বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শীতের স্থায়িত্ব কমে যাওয়ায় বোদায় গমের আবাদ কমে যাচ্ছে

Wheat Picture Boda-01মোঃ নুরেহাবিব সোহেল,বোদা (পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ

ভালো বীজের অভাব, শীতের দৈর্ঘ্য কমে যাওয়া ও ফলন কম হওয়ায় করণে গম চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার কৃষকরা। ফলে ধানের পরেই অবস্থান করে নেয়া এই রবি ফসলটি হুমকির মুখে পড়েছে। এক সময় এই জনপদের কৃষকরা শীতের মৌসুমে গমের আবাদের দিকে বেশি ঝুকে পড়তো। ফলে গমের ব্যাপক আবাদে স্থানীয় চাহিদা মিটিয়েও দেশের বিভিন্ন জেলার পাইকাররা  গম ক্রয় করে নিয়ে যেত। বোদা উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়,চলতি মৌসুমে গম চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ১৮শ ২৫হেক্টর। আবাদ হয়েছে ২১শ ৫৫ হেক্টর জমিতে। অনুরুপ ভাবে গত মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ১৮শ ৯৫ হেক্টর। আবাদ হয়েছিল ২৩শ ৫৫ হেক্টর জমিতে। গত বছরের চেয়ে এবছর আবাদ কমেছে ২০০ হেক্টর জমিতে। উপজেলার ময়দানদীঘি ইউনিয়নের জমশেদ আলী জানান, ভালো বীজ সংকট,প্রতিকুল আবহাওয়া ও ফলন কম হওয়ায় গম আবাদের প্রতি মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে তারা। অপর দিকে গমের বাজার মুল্য কম হওয়ায় উৎপাদন খরচও উঠছে না বলে কৃষকরা অভিযোগ করেন। গত বছর গম আবাদ করে আর্থিক ভাবে ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছেন অনেকেই। তাই গমের আবাদী জমি গুলোতে ভুট্টা,আখ সহ বিভিন্ন জাতের ডাল ও ধান চাষে ঝুকছেন কৃষকেরা। উপজেলা মাড়েয়া ইউনিয়নের বামনহাট গ্রামের চাষি আবুল ফজল জানান, ১বিঘা জমিতে ধান আবাদ করলে ২৫ থেকে ৩০ মণ ধান পাওয়া যায়। সেখানে বিঘা প্রতি গম আবাদ করে পাওয়া যায় ৮ থেকে ৯ মণ। আবাদের খরচ ধানের চেয়ে কম হলেও ফসল উৎপাদনও কম হয়। আবার মৌসুমে যে বাজার থাকে তা দিয়ে কৃষকদের পোষায় না। অবসর প্রাপ্ত কৃষিবীদ আঃ রহমান  জানান, শীতের স্থায়ীত্বকাল তিন মাস হলেও বর্তমানে তা দেড় মাসে গিয়ে ঠেকেছে। আবহওয়া বৈচিত্র্যে শীতের দৈর্ঘ্য কমে যাওয়ায় গম চাষে নেতি বাচক প্রভাব পড়ছে। গমের ফ্লাওয়ারিংয়ের সময় শীতের তীব্রতা বেশি প্রয়োজন হয়। শীত কম হলে উৎপাদন বাধাগ্রস্থ্য হয়,ফলন আশানুরুপ হয় না।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email