মঙ্গলবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৩ ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শুভ জন্মতিথি ৪৪তম, প্রতিষ্ঠা বাষিকী, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ একটা যুগান্তকারী নাম, একটা চেতনার নাম, একটা আস্তার নাম, যার পতাকা তলে দাড়ালে মনে হবে আমরা সবাই মানুষ এর চাইতে আর কোন বড় পরিচয় নেই।

পথচলা সেই ১৯৭০ সালের ৪ঠা এপ্রিল সুফিয়া কামালের হাত ধরে সেই ছোট চারা গাছটি আজকে মহিময় হতে পরিণত হয়েছে। উত্তাল তরঙ্গের মদ্য ছোট, খরটুকু ছিল তখন মহিলা পরিষদ। দেশ তখন মুষ্টিমেয় সদস্য তাদের যারা যতটুকু দেশ জন্য করার সাধ্য, মহিলা পরিষদের পতাকা তলে সম্মিলত হয়ে ঝাপিয়ে পড়েছে।

মহিলা পরিষদের মাথার উপর বেগম রোকেয়া আর্শীবানী প্রতিলতা ওয়াদ্দেদার মত বীর কন্যার সাহসী জীবন আর মনোরম মাসিমার মত শান্ত অথচ কঠোর জীবন রোধ মহিলা পরিষদের পথচটলাকে বনিষ্ট করে তুলেছে। দিনাজপুরের মত মফস্কল শহরও পিছিয়ে ছিল না। আমার জানা মতে তখন মহিলা পরিষদ ছাড়া আর কোন মহিলা সংগঠন ছিল না যারা মহিলাদের স্বক্রিয়তা নিয়ে ভাবতেন। কিছু মৌখিক মহিলা সমিতি ছিল, তাবে তাদের কার্যক্রমে যুগোপযোগী সচেতনতামূলক কাম্যের ঘাটতি ছিল।

নারীকে নারী হিসোবে না দেখে মানুষ হিসেবে দেখুন। নারীর ন্যায্য অধিকার বুঝে নেওয়া নারী নির্যাতন রোধে আইন প্রনয়ণ এবং মেয়েদের নিজেদের রোধের জায়গায়গুলোকে তীক্ষ করাই ছিল মহিলা পরিষদের মূলত কাজ।

যুগের প্রয়োজনে নারী এগিয়ে যেতে হয়েছে ঘর বাহির সমভাবে সেই অমসৃন পথকে সুন্দর সাবজনীন করার দায়িত্ব কাধে নিয়ে মহিলা পরিষদ। মহিলা পরিষদ কোন রাজনৈতিক সংগঠন নয়, তবে দেশের যে কোন বিপর্যয়ে মোকাবেলার জন্য তাদের বিবেক বুদ্ধির মাধ্যমে যা সুন্দর যা সঠিক সেই অনুযায়ী আন্দোলনের জন্য সদাই প্রস্ত্তত।

একটা কথা না লিখে পারছিনা মহিলা পরিষদ যা চিন্তা করে সরকার তা প্রকৃত কথায় অনেক পরে।

যেমন পারিবারিক সহিংসতা আইন ২০১০ পাশ হয়েছে এরকম আরও অনেক বিষয় নিয়ে মহিলা পরিষদ কাজ করছে অনেক দিন ধরে। সিডও সনদ কমিটি একক ও যৌথভাবে রিপোর্ট প্রদান সাপেক্ষে দেশীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে লবির মাধ্যমে বিভিন্ন আইন নীতিমোলা সংস্কার করে নারীর সমঅধিকার চালানোর আন্দেলন চালিয়ে যাচ্ছে মহিলা পরিষদের আন্দোলন পুরুষের বিরুদ্ধে পর বর্তমান সমাজের ক্ষতিকর কিছু আইন সংশোধন এবং সচেতনার বৃদ্ধি (পুরুষ-নারী সবাই হতে পারে) যেমন মাদকাসক্তি ও মাদক দ্রব্যের ক্ষতি সমন্ধে তরুণ-তরুনীদের নিয়ে সেমিনারের মত-বিনিময় এবং উত্ত্যক্তকরণ, যৌন হয়রানীর ক্ষতিকর প্রভাব নিয়ে ছেলে-মেয়েরা সচেতন করা ইত্যাদি সামাজিক গঠনমূলক কাজে মহিলা পরিষদ সব সময়ই অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে। আইনের বিষয় হচ্ছে ইদানিং তরুণ- তরুনীরা মৌলবাদ ও সম্প্রদায়িকতা করতে শিখেছে। তার প্রতিফলন ঘটছে সমাজের বিভিন্ন স্তরে। এখানেই মহিলা পরিষদের স্বার্থকতা। সেদিন বেশী দূর নয় যখন প্রতিটা মহিলা নিজের ইচ্ছায় মহিলা পরিষদের পতাকা তলে সমবেত হবে। নারী মুক্তি মানেই মানব মুক্তি এই ছিল সুফিয়া কামালের জীবনের বীজে মন্ত্র শুভ বৃদ্ধির মানুষ ঐক্যবদ্ধ হবেই এই আশা নিয়ে আমরা পথ পরিক্রম করছি জয়ের হোক মানব কল্যাণের, জয় হোক মহিলা পরিষদের।

 

রত্না মিত্র

অর্থ সম্পাদক

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ

দিনাজপুর জেলা শাখা