শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রাণীরবন্দর মহিলা কলেজ’র প্রভাষককে বিধিবহির্ভূত ভাবে সাময়িক বরখাস্তের অভিযোগ

মো: আব্দুর রাজ্জাক দিনাজপুর  থেকে:

দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার রাণীরবন্দর মহিলা কলেজ’র প্রভাষক নজরুল ইসলাম কে বিধির্ভূতভাবে সাময়িক বরখাস্তের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, রাণীরবন্দর মহিলা কলেজ’র ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. আমিনুল হক স্বাক্ষরিত স্বারক নং-রামক/চিরি/দিন/০৭/২০১৪, ৩১/০৩/১৪ইং তারিখে একটি চিঠিতে উক্ত কলেজের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক প্রভাষক মো. নজরুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। চিঠিতে উক্ত কলেজ’র সভাপতি ও চিরিরবন্দর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মিজানুর রহমানের নির্দেশ মোতাবেক উক্ত সাময়িক বরখাস্ত করা হয় বলে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ উল্লেখ করেছেন। সাময়িক বরখাস্তের কারণ হিসেবে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে যে, প্রভাষক নজরুল ইসলাম গত ১৫/০৩/১৪ইং তারিখ হতে ৩১/০৩/১৪ইং পর্যমত্ম কলেজে উপস্থিত হয়ে স্বাভাবিকভাবে ক্লাসে পাঠদান হতে বিরত ছিলেন। এমনকি প্রভাষক ক্লাসে পাঠদানে অপারগসহ ক্লাস নেবেন না মর্মে উপস্থিত ছাত্রীদের জানিয়ে অনুপস্থিত হতে অনুপ্রাণিত করেছেন। এছাড়াও প্রভাষক বিভিন্ন সময় শিক্ষকদের মধ্যে মতবিরোধ ও দ্বন্ধ সৃষ্টিসহ ভারপ্রা্প্ত অধ্যক্ষকে হুমকি প্রদর্শন করেছেন বলে চিঠিতে উলেস্নখ করা হয়েছে। চিঠিতে আরও উলেস্নখ করা হয়েছে যে, একজন শিক্ষকের দৈনন্দিন ও দীর্ঘদিন ধরে পাঠদান কার্যক্রম হতে বিরত থাকা কাম্য নয় এবং তা চাকুরীর শর্তাবলী পরিপন্থী কাজ করেছেন। এই মর্মে প্রভাষক নজরম্নল ইসলাম কে পরিচালনা কমিটির সভাপতির নির্দেশক্রমে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ সাময়িক বরখাসত্ম করেছেন।এহেন অবস্থায় উক্ত সাময়িক বরখাসত্ম বিধিমালা মোতাবেক সম্পূর্ণ হয়নি মর্মে বিভিন্ন পর্যায় থেকে অভিযোগ উঠেছে।

এ ব্যাপারে উক্ত কলেজ’র ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. আমিনুল হক মোবাইল ফোনে প্রতিবেদককে জানান, সাময়িক বরখাসেত্মর ব্যাপারে যে কোন ধরনের তথ্য সভাপতি দিবেন। আমি কোন রকম তথ্য দিতে পারবো না। সভাপতি সাহেব বলেছেন, এ ব্যাপারে যে কেউ কথা বলতে চাইলে আমার সাথে কথা বলতে বলবেন বলে জানিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ।

উক্ত কলেজ’র পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও চিরিরবন্দর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান মোবাইল ফোনে প্রতিবেদককে জানান, প্রভাষককে তো সরাসরি বরখাসত্ম করা হয়নি, তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। বিধিমালা মোতাবেক কারণ দর্শানো নোটিশ ছাড়াই কিভাবে সরাসরি সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে প্রশ্ন রাখলে তিনি জানান, এটাই ১০০ ভাগ নিয়ম, সাময়িক বরখাস্তের পর তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হবে। তারপর সরাসরি বরখাস্তের বিধান রয়েছে। তিনি আরও জানান, সকলেই বলছে আমি অবৈধভাবে সাময়িক বরখাস্ত করেছি কিন্তু প্রভাষক যে ক্লাস নিচ্ছেন না, তা কি বৈধ?

এ ব্যাপারে উক্ত কলেজ’র পরিচালনা কমিটির সদস্য ও দাতা সদস্য মো. হাবিবুর রহমান মোবাইল ফোনে প্রতিবেদককে জানান, প্রভাষক নজরুল ইসলামকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ও সভাপতি যে সাময়িক বরখাস্ত করেছেন, তা সম্পূর্ণ অবৈধভাবে করেছেন তারা। আমাদের পরিচালনা কমিটির কোন সদস্যের মতামত ছাড়াই তারা এই নির্দেশ দিয়েছেন। কোন রকম বৈঠকই করেননি সভাপতি সাহেব আমাদের সাথে। তিনি এককভাবে কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না। তাছাড়া সাময়িক বরখাসেত্মর পূর্বে উক্ত প্রভাষককে কোন কারণ দর্শানোর নোটিশও প্রেরণ করেন নি বলে তিনি জানান। তিনি আরও জানান, ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আমিনুল হক নিজেই তো অবৈধ। তিনি যে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হয়েছেন, কমিটিতে তার কোন রেজুলেশন নেই, বৈধতা নেই। প্রভাষক নজরুল ইসলাম উক্ত কলেজে অবস্থিত উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের কো-অর্ডিনেটর। সেই পদ থেকে অপসারনের জন্যই এত কিছু করছেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বলে তিনি জানান।

সর্বশেষ দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ড’র কলেজ পরিদর্শক মো. ফারাজ উদ্দিন তালুকদারের সাথে গতকাল সরাসরি যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, কোন প্রতিষ্ঠান সরাসরি এভাবে সাময়িক বরখাস্ত করতে পারেন না। বিধিমালা মোতাবেক কারন দর্শানোর নোটিশ দিয়ে জবাব পেয়ে সাময়িক বরখাস্ত করতে পারেন বলে তিনি জানিয়েছেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email