মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিশু ছাত্রীর শ্লীলতাহানীর দায়ে আতাহার আলী রেসিডেন্সিয়াল ক্যাডেট মাদরাসার অধ্যক্ষ গ্রেফতার

মোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি ॥নীলফামারীর সৈয়দপুরে শিশু ছাত্রীর শ্লীলতাহানীর দায়ে মাদরাসার অধ্যক্ষকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রবিবার (১৪ আগস্ট) রাতে শহরের নতুন বাবুপাড়াস্থ মাদরাসায় জনতার হাতে আটক অবস্থায় তাকে গ্রেফতার করা হয়।  পরের দিন তাকে নীলফামারী জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।  গ্রেফতার অধ্যক্ষের নাম মোস্তফা জামান কাওসার। সে উপজেলার বোতলাগাড়ী ইউনিয়নের শ্বাষকান্দর শাহপাড়ার মৃত. মাওলানা আতাহার আলীর বড় ছেলে।
মামলার আরজীমতে জানা যায়, গ্রেফতার কাওসার নতুন বাবুপাড়া এলাকায় তার বাবার নামে গড়ে তুলেছেন মাওলানা আতাহার আলী রেসিডেন্সিয়াল ক্যাডেট মাদরাসা। সম্পূর্ণ আবাসিকভাবে পরিচালিত এই মাদরাসায় পঞ্চম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে গত শনিবার রাতে তার শয়নকক্ষে একা পেয়ে শ্লীলতাহানী ঘটায়। বিষয়টি কাউকে না জানানোর জন্য মেয়েটিকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। পরের দিন মেয়েটির মা মাদরাসায় তার সাথে দেখা করতে আসলে মাকে সব খুলে বলে। এতে বিষয়টি টের পেয়ে কাওসার মাদরাসা থেকে সটকে পড়ে। পরে ঘটনাটি জানাজানি হয়ে পড়লে মেয়ের পরিবারের সদস্যরাসহ আত্মীয় স্বজন মাদরাসায় এসে অধ্যক্ষকে সামনে আসার জন্য চাপ সৃষ্টি করে। 
পরে মাদরাসার ভবন মালিক শহরের বিশিষ্ট ফল ব্যবসায়ী বাদশাহ’র মাধ্যমে অধ্যক্ষকে মাদরাসায় আনা হয়। এতে উপস্থিত লোকজনের তোপের মুখে পড়ে অধ্যক্ষসহ তার পক্ষের লোকজন। এক পর্যায়ে থানায় খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে। জিজ্ঞাসাবাদে মেয়েটি সবিস্থার খুলে বললে পুলিশ অধ্যক্ষকে আটক করে। পরে রাতে মেয়েটির মা নিজে বাদী হয়ে শ্লীলতাহানীর মামলা করে। এই মামলার প্রেক্ষিতে আটক অধ্যক্ষকে গ্রেফতার দেখিয়ে সোমবার সকালে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।  
মেয়েটির মা জানান, শিক্ষকের কাছেও তার সন্তানের মত ছাত্রী নিরাপদ না হলে মানুষ কোথায় যাবে, কাকে বিশ্বাস করবে? কার কাছে মেয়েরা নিরাপত্তা পাবে? মাদরাসায় দ্বীনি শিক্ষা দিতে মেয়েকে ভর্তি করেছি। অথচ সেখানেই ঘটানো হলে চরম অমানবিক ও ঘৃণ্য কাজ। তাও আবার মাদরাসার পরিচালক তথা প্রধান অভিভাবক কর্তৃক। এমন অবস্থায় এহেন জঘন্য কান্ডের হোতাকে কোনভাবেই ছাড় দেয়া যায়না। না জানি সে আরও কত  মেয়ের সাথে এমন নৃশংসতা করেছে। সৈয়দপুর ছাড়াও এই মাদরাসার একটি শাখা রংপুর শহরেও রয়েছে। সেখানেও এধরণের অপকর্ম হয়ে থাকতে পারে। তাই বিষয়টি ভালোভাবে তদন্ত করে এই পশুত্ব প্রদর্শনকারী ব্যক্তির বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণসহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাই।  
সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ সাইফুল ইসলাম মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, শ্লীলতাহানীর ঘটনায় আটক মাদরাসা অধ্যক্ষকে নীলফামারী জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষ্যে তার বিরুদ্ধে আইনী পদক্ষেপ নেওয়া হবে। 
মাদরাসার পরিচালক কর্র্তৃক একজন অবুঝ শিশুর সাথে এমন জাহিলিয়াতির ঘটনায় শহরজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। সর্বত্র ছি ছি রব উঠেছে। লোকজন ঘটনার সুবিচার দাবি করেছেন। 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email