সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রানীশংকৈলে ইউপি চেয়ারম্যানের সাফল্য

ঠাকুরগাওয়ের রানীশংকৈল উপজেলায় ৩০ একর জমিতে বিভিন্ন প্রজাতের গাছের বাগান তৈরি করে সাফল্য অর্জন করেছে নন্দুয়ার ইউপি চেয়ারম্যান। আজ বৃহস্পতিবার সরেজমিনে উপজেলার গাজীর হাট, কালুগাঁও, ভন্ডগ্রাম ও সন্ধারই গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, ইউপি চেয়ারম্যান আবু সুলতান নিজ উদ্যেগে সরকারী খাস জমি কবর স্থান, শশ্বান ঘাটে আম, লেবু,লিচু ও ইউক্যালেকটারসহ বিভিন্ন প্রজাতির কয়েক হাজার গাছ রোপন করে সাফল্য অর্জন করেছেন।
গাছগুলি যেমন প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষায় অবদান রাখবে তেমনি রাজস্ব আয় বাড়াবে সরকারের। এ প্রসঙ্গে প্রধান শিক্ষক রমজান আলী বলেন,গাজীর হাট কবর স্থানে ১৩ শত ইউক্যালেকটর ও ৫শত আম ২০টি লেবু গাছ রোপন করে চেয়ারম্যান যে ভুমিকা রেখেছে তা এলাকার মানুষের উপকার করেছে। এদিকে বিবি শকিনা পুকুর পাড় কবর স্থান, ভন্ডগ্রাম (গচিয়) ও কালুগাঁও শশ্বান ঘাটে গাছ গুলিতে প্রথম মুকুল আসায় বেশ ভালই লাগছে। বাগানগুলি পরিচর্যা ও পাহারার জন্য ইউনিয়ন পরিষদ হতে ১ ব্যাক্তিকে নিয়োগ করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আবু সুলতান বলেন, কিছু ব্যাক্তিগত অর্থও সরকারী এলজি এসপির অর্থায়নে ৩০ একর জমিতে বাগান করা হয়েছে। এক সময় আমার ইউনিয়নের সকল উন্নয়ন মূলক রাস্তা ঘাট ব্রিজ কালভাটের কাজ সরকারী অর্থ বরাদ্দ না নিলেও এ বাগানের ফল ও কাঠের গাছ গুলি বিক্রি করে উন্নয়ন  করা সম্ভব হবে। তিনি বলেন, আমি প্রতিদিন  একবার হলেও বাগান গুলির খোজ খবর নিয়ে থাকি। সরকারী জমিতে গাছের বাগান করা বিষয়ে উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা আশরাফুল ইসলাম মোবাইলে বলেন এমনি ভাবে সকল কবর স্থান ও শশ্বান ঘাটে বাগান লাগালে গাছের ফল বিক্রি করে রাজস্ব আয় বাড়বে। দেশে অধিকাংশ সরকারী খাস জমিতে সরকারী উদ্যেগে গাছ লাগানো উচিত।