শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শিশুদের মানুষ হতে হবে,এটা আগে শেখান- প্রাথমিক ও গন শিক্ষামন্ত্রী

রাসেল আহম্মেদ প্রধান ॥ প্রাথমিক ও গনশিক্ষা মন্ত্রী এ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার শিক্ষকদের উদ্দ্যেশে বলেছেন,আপনাদের  বিদ্যালয়ের শিশুদের মানুষ হতে  হবে ,এটা আগে শেখান, শুধু নিত্যদিনের গতানুগতিক পড়াশুনা একজন শিশুকে আর্দশ মানুষ হিসেবে গড়ে নাও তুলতে পারে। এ ক্ষেত্রে নৈতিকতার শিক্ষা বড়। মানসম্পন্ন  শিক্ষা হলেই একজন ছাত্র আর্দশ মানুষ হবে,এটা মনে করার কোন  কারণ নেই। কারণ হিসেবে মন্ত্রী হলি আর্টিজানের ঘটনা উল্ল্যেখ করে বলেন,যারা সেখানে হামলা করেছে  তারাও শিক্ষত, কিন্তু তারা সু-শিক্ষিত নয়। আর্দশ,ন্যায়বোধ,মূল্যবোধ এবং  সততা ছাড়া প্রকৃত মানুষ হওয়া যায় না। সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য ভাল কিছু করতে হলে এ বোধগুলো থাকা দরকার। মিথ্যা আশ্বাস, জনগনের সাথে প্রতরনা এ কাজগুলো একজন মানুষকে বেশিদিন তার আসনে ধরে রাখতে পারে না। মনে করতে হবে ,আমি যে  প্রতিনিধিত্ব করছি, তা যেন জনগনের কাছে বোঝা না হয়। দেশ সব দিক দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। শেখ হাসিনা প্রথমবার প্রধান মন্ত্রী হয়েছিলেন বঙ্গবন্ধুর আর্দশের কারনে। এর পর তিনি প্রধান মন্ত্রী হয়েছেন তার যোগ্যতার কারনে। প্রধান মন্ত্রীর ২০৪১ সালের স্বপ্ন দেখার জন্য পরম করুনাময় আল্লাহ যেন  প্রধানমন্ত্রীর সাথে আমাকেও  (মন্ত্রী) বাচাঁয় রাখেন। আল্লাহ দয়া করলে তা পারেন।  শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি করেছে এ সরকার, সাথে অন্যদেরও বেতন বেড়ে গেছে। কাজের সাথে বেতন বৈশম্য দুর হয়েছে, এখন সততার সাথে কাজ  করতে পারলে দেশ সত্যিই সমৃদ্ধি লাভ করবে। বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীদের নিজ সন্তানদের মত করে দেখতে হবে। প্রতিষ্ঠানগুলো চালাতে হবে অনুভব ও অনুভূতি দিয়ে। মন্ত্রী বিদ্যালয়ের বিভিন্ন সমস্যা  মনোযোগ সহকারে শোনেন, এবং প্রতিশ্রুতি স্বরুপ স্কুলের  বাউন্ডারী ওয়াল সহ ৬ টি ক্লাসরুম নির্মানের আশ্বাস প্রদান করেন।

মন্ত্রী বৃহম্পতিবার বিকেলে দেবীগঞ্জের বিনয়পুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে বিদ্যালয়ের শতবর্ষ পূর্তি উদযাপন উপলক্ষ্যে আয়োজিত জনসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতার সময় উপরোক্ত কথাগুলো  বলেন।  এর আগে বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারি শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য নিরসন  সহ তিন দফা  দাবী  পুরনে  মন্ত্রীর নিকট স্বারকলিপি প্রদান করেন, বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের  সহকারি শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ। এদিকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ”পুল ভুক্ত ” শিক্ষকদের শূন্য পদে স্থায়ী  নিয়োগের জন্য পৃথকভাবে আরেকটি স্মারকলিপি মেহেদী হাসান শিক্ষকদের পক্ষ্যে মন্ত্রীর নিকট প্রদান করেন।

শতবর্ষ উদযাপন কমিটি বিনয়পুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আয়োজনে বিশেষ অথিতির বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য  এ্যাডভোকেট নুরল ইসলাম সুজন। অন্যদের মধ্যে মাহাবুব এলাহী ,উপ-পরিচালক প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর রংপুর, জেলা প্রশাসক অমল কৃষ্ণ মন্ডল, পুলিশ সুপার গিয়াস উদ্দীন, বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র  ডাঃ অনন্ত কুমার সেন বর্তমানে কর্মরত ল্যাব এইড হাসপাতাল, ডাঃ আব্দুল ওয়াব খান,   দেবীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাসনাৎ জামান চৌধুরী জর্জ। সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।

Spread the love