রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে দিনাজপুর প্রেসক্লাবে আলোচনা সভা

 

আজহারুল আজাদ জুয়েল, দিনাজপুরঃ পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী বাঙ্গালী জাতিকে মেধাশুন্য করার লক্ষ্যে বুদ্ধিজীবী হত্যার যে চক্রান্ত করেছিল সেই চক্রান্ত এখানো অব্যাহত আছে এবং এখনো প্রগতিশীল সাংবাদিক সহ বুদ্ধিজীবীদের হত্যার মাধ্যমে দেশকে পাকিস্তানী ভাবধারায় ফিরিয়ে নেয়ার ষড়যন্ত্র চলছে।

 

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষ্যে রোববার দিনাজপুর প্রেসক্লাব আয়োজিত এক আলোচনা সভায় সাংবাদিকসহ আলোচকগণ এই অভিমত ব্যক্ত করেছেন।

 

দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি চিত্ত ঘোষের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে উদীচীর কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ও দিনাজপুর নাট্য সমিতির সাধারণ সম্পাদক রেজাউর রহমান রেজু বলেন, যশোহরে উদীচীর সম্মেলনে, রমনার বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে বোমা হামলার মধ্য দিয়ে প্রমানিত হয় যে, একাত্তরের ঘাতকেরা এখনো বাঙ্গালীর কৃষ্টি ও সংস্কৃতির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র অব্যাহত রেখেছে। বাঙ্গালী বুদিজীবী ও মেধাবী রাজনীতিকদের হত্যাকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে পাকিস্তানী ভাবধারার জঙ্গীগোষ্ঠী। এদেরকে শক্ত হাতে মোকাবেলা করেই বাঙ্গালী জাতিকে এগিয়ে যেতে হবে।

 

আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট- দিনাজপুর এর সাধারণ সম্পাদক সুলতান কামালউদ্দীন বাচ্চু, দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি কামরুল হুদা হেলাল, সাধারণ সম্পাদক গোলাম নবী দুলাল, দিনাজপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আজহারুল আজাদ জুয়েল, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম ফুলাল, সাবেক ছাত্রনেতা আব্দুল হান্নান প্রেসক্লাবের নির্বাহী সদস্য আবু বকর ছিদ্দিক, সাংবাদিক মোর্শেদুর রহমান, মুকুল চ্যাটার্জী, রিয়াজুল ইসলাম, কাশী কুমার দাস, পান্না, আবুল কাশেম, বিপুল সানী সরকার প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন দিনাজপুর প্রেসক্লাবের নির্বাহী সদস্য শামীম রেজা।

 

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট এর সাধারণ সম্পাদক সুলতান কামালউদ্দীন বাচ্চু বলেন, একাত্তরে যে ম্যাসাকার হয়েছে তা ভাষায় বর্ণনা করা কঠিণ। সারাদেশকে বধ্যভূমি বানানো হয়েছিল। দিনাজপুরেও ২টি নতুন বধ্যভূমি পাওয়া গেছে। কিন্তু এইসব খবর আমরা কম রাখছি বলে আমাদের মধ্যে দেশপ্রেম গড়ে উঠছেনা।

 

প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি কামরম্নল হুদা হেলাল বলেন, বাঙ্গালীকে জ্ঞ্যান-বিজ্ঞানে পর্যদস্ত্ত করার জন্য পরিকল্পিতভাবে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়েছিল। নতুন প্রজন্ম, প্রগতি ও স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি হত্যাকারীদের বিচারের জন্য ঐক্যবদ্ধ হয়েছে।

 

প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক গোলাম নবী দুলাল বলেন, একাত্তরে হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে ধর্মের নাম ভাঙ্গিয়ে। এ ধরনের হত্যা এখনো চলছে। উগ্রতা ও মৌলবাদীদের এই অপকর্মের বিরুদ্ধে পুরো জাতিকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

দিনাজপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আজহারুল আজাদ জুয়েল বলেন, জীবন থেকে নেয়া ছবির মাধ্যমে জহির রায়হান যে জাগরণ সৃষ্টি করেছিলেন তার পেক্ষিতে তাকে হত্যা করা হয়েছে। বাছাই করে বুদ্ধিজীবীদের হত্যার ঘটনায় বাঙ্গালীর অগ্রযাত্রা থমকে গিয়েছিল। কিন্তু একাত্তরে পাকিস্তানের যে অবস্থা ছিল সেখান থেকে তারা খুব বেশিদুর এগুতে পারেনি। কিন্তু বাংলাদেশ ও এদেশের মানুষ পাকিস্তানের তুলনায় বিশ্বব্যাপী অনেক বেশি এগিয়ে গেছে।

দিনাজপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম ফুলাল বলেন, একাত্তরের নেক্কারজনক ভূমিকার কারণে পাকিস্তান ও তাদের এ দেশীয় দোসরদের বিরুদ্ধে ঘৃণা প্রকাশ করে যেতে হবে।

অন্যান্য আলোচকগণ সারাদেশের বধ্যভূমিগুলোকে সংস্কারের তাগিদ দেন এবং যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করার আহবান জানান। এর আগে সকাল ৬টায় দিনাজপুর প্রেসক্লাব ভবনে কালো পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করা হয়। সকাল ৭টায় দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি চিত্তঘোষ, সাধারণ সম্পাদক গোলাম নবী দুলাল এবং দিনাজপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আজহারুল আজাদ জুয়েল, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম ফুলালের নেতৃত্বে সাংবাদিকগণ শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানিয়ে চেহেলগাজী মাজার প্রাঙ্গণে অবস্থিত শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের সমাধীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন। অন্যান্যের মধ্যে সাংবাদিক লতিফুর রহমান, আসাদুল্লাহ সরকার, একরাম তালুকদার, আনিস হোসেন দুলাল, কংকন কর্মকার, গৌরী শংকর রায়, দিনাজপুর সংবাদপত্র হকার্স ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি ছবিলাল সরকার প্রমুখ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

Spread the love