বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রানীশংকৈলে হয়রানীর স্বীকার যুদ্ধাহত আবু সুফিয়ান

মোঃ জিয়াউর রহমান, জিয়া, রাণীশংকৈল, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: রানীশংকৈল পৌর শহরের পাশেই লোকটির বাড়ী। নাম বীর মুক্তি যোদ্ধা আবু সুফিয়ান । মুক্তি যোদ্ধার রেশন র্কাড ও সামান্য কিছু রাষ্ঠীয় সন্মানী ভাতা দিয়ে চলছে তার পরিবার বসত ভিটার ৩/৪ শতক জমি নিয়ে কোন রকম সংসার যাপন করে আসছে যুদ্ধাহত আবু সুফিয়ান। কিন্তু সিরাজুল ইসলাম, পিতা মৃত বাদশা মিয়া, যিনি নিজেকে যুদ্ধ কালীন কন্ডার হিসেবে দাবি করেন। বসত বাড়ীর এক খন্ড জমি নিয়ে তার সাথে মন মালিণ্য হয়। কমান্ডার সিরাজুল ইসলামের সকল দূর্নীতির কথা বিভিন্ন পত্র- পত্রিকায় প্রকাশ হলে – সে আবু সুফিয়ান কে দায়ি করে এবং তার ব্যক্তিগত এবং পারিবারিক ক্ষতি সাধনে বিভিন্ন চক্রান্তে লিপ্ত এমন কি তাকে রাজাকার বলতে পিছপা হননি। অথচ তার নাম ব্যবহার করে দীর্ঘ দিন যাবত মুক্তি যোদ্ধা কল্যায়ন ট্রাস্টের ভাতা উত্তোলন করে আসছেন সিরাজুল। যা তার ভাতার ফাইলে সংরক্ষিত আছে। আবু সুফিয়ান বলেন-২৭/০৩/১৯৭১ইং সালে জাতির জনক বঙ্গ বন্ধু শেখ মজিবর রহমানের ডাকে মুক্তি যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেন। তিনি রাণীশংকৈল সংগ্রাম পরিষদের র্নিদেশে অত্র এলাকার যুবকদের ঐক্য বদ্ধ করে ডাক বাংলোয় অস্ত্র প্রশিক্ষণ ক্যাম্প খোলেন। তাহার এম এফ নং ১৩২৭৬৬৭, মুক্তি বার্তা লাল বহি নং-০৩১০০৪০১৬৪,যুদ্ধাহত গেজেট নং-১১০৪। তিনি স্বার্থান্বেসী মহলের চক্রান্ত হতে বাঁচবার জন্য যথাযথ র্কতৃপক্ষের নিকট আকুতি জনান।

 

Spread the love