মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রেশম কারখানা ১০ বছর ধরে বন্ধ, নষ্ট হচ্ছে ন্ত্রপাতি

ঠাকুরগাঁওয়ের বৃহত্তর ভারী শিল্প রেশম কারখানাটি দীর্ঘ ১০ বছর ধরে বন্ধ রয়েছে। ক্রমাগত লোকসানের অজুহাতে এটি ২০০২ সালে বন্ধ ঘোষনা করা হয়। এতে ১৩৪ জন শ্রমিক ও ৫ হাজার রেশম চাষি বেকার হয়ে পড়েছে। কারখানাটি দীর্ঘ দিন বন্ধ থাকায় কোটি কোটি টাকার মূল্যবান যন্ত্রপাতি নষ্ট হচ্ছে।
রেশম চাষ অতি লাভজনক একটি পন্য। বছরে কমপক্ষে পাঁচ বার রেশম চাষ করা যায়। দরিদ্র ও প্রান্তিক চাষীরা স্বল্প পূঁজিতে রেশম চাষ ও বিপনন করে তাদের জীবিকা নির্বাহ করতে পারেন। এ অবস্থায়  ১৯৭৭-৭৮ সালে আরডিআরএস বাংলাদেশ ঠাকুরগাঁওয়ে ৬টি রেশম তুত বাগান সহ এই রেশম কারখানাটি স্থাপন করে। তখন থেকেই ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড় ও দিনাজপুর জেলার চাষীরা রেশম চাষ শুরু করে। ১৯৮১ সালে  এই কারখানাটি রেশম বোর্ডের কাছে হস্তান্তর করা হয়। ধীরে ধীরে ১০ হাজার চাষী রেশম গুটি উৎপাদনের সাথে সম্পৃক্ত হয়। ১৯৯৫ সালে রেশম কারখানাটি আধুনিকায়ণের কাজ শুরু করা হয়। নতুন ভবন নির্মাণ, নতুন যন্ত্রপাতি ক্রয়, পুরাতন যন্ত্রপাতি মেরামত, সংস্থাপন ও যানবাহন ক্রয় করে আধুনিক করনে ১ কোটি ৭৯ লক্ষ টাকা ব্যয় করা হয়। কাজ শেষ হয় ১৯৯৮ সালে। কিন্তু এই কারখানাটি একদিনের জন্যও উৎপাদনের মুখ দেখেনি।
টানা ২৬ বছরে এ কারখানাটি ৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা লোকসান দেয়। এ অবস্থায় লোকসানের অজুহাতে ২০০২ সালের ৩০ নভেম্বর মিলটি বন্ধ ঘোষনা করা হয়। ফলে কারখানায় কর্মরত ১৩৪ জন শ্রমিক ও ৫ হাজার রেশম চাষী পরিবার বেকার হয়ে পড়ে। রেশম কারখানাটি বন্ধ হয়ে পড়ায় লাখ লাখ তুঁত গাছ কেটে ফেলা হয়। ফলে কোটি টাকা ব্যয়ে স্থাপিত রেশম কারখানাটি অর্থহীন হয়ে পরে। কারখানাটি বন্ধ থাকায় দামী দামী যন্ত্রপাতিগুলো নষ্ট হতে বসেছে। কারখানার ভেতরে মাকড়সার জাল ও ধুলো বালুতে ভরে গেছে ।
এদিকে কিছু রেশম চাষি তাদের পৈত্রিক পেশা কোন মতে আকড়ে আছে। কিন্তু তাদের সমস্যার শেষ নেই। তুত গাছ না থাকায় ও ঘরের অভাবে চাষিরা গুটি উৎপাদন করতে পারছে না । সেই সাথে উৎপাদিত গুটি নাম মাত্র দামে বিক্রি করতে হচ্ছে তাদের।
এ ব্যপারে বিলুপ্ত ঠাকুরগাঁও সিল্ক ফ্যাক্টরী শ্রমজীবি সংস্থার  সভাপতি নুরুল ইসলাম জানান,শ্রমিক ও চাষিদের কথা ভেবে অবিলম্বে ঠাকুরগাঁও কারখানাটি পুনরায় চালু করা হোক।  কারখানাটি চালু হলে রেশম চাষের সাথে যুক্ত ৫ হাজার রেশম চাষী পুনরায় কর্মসংস্থানের সুযোগ পাবে।
অপরদিকে ঠাকুরগাঁও বোর্ডের উপ-পরিচালক সুলতান আলী জানান, এখানকার রেশম কারখানটি বন্ধ হওয়ার পরেওঅনেক চাষি গুটি উৎপাদন করছেন। কাজেই কারখানাটি পুনরায় চালু করা উচিৎ ।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email