রবিবার ২ অক্টোবর ২০২২ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

লাখো কন্ঠে জাতীয় সংগীত গেয়ে ইতিহাস গড়ল বাংলাদেশ

Pmমহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসে ২ লাখ

৫৪ হাজার

৬৮১ জন মানুষের অংশগ্রহণে একসাথে জাতীয়

সংগীত গেয়ে নতুন ইতিহাস গড়ল বাংলাদেশ।

জাতীয় সংগীত গাওয়ার এ অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে

জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ড ও আশেপাশের এলাকাগুলো

জণসমুদ্রে পরিণত হয়। তিনলাখ লোকের ধারণ

ক্ষমতার গ্রাউন্ডে ঢুকতে না পেরে অনেককে বাইরে

দাঁড়িয়ে জাতীয় সংগীত গাইতে দেখা গেছে। ঘড়ির

কাঁটায় সকাল ১১টা ২০ মিনিটে রাজধানীর

তেজগাঁও জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডের আকাশে-বাতাসে

ধ্বনিত হল, আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায়

ভালোবাসি…। বাংলাদেশ আর বাংলাদেশিদের প্রাণের

এ সুর ছড়িয়ে পড়ল প্যারেড গ্রাউন্ডের বাইরেও,

সমগ্র বাংলাদেশে। পুরো পৃথিবীজুড়ে যেখানে যতো

বাংলাদেশি বাঙালি রয়েছেন- তারাও কণ্ঠ মেলালেন

লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত দেশের

আমাদেও প্রাণপ্রিয় জাতীয় সংগীতে।

বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়, রাজনৈতিক,

সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন, পোশাক ও

পরিবহনসহ বিভিন্ন খাতের কর্মীসহ সব শ্রেণিপেশার

মানুষ প্যারেড মাঠে উপস্থিত হয়ে জাতীয় সংগীতে

কণ্ঠ মেলান।

লাখো কণ্ঠে জাতীয় সংগীত গাওয়ার মাধ্যমে ৪৪তম

স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসে আজ বুধবার বাংলাদেশ

উঠে গেল নতুন এক মর্যাদার উচ্চশিখরে। বাঙালির

দেশপ্রেমের অনন্য এক নজির দেখল বিশ্ব। পাশাপাশি

লাখো কণ্ঠে জাতীয় সংগীত গাওয়ার বিশ্ব রেকর্ড

গড়লো বাংলাদেশ।

সকাল সাড়ে ৬টায় প্যারেড মাঠের ফটক খুলে

দেয়ার আগেই নগরীর বিভিন্ন স্থান থেকে আসা নানা

বয়সের মানুষ জড়ো হয়। ক্রমেই বাড়তে থাকে

মানুষের ঢল। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এবং

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সার্বিক সহযোগিতা ও

তত্ত্বাবধানে এ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

প্যারেড গ্রাউন্ডে জাতীয় সংগীতের সাথে সুর

মেলালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সরকারের মন্ত্রী ,

সংসদ সদস্যসহ বিভিন্ন স্তরের সরকারি কর্মকর্তা ও

বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ। এর আগে আয়োজনের

উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এসময়

তিনি সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। সমবেত কন্ঠে জাতীয়

সংগীত শুরু হয় ১১টা ২০ মিনিটে।

 

 

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email