রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘রোকেয়া আদর্শে উজ্জীবিত নারীর পাশে দাঁড়াতে হবে’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বেগম রোকেয়ার আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে অনগ্রসর নারীদের পাশে দাঁড়াতে হবে। তিনি বলেন, বেগম রোকেয়া বেঁচে থাকলে নিশ্চয়ই খুশি হতেন এটা দেখে যে, বাংলাদেশ তার স্বপ্ন পূরণে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। তার দেশের প্রধানমন্ত্রী, বিরোধী দলীয় নেতা, স্পিকার ও সংসদ উপনেতা নারীই নেতৃত্ব দিচ্ছে। এককভাবে পুরোপুরি নারীদের নিয়ে চলা সম্ভব না হলেও বাংলাদেশ এক্ষেত্রে একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।
আজ মঙ্গলবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে নারী জাগরণের অগ্রদূত বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের জন্ম ও মৃত্যুবার্ষিকী এবং বেগম রোকেয়া পদক-২০১৪ বিতরণ ও বেগম রোকেয়া দিবস উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। নারী উন্নয়নে অবদান রাখায় এ বছর রোকেয়া পদক পেয়েছেন অধ্যাপক মমতাজ বেগম ও সমাজকর্মী গোলাপ বানু। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদকপ্রাপ্তদের হাতে পদক তুলে দেন।
মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকির সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সচিব তারিক-উল-ইসলাম। বাঙালী নারী জাগরণের অগ্রদূত  বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের স্মৃতিতে বাংলাদেশ সরকার ১৯৯৫ সাল থেকে এই পদক প্রবর্তন করে। প্রতিবছর ৯ ডিসেম্বর রোকেয়ার জন্ম ও মৃত্যুবার্ষিকীতে এই পদক বিতরণ করা হয়। প্রথম বছর বেগম শামসুন্নাহার মাহমুদ এই পদক পান। পরের বছর দেওয়া হয় কবি সুফিয়া কামাল ও নীলিমা ইব্রাহিমকে। ২০১৪ সাল পর্যন্ত মোট ৩৭ জনকে সরকার এই পদক দিল।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা আমাদের উপহার দেন বাহাত্তরের অনন্য সংবিধান। যা কেবল রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মুক্তির কথাই বলেনি, অত্যন্ত বলিষ্ঠভাবে নারী-পুরুষের সমতাও সমুন্নত করেছে। সংসদে সর্বপ্রথম জাতির পিতা নারীদের জন্য ১৫টি আসন সংরক্ষিত করেন। এটাই বাংলাদেশের ইতিহাসে নারীর ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে প্রথম পদক্ষেপ। যার ফলে স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে প্রথম সংসদেই নারীরা প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ পান।
নারী উন্নয়নে তার সরকারের সাফল্য ও পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ক্ষমতায় আসার পর সংসদে নারীদের সংরক্ষিত আসন ৫০-এ উন্নীত করেছি। স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোতে সংরক্ষিত নারী আসনের সংখ্যা এক তৃতীয়াংশে উন্নীত করা হয়েছে। এ সকল আসনে সরাসরি নির্বাচনের ব্যবস্থা গ্রহণ নারীর ক্ষমতায়ন বহুগুণে বৃদ্ধি করেছে। তিনি বলেন, সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, বিমানবাহিনী, সচিবালয়সহ বিভিন্ন স্থানে মেয়েদের কাজ করার সুযোগ দিয়েছি। মেয়েরা এখন বিমানবাহিনীতে পাইলট হিসেবে কাজ করছেন। আমাদের নারীরা জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী মিশনে কাজ করছেন। বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে পরামর্শক হিসেবে কাজ করছেন। জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ছাড়াও থানার ওসির মতো ঝুঁকিপূর্ণ ও চ্যালেঞ্জিং দায়িত্বেও নারীদের পদায়ন করা হয়েছে। এসব পদেও তারা সফলভাবে দায়িত্ব পালন করছেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা নারী উন্নয়ন নীতি-২০১১ এবং পারিবারিক সহিংসতা প্রতিরোধ আইন-২০১০ প্রণয়ন করেছি। এসিড সন্ত্রাস, ইভটিজিংসহ মেয়েদের ওপর নানা ধরনের নির্যাতন প্রতিরোধে আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচিতে নারীদের অংশীদারিত্ব নিশ্চিত করতে ৪০টি মন্ত্রণালয়ের জেন্ডার সংবেদনশীল বাজেট প্রণয়ন করা হচ্ছে। এছাড়া গ্রামের দরিদ্র বিধবা, প্রতিবন্ধী, মায়েদের জন্য মাতৃত্বকালীন ভাতা, প্রসূতি মায়েদের ভাতা, কমিউনিটি হাসপাতালসহ নানা ধরনের সুযোগ করে দিয়েছি।
নারীরা সব ক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নির্বাচনে নারী প্রার্থীরা ৯৯ ভাগই সফল। নির্বাচনে আমরা যেসব নারীকে মনোনয়ন দিয়েছিলাম তারা প্রায় সবাই জিতেছেন। মেয়েরা যেখানেই কাজ করছেন তারা ভালো কাজ করছেন। মেয়েরা অনেক স্মার্ট। সব জায়গাতেই সফল। তিনি বলেন, বেগম রোকেয়ার স্বপ্ন ছিল অবহেলিত নারীরা যেন শিক্ষিত এবং আত্মনির্ভরশীল হয়ে গড়ে ওঠে। বেগম রোকেয়ার স্বপ্ন অনেকাংশেই বাস্তব রূপ লাভ করেছে। বেগম রোকেয়া প্রতিটি শিক্ষিত নারীর অন্তরে বেঁচে আছেন এবং থাকবেন আজীবন।

Spread the love