বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাতেই কামারুজ্জামানের ফাঁসি কার্যকর

নানা নাটকীয়তার পরও রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাননি মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াতে ইসলামীর সিনিয়র সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মদ কামারুজ্জামান। সে কারণে তার ফাঁসি কার্যকরে আর কোনো বাধা নেই।

আজ শনিবার দুপুর সোয়া ১টার দিকে দুইজন ডেপুটি জেলার নির্বাহী আদেশটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে কারাগারে নিয়ে গেছেন। নির্বাহী আদেশে আজ রাতেই কামরুজ্জামানে ফাঁসি কার্যকর করার কথা রয়েছে।

গত বুধবার সন্ধ্যায় কামারুজ্জামানের রিভিউ আবেদন খারিজ আদেশের কপি কারাগারে পৌঁছায়। কারা কর্তৃপক্ষ রায় পড়ে তাকে শোনায়। এরপর তার কাছে জানতে চায় তিনি প্রাণভিক্ষার আবেদন করবেন কি না। কামারুজ্জামান এ ব্যাপারে আইনজীবীর সঙ্গে পরামর্শ করে সিদ্ধান্ত জানানোর কথা বলেন। সে অনুযায়ী গত বৃহস্পতিবার সকালে তার আইনজীবীরা কারাগারে দেখা করেন।

গতকাল শুক্রবার প্রাণভিক্ষার আবেদনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানতে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে গিয়ে কামারুজ্জামানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মাহবুব জামিল ও তানভীর মোহাম্মদ আজিম।

কামারুজ্জামান প্রাণ ভিক্ষার আবেদন করবেন না বলে জানিয়ে দেওয়ার পর গতকাল শুক্রবার ফাঁসির সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করে কারা কর্তৃপক্ষ। পরে অজ্ঞাত কারণে ফাঁসির কার্যক্রম স্থগিত হয়ে যায়।

একাত্তরে হত্যা, গণহত্যা ও নির্যাতনের দায়ে ২০১৩ সালের ৯ মে ময়মনসিংহের আলবদর কমান্ডার কামারুজ্জামানকে মৃত্যুদণ্ড দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করলে সেখানেও তার সর্বোচ্চ শাস্তি বহাল থাকে।

 

 

Spread the love