বৃহস্পতিবার ৬ অক্টোবর ২০২২ ২১শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘লাখো কণ্ঠে সোনার বাংলা’ গাওয়ার চূড়ান্ত মহড়া ২৪ মার্চ

Sonar Bangla‘লাখো কণ্ঠে সোনার বাংলা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জাতীয় সংগীত গেয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়ার প্রস্তুতি প্রায় শেষের দিকে। ইতিমধ্যে শেষ হয়েছে আয়োজনের প্রায় ৯৫ ভাগ কাজ । আগামী ২৪ মার্চ জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠানের চূড়ান্ত মহড়া অনুষ্ঠিত হবে। অনুষ্ঠান অংশগ্রহণের সুযোগ থাকবে সবার জন্য উন্মুক্ত। তবে জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডের ভেতরে আগে আসার ভিত্তিতে অংশ নিতে পারবেন তিন লাখ মানুষ।

শনিবার সকালে জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে আয়োজকদের পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ডিএমপি কমিশনার বেনজীর আহমেদ, বিগ্রেডিয়ার জেনারেল সারাফাত হোসেন, কমান্ডার নিজামসহ নবম পদাতিক ডিভিশনের কর্মকর্তারা।

গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে অন্তর্ভুক্তির লক্ষ্যে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সহযোগিতায় সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে স্বাধীনতা দিবসে ২৬ মার্চ জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে আয়োজন করবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, অনুষ্ঠানে সবার জন্য প্রবেশ উন্মুক্ত থাকবে। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহনকারীদের প্রবেশ শুরু হবে সকাল সাড়ে ছয়টায়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেলা পৌনে ১১ টায় অনুষ্ঠানস্থলে আসার কথা রয়েছে। এর মাধ্যেই সকাল পৌনে নয় টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত চলবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। বেলা ১১টায় লাখো কণ্ঠে ধ্বনিত হবে জাতীয় সঙ্গীত। যে কেউ অংশ নিয়ে ইতিহাসের অংশ হতে পারবেন।

আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, অনুষ্ঠান ঘিরে থাকবে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা। সশস্ত্র বাহিনী থেকে তিন স্তরের নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নেয়া হয়েছে। এছাড়া আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে।

এই অনুষ্ঠানে ঢাকা ও ঢাকার বাইরের যে সব জনগণ জাতীয় প্যারেড স্কোয়ারে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। যারা প্যারেড গ্রাউন্ডে আসতে পারবেন না তারা নিজ নিজ জেলা বা উপজেলায় প্রশাসনের তত্ত্বাবধায়নে একই সঙ্গে জাতীয় সংগীত গাওয়ার মাধ্যমে ইতিহাসের অংশ হতে পারবেন। এ ব্যাপারে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের মাধ্যমে জেলা বা উপজেলায় প্রয়োজনীয় নির্দেশনা পাঠানো হবে জানানো হয়েছে। পাশাপাশি ওইদিন একই সময়ে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানে অবস্থান করেও কেউ জাতীয় সংগীত গাইতে পারবেন।

এছাড়া বিদেশে অবস্থিত মিশনগুলোর মাধ্যমে বিদেশে বসবাসরত প্রবাসী বাঙালিদের দ্বারা জাতীয় সংগীত পরিবেশিনের ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

সংবদাদ সম্মেলনে বিগ্রেডিয়ার জেনারেল সারাফাত হোসেন বলেন, “আমরা চাই সবাই এই অনুষ্ঠানে যোগদান করুক। তবে তিন লাখ লোক জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডের ভেতরে সমবেত হবার সুযোগ পাবেন। এখানে আগে আসলে আগে সুযোগ পাবেন ভিত্তিতে যদি আটার ভেতর তিন লাখ লোক হয়ে যায় তাহলে এর একজনও বেশি আমরা নেবো না। যে যেখানে থাকবেন সেখান থেকেই অংশ নেবেন।”

লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. কামরুল হাসান বলেন, “সর্বাধিক তিন লাখ মানুষ এখানে প্রবেশ করতে পারবে। তিন লাখের বেশি হলে অতিরিক্ত জনগণ রোকেয়া সরনিতে সমবেত হয়ে তারাও জাতীয় সংগীত পরিবেশনে অংশগ্রহণ করতে পারবে।”

অনুষ্ঠানে ছাত্র/ছাত্রী (৮ম শ্রেণী ও তদুর্ধ্ব), সাংস্কৃতিক কর্মী, মুক্তিযোদ্ধা, গার্মেন্টস কর্মী, সশস্ত্র বাহিনী, বিজিবি, পুলিশ, র‌্যাব, আনসার ও ভিডিপি এবং সব শ্রেণি ও পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করতে পারবে। অংশগ্রহণকারীদের সবাইকে উচ্চস্বরে জাতীয় সংগীত গাইতে হবে। জাতীয় সংগীতের প্রমিত পরিবেশন নিশ্চিত করতে ইতিমধ্যেই সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোতে জাতীয় শিল্পকলা একাডেমির তৈরি জাতীয় সংগীতের একটি অডিও সিডি পৌঁছে দেয়া হয়েছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email