শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শহরের বালুয়াডাঙ্গা দপ্তরীপাড়ায় ৫ লক্ষ টাকা চাঁদা না দেয়ায় পা হারিয়েছে সেনা সদস্য

সাহেব, দিনাজপুর ঃ দিনাজপুর শহরের বালুয়াডাঙ্গার দপ্তরীপাড়ার অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য মোঃ শামীম হোসেন (৩৫) এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের প্রহারে এক পা হারিয়ে বাড়ীতে ফিরে সন্ত্রাসীদের হুমকির মুখে বাড়ীতে থাকতে পারছে না।
মঙ্গলবার দিনাজপুর প্রেসক্লাবে বালুয়াডাঙ্গা দপ্তরীপাড়া মৃত রশিদ খালাসীর ছেলে মোঃ শামীম হোসেন জানান, গত ১৯ জানুয়ারি রাত ৮টার দিকে দপ্তরীপাড়া রেলব্রীজের সন্নিকট থেকে হত্যার উদ্দেশ্যে দক্ষিণ বালুয়াডাঙ্গার ওয়াহেদুল ইসলামের পুত্র জুয়েল, রাজা, দপ্তরীপাড়া মহল্লার আজিম উদ্দীনের পুত্র বাদল, মৃত ওহাব এর পুত্র রিপন, মোঃ হাসেম এর পুত্র রুবেল, মিরাজ এর পুত্র সোহাগ, মোঃ মানিক, রশিদ এর পুত্র বুল্লা, বালুয়াডাঙ্গার মোঃ বরাত, মোস্তফা, মিশন রোড মহল্লার সিদ্দিক হোসেন এর পুত্র সাহাদাত, আজগর আলীর পুত্র ইসলামসহ আরও ৫-৬ জন অজ্ঞাত সন্ত্রাসী আমাকে ব্রীজের নিচে নিয়ে যায়। সেখানে ধারালো অস্ত্র সামুরাই, লোহার রড, হামার, হাতুড়ীসহ বিভিন্ন অস্ত্র সস্ত্রে দিয়ে আমার উপর বেধরক প্রহার করতে থাকে। সন্ত্রাসী জুয়েল, সাহাদাত, রিপন বলে তোর পেনশনের টাকা থেকে ৫ লক্ষ টাকা আমাদেরকে চাঁদা না দিলে তোকে জানে মেরে ফেলবো। তোর পরিবারের কাউ কেই এলাকায় থাকতে দিবো না। আমি চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে জুয়েল, বাদল আমাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে পিটিয়ে ও কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে মাটিতে ফেলে দেয়। এ সময় রিপন, সাহাদত হাতুরী ও হামার দিয়ে আমার শরীর ও পা’দুটো ভেঙ্গে চুরমার করে দেয়। সন্ত্রাসী রাজা, রুবেল, মানিক, ইসলাম, রড দিয়ে আমার দু পায়ের তারুতে মারতে থাকে। সন্ত্রাসী গোলাম মোস্তফা আমার আঙ্গুলের হাত থেতলিয়ে দেয়। সন্ত্রাসী সোহাগ, সফিকুল, তফিকুল ও রিপন সর্বশেষ আমার ডান হাতটি ভেঙ্গে ফেলে। তারা আমার পকেটে থাকা নগদ ১৫ হাজার টাকা ও ১টি নকেয়া ফোন নিয়ে আমাকে ফেলে রেখে চলে যায়। যাওয়ার সময় চিৎকার করে বলে এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ করলে তোকে সহ তোর বংশ নিরবংশ করে ফেলবো। আমি চিৎকার করে জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ি।
আহত শামীম হোসেন এর বোন রওশন আরা ও রশিদা বেগম জানান, সন্ত্রাসীদের তান্ডব লীলা এলাকার শত শত নারী-পুরুষ প্রত্যক্ষ করলেও কেউ তাকে উদ্ধারের জন্য এগিয়ে যাওয়ার সাহস পায়নি। সন্ত্রাসীরা এলাকা ত্যাগ করলে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য দ্রুত রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে দ্রুত ঢাকা সিএমইচ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সিএমএইচ হাসপাতালে ২৮ জানুয়ারী থেকে ১৫ মে পর্যন্ত শামীম চিকিৎসা গ্রহণ করে। চিকিৎসা চলাকালীন সময় বাম পায়ের হাড়গুলো টুকরো টুকরো হয়ে যাওয়ায় বাম হাটুর উপর থেকে ডাক্তাররা পা টি কেটে ফেলে। বর্তমানে ডান পায়ের অবস্থাও গুরুতর। ডান পা টিও কেটে ফেলতে হবে বলে ডাক্তারা জানিয়ে দিয়েছে।
সম্পূর্ণরূপে পঙ্গু সাবেক সেনা সদস্য মোঃ শামীম হোসেন জানান, পা হারিয়ে আমি থানায় একাধিকবার চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে মামলা করতে গিয়েও আমার ও আমার পরিবারের প্রাণ বাঁচানোর জন্য মামলা করতে পারিনি। আমি অসুস্থ অবস্থায় বাড়ী ফিরে এলে চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা প্রতিদিনই আমাকে মামলা না করার জন্য হুমকি দিয়ে আসছে। আমি কোন উপায় অন্তর না পেয়ে গত ১৫ অক্টোবর কোতয়ালী থানায় সন্ত্রাসীদের নাম উল্লেখ করে একটি অভিযোগ দায়ের করেছি।
এ ব্যাপারে গতকাল মঙ্গলবার দিনাজপুর কোতয়ালী থানার ওসি রেদওয়ানুর রহিম এর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এজাহার হাতে পাওয়ার পর জুয়েল নামে এক চিহ্নিত সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্যান্য আসামীদের গ্রেপ্তারের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

Spread the love