বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শিশু হত্যা করে লাশের দেহ ও কবরে বিদ্যুতায়ন

জাহাঙ্গীর আলম রেজা, ডিমলা(নীলফামারী)প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডিমলায় পাষন্ড পিতা শিশু বাচ্চাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে হত্যা রহস্য ভিন্নখাতে প্রবাহের জন্য লাশের দেহে ও কবরে বিদ্যুতায়ন করে রেখেছে৷ উপজেলার সদর ইউনিয়নের নটাবাড়ী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে৷

স্বরেজমিনে গিয়ে জানাগেছে, জামায়াতের সক্রীয় সদস্য ও জামায়াতে ইসলামী ছাত্রশিবিরের ডিমলা উপজেলার সাধারন সম্পাদক অপিয়ার রহমানের ছোট ভাই ডিমলা সদর ইউনিয়নের নটাবাড়ী গ্রামের ইছামুদ্দিনের পুত্র অপিনুর রহমান(২২) এর সাথে প্রায় ২ বছর পূর্বে বিয়ে হয় পশ্চিম শালহাটী গ্রামের জহিদুল ইসলামের কন্যা পারভিন(২০)৷ বিয়ের পর হতে স্বামী অপিনুরের পরকিয়ার কারনে প্রায় সময় সংসারে অশান্তি লেগে থাকতো৷ এক পয্যায় পারভিনের সাথে সংসার না করার সিদ্ধান্ত নেয় অপিনুর৷ এরই মধ্যে পারভিনের গর্ভে আসে সন্তান তা জেনে অপিনুর আরো হিংশ্র হয়ে উঠে গর্ভের সন্তান নষ্টের জন্য পারভিনকে শারিরীক ও মানষিকভাবে অমানবিক নির্যাতন চালায়৷ অবশেষে পারভিন ২ ফেব্রুয়ারী পিত্রালয়ে পুত্র সন্তান প্রসব করে৷ ক দিন পরেই অপিনুর পারভিনকে ফঁুসলিয়ে সন্তানসহ তার বাড়িতে নিয়ে যায়৷ ২৩ মার্চ গভীর রাতে পারভিনকে গোয়াল ঘরে আটকিয়ে রেখে নীজ সন্তান(৫১দিন) েক গলাটিপে হত্যা করে পাষন্ড পিতা অপিনুর, বড় ভাই অপিয়ার ও মাতা আসমা বেগম৷ মৃত্যু নিশ্চিতের পর পারভিনকে গোয়াল ঘর থেকে নিয়ে এসে মৃত সন্তানকে কোলে দেয় স্বামী অপিনুর ও ভাসুর অপিয়ার৷ এ সময় পারভিন সন্তানের মৃত্যুও বিষয়টি বুঝতে পেরে চিত্কার করার চেষ্টা করলে৷ স্বামী ভাসুর ও শশুড় বাড়ীর লোকজন তাকেও মেরে ফেলার হুমকি প্রদান করেন৷ পরদিন সন্তান অসুস্থ্য হয়ে মারা গিয়েছে বলে প্রচার চালিয়ে ,উপজেলা জামায়াতের সুরা ও কর্মপরিষদের সদস্য, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান ও ঝুনাগাছ চাপানী ইউনিয়ন জামায়াতের আমীর ও খালিশা চাপানী আইনুল হক ফাজিল মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক আমিনুর রহমানকে নিয়ে থানা পুলিশকে ফাঁকি দিয়ে শশুড় বাড়ী ও গ্রামের প্রতিবাদী লোকজনদের জামায়াতের ক্যাডারদের দিয়ে জিম্মি করে দলীয় প্রভাব খাটিয়ে তরিঘরি মৃত সন্তানকে দাফন করে৷ লাশের শরীরে ও কবরে বিদ্যুতায়ন করে প্রায় ২ মাস ধরে কবর পাহারা দিয়ে রাখে৷ সন্তান হত্যার বিষয়টি প্রকাশ পেলে শুক্রবার থেকে অপিনুর বড় ভাই অপিয়ার ও মাতা আসমাসহ বাড়ীর লোকজন গা ঢাকা দেয়৷ এলাকাবাসীর দাবী ওই নিষ্পাপ শিশুটির লাশ উত্তোলন করে ময়না তদন্ত করলেই মৃত্যুর প্রকৃত রহস্য বেড়িয়ে আসবে৷

Spread the love