দ্য, নিরিবিলি এবং কোলাহল মুক্ত পরিবেশে অবস্থিত৷ এ প্রতিষ্ঠানের সুনাম নিজ দেশসহ প্রতিবেশি দেশ ভারতেও রয়েছে৷ নজরুল পাঠাগার ও ক্লাবটি ১৯৫৪ খ্রিস্টাব্দে প্রতিষ্ঠা লাভ করে৷ শহীদ এসএম মাহাতাব বেগ, মরহুম শাহ্‌ আফতাবউদ্দিন আহম্মেদ, মরহুম শাহ্‌ আমিনুল হক নজরুল পাঠাগার ও ক্লাবটি প্রতিষ্ঠা করেন৷ এ পাঠাগার ও ক্লাবটি প্রতিষ্ঠাকালে মরহুম হাজী আব্দুল গফুর শাহ্‌র বাড়িতে কার্যক্রম শুরু করে৷ বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির ১ একর ২ শতক নিজস্ব জমি রয়েছে৷ নজরুল পাঠাগার ও ক্লাবটি ১৫ শতক জমির উপরে উন্নতশীরে দন্ডায়মান অবস্থায় দৃঢ়তার সাথে তার অস্তিত্ব জানান দিচ্ছে৷নজরুল পাঠাগার ও ক্লাবে অনেক সুনামধন্য-দেশবরেণ্য ব্যক্তিবর্গের পদচারণা ঘটেছে৷

পাশাপাশি নজরুল পাঠাগার ও ক্লাবের সাংস্কৃতিক অঙ্গণেও বেশ সুনাম ছিল৷ ওই পাঠাগার ও ক্লাব সমাজসেবায়ও যথেষ্ট অবদান রেখে চলেছে৷ সমাজ থেকে মাদকদ্রব্য প্রতিরোধ, স্বেচ্ছায় রক্তদান, বৃক্ষরোপন এবং নানা ধরনের আপদকালিন ত্রাণ বিতরণ করে থাকে৷ তিনি আরো জানান, বিভিন্ন সময় ভারত ও বাংলাদেশের কবি-সাহিত্যিকদের সমন্বয়ে যৌথভাবে প্রজন্মের ধূমকেতু ও সাঁকো নামে দু’টি গ্রন্থ প্রকাশিত হছে৷ শুধু তাই নয়- নজরুল পাঠাগার ও ক্লাব এককভাবে প্রগতি, আমাদের সকাল, বাংলার বুলবুল, ঢেউ এবং পারাবার নামে স্মরণিকা প্রকাশ করে৷ এছাড়াও নজরুল পাঠাগার ও ক্লাব প্রতি বছর বিভিন্ন খেলাধূলা ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করে৷ এসব প্রতিযোগিতার পাশাপাশি শিক্ষা, সমাজসেবা, ক্রীড়ানুষ্ঠান এবং গুণীজনদের সম্মাননা প্রদান করে থাকে৷

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email