বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শেখ হাসিনা -খালেদা জিয়াকে সংলাপে বসতে বান কি মুনের চিঠি

বাংলাদেশের চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতা নিরসনে সংলাপে বসার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে পৃথক চিঠি দিয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন।

জানা গেছে, বান কি মুন গত ৩০ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লেখেন। এর কয়েক দিন পর প্রধানমন্ত্রীর কাছে চিঠিটি পৌঁছায়। একই সময়ে জাতিসংঘ মহাসচিবের পক্ষ থেকে বিএনপি চেয়ারপারসনকেও চিঠি পাঠানো হয়েছে।

চিঠিতে চলমান সহিংস রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব।

জাতিসংঘের সহকারী মহাসচিব অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকোকে সঙ্কট নিরসনে প্রয়োজনীয় দিকগুলো দেখাশোনার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলে চিঠিগুলোতে উল্লেখ করা হয়েছে। তারানকোকে সরকার ও বিরোধী দলগুলোর মধ্যে সংলাপ আয়োজনের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বলেও উল্লেখ রয়েছে। এ সব বিষয়ে তারানকোকে সহযোগিতা করার জন্য দুই নেত্রীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন মহাসচিব।

মহাসচিব আরও জানান, জাতিসংঘ বাংলাদেশের বিদ্যমান সঙ্কট নিরসনে সহযোগিতার জন্য প্রস্তুত রয়েছে।

এর আগে ২০১৩ সালের নভেম্বরে দুই নেত্রীকে চিঠি দিয়েছিলেন জাতিসংঘের মহাসচিব। ওই চিঠিতেও জাতিসংঘের সহকারী মহাসচিব অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকোকে সহযোগিতা করার জন্য দুই নেত্রীকে অনুরোধ জানিয়েছিলেন বান কি মুন। এরপর একই বছরের ৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশে আসেন অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকো।

জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিক গত সপ্তাহে নিয়মিত সংবাদ ব্রিফিংয়ে জানিয়েছেন, নতুন দায়িত্ব পাওয়ার পর অস্কার ফার্নান্দেজ তারানকো যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া বিষয়ক সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিশা দেশাই বিসওয়ালের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে বাংলাদেশের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। উভয়েই বর্তমান সহিংস পরিস্থিতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

এদিকে গত মঙ্গলবার ঢাকায় নিযুক্ত নতুন মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট তার প্রথম সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, বাংলাদেশের সমস্যা সমাধান নিজেদেরই করতে হবে। বাংলাদেশ চাইলে বন্ধু রাষ্ট্রগুলো সহায়তা করতে প্রস্তুত।

Spread the love