বুধবার ১৭ অগাস্ট ২০২২ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শুঁটকির মৌসুম শুরুঃ সৈয়দপুরে আড়তে বেচাকেনা জমজমাট

মো. জাকির হোসেন, রংপুর ব্যুরো চীফ : শুঁটকির মৌসুম শুরু হয়েছে। ফলে নীলফামারী জেলার সৈয়দপুরে শুঁটকি আড়তে বেচাকেনা জমে উঠেছে। এখান থেকে পাইকারি ও খুচরা শুঁটকি যাচ্ছে রংপুর, দিনাজপুর, পঞ্চগড়, নীলফামারীসহ উত্তর জনপদের বিভিন্ন জেলায়। এসব আড়তে পোকা দমনে মানবদেহের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকারক বিষাক্ত রাসায়নিক পাউডারের ব্যবহারই সবচেয়ে বেশি হচ্ছে।

দীর্ঘদিন শুঁটকি ব্যবসা মন্দাভাব বিরাজ করায় পুঁজি হারিয়ে এবং ব্যাংক ঋন পরিশোধ করতে না পেরে অনেকেই নিঃস্ব হয়ে গেছে। ঋন খেলাপি হয়ে সমস্ত বিক্রি করে স্বপরিবারে অনেকেই চলে গেছেন নিজ গ্রামে। এরপরেও শুঁটকির মৌসুম চলে আসায় বেশকিছু আড়তদার নতুন করে ব্যবসা শুরু করেছেন। ভাদ্র মাসে শুরু হওয়া শুঁটকির মৌসুম চলবে আগামি মাঘ মাস পর্যন্ত। ফলে এখানকার আড়তগুলোতে বেচাকেনা জমে উঠেছে।

উত্তর জনপদের সবচেয়ে বড় সৈয়দপুর শুঁটকি আড়ত হচ্ছে সৈয়দপুর। আড়তগুলোতে অবাধে বিভিন্ন রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করা হচ্ছে। রাসায়নিক দ্রব্যের মধ্যে ডিডিটি পাউডার সহজলভ্য হওয়ায় সেই সাথে শুঁটকির স্থায়িত্বকাল বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন তরল রাসায়নিক স্প্রে ব্যবহার করে রমরমা বাণিজ্য চালিয়ে আসছে এক শ্রেনীর অসাধু ব্যবসায়ী। এই আড়ত থেকে পাইকারী ক্রেতারা ডিডিটি মিশ্রিত শুঁটকি কিনে গ্রামাঞ্চলের হাটবাজারে বিক্রি করছে। ফলে হতদরিদ্র নানা শ্রেনী- পেশার সাধারণ ক্রেতাদের কাছে ছড়িয়ে পড়ছে ডিডিটি পাউডার ও রাসায়নিক দ্রব্য মিশ্রিত এসব শুঁটকি। এতে করে মানুষ চর্মরোগসহ নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ছে।

বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় ভেজাল বিরোধী অভিযানে সৈয়দপুরে বেশকিছু শুঁটকির আড়তে অভিযান চালিয়ে লাখ লাখ টাকা জরিমানা আদায়সহ শুঁটকিতে ডিডিটি পাউডার মিশ্রনের দায়ে অনেকের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সীলগালা করে দেয়া হয়েছিল। সেসময় লোকসানের ভয়ে অনেকেই ব্যবসা বন্ধ রাখেন। রাজনৈতিক পট পরিবর্তনের সাথে সাথেই ব্যবসায়ীরা পূণরায় শুঁটকিতে ডিডিটিসহ বিভিন্ন রাসায়নিক দ্রব্যের মিশ্রন শুরু করে দিয়েছে বলে জানা যায়। বর্তমানে শুঁটকির আড়তে ভেজাল বিরোধী অভিযান পরিচালনা না হওয়ায় ব্যবসায়ীরা অবাধেই চালিয়ে যাচ্ছে তাদের রমরমা বাণিজ্য। এ ব্যাপারে এলাকার সচেতন মহল প্রশাসনের হস্তক্ষেপ ও প্রতিকারের দাবী জানান।

শুঁটকি মাছ ব্যবসায়ীরা জানান, ১৯৮৩ সালে সৈয়দপুর বাস টার্মিনাল ( নিয়ামতপুর) এলাকায় গড়ে উঠে এ শুঁটকি মাছ ব্যবসায়ীর আড়ত। প্রথমাবস্থায় এখানে ১০ থেকে ১৫ জন আড়তদার ছিল। আজ ক্রমেক্রমে এ ব্যবসা বিস্তার লাভ করেছে। বর্তমানে দেশের ২য় বৃহত্তর শুঁটকি মাছের বন্দর এটি। এখানে শুঁটকির দোকান রয়েছে ৬০টি ও আড়তদার রয়েছে ১৩ জন। বাইরে থেকে এখানে ব্যবসায়ীরা আসেন। প্রতিদিন অর্ধ কোটি টাকার শুঁটকি মাছ কেনা-বেচা হয়ে থাকে এখানে। মাছ আসে দেশের চট্টগ্রাম, খুলনা, রাজশাহী এবং পাবনা থেকে। এর পাশাপাশি ভারতীয় শুঁটকি মাছ আসে বৈধভাবে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে। বর্তমানে এখানে টেংরা, পুটি, গচি, চিংড়ি, লইট্টা, শোল, বোয়াল, রুইয়ের পাশাপাশি মিঠা পানি ও সামুদ্রিক বিভিন্ন প্রজাতির শুঁটকি মাছ কেনা- বেচা হয়ে থাকে।

শুঁটকি আড়তের ব্যবসায়ী রবি, দেলওয়ার, ছফর মুন্সি, আবুল খায়ের চান্দু, আবুল বাশার ও সাহাবুদ্দিন বলেন, আগের তুলনায় শুঁটকি মাছের দাম অনেকটা বেশি। এছাড়া তেলের দাম বাড়ায় বেড়েছে গাড়ি ভাড়া। এখানে বেশির ভাগ ফড়িয়া ও আড়তদার রয়েছেন পাবনা, সিলেট, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, কুমিল­v এবং ফরিদপুর এলাকার। স্থানীয় ব্যবসায়ী তেমন একটা নেই বললেই চলে। তবে এই শুঁটকি আড়তের কারণে এলাকার প্রায় ২ শতাধিক নারী-পুরুষ কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন।

শুঁটকি সংরক্ষণে ডিডিটি পাউডার ও বিষাক্ত পদার্থ মেশানোর কথা অস্বীকার করে তারা বলেন, নিমপাতার রস ও শুকনো মরিচ গুঁড়ো শুঁটকিতে মিশিয়ে সংরক্ষন করা হয়। যাতে মৌসুম শেষ হওয়ার পরেও সেসব শুঁটকি বেচাকেনা করা যায়। এজন্য অনেক ব্যবসায়ী এ ব্যাপারে প্রশিক্ষণও নিয়েছেন বলে তারা উলে­খ করেন।Jakir Sutki.1

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email