শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শেষ মুহুর্তের গোলে আর্জেন্টিনা কোয়ার্টার ফাইনালে

Arj ২০তম ফিফা বিশ্বকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে গেছে আর্জেন্টিনা। ২য় রাউন্ডের খেলার অতিরিক্ত ৩০ মিনিট সময়ের দ্বিতীয়ার্ধে অর্থাৎ ম্যাচের ১১৮ মিনিটে প্রতিপক্ষের ডি বক্সের ভেতর দলীয় অধিনায়ক লিওনেল মেসির দারুন এক পাস থেকে ডি মারিয়ার শটে ১-০ গোলে জয় পায় তারা। তারও আগে সাও পাওলোতে মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় রাত ১০টায় দিনের প্রথম ম্যাচে এবারের আসরের অন্যতম শিরোপা প্রত্যাশি ও টপ ফেভারিট আর্জেন্টিনার মোকাবেলা করতে মাঠে নামে সুইজারল্যান্ড। আর এ খেলায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় ম্যান অব দ্য ম্যাচও হয়েছেন লিওনেল মেসি।
এর আগে আর্জেন্টিনা ও সুইজারল্যান্ডের মধ্যকার খেলাটির নির্ধারিত ৯০ মিনিট গোল শূণ্য অবস্থায় কেটে যায়। ফলে নিয়মানুযায়ী খেলা গড়ায় অতিরিক্ত ৩০ মিনিটে। নকআউট পর্বের শেষ দিনের প্রথম খেলার অতিরিক্ত সময়ের প্রথমার্ধও গোলশূণ্য অবস্থায় কাটিয়ে দেয় দুদল। মূলত পুরো খেলায় সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে যেন কঠিন পরীক্ষাই দিয়েছে মেসি, মাসচেরানো, হিগুইন, ডি মারিয়ারা। অবশ্য পুরো খেলায় বল পজেশনে আর্জেন্টিনা এগিয়ে থাকলেও গোল করার সুযোগ বেশিই তৈরি করেছে সুইজারল্যান্ড।
ম্যাচে প্রত্যাশিতভাবেই প্রথম থেকে বল পজেশনে রাখে আর্জেন্টিনা। প্রতিপক্ষের গোলবার মুখে বেশ কয়েক বার শটও করেন উভয় দলই। তবে কেউই সফল হতে পারেনি। তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ এই পুরো খেলায়ই কেউ কাউকে ছেড়ে কথা বলেনি। আর সে কারণেই আক্রমন পাল্টা আক্রমনে জমে উঠে পুরো খেলাটি।
খেলার অতিরিক্ত সমেয়র শেষ দিকে অর্থাৎ ম্যাচের ১১৮ মিনিটে ডি বক্সের ভেতর একজনকে কাটিয়ে ডি মারিয়াকে দুর্দান্ত একটি পাস দেন মেসি। ডান দিক থেকে কোনাকুনি শটে জাল খুঁজে নিতে কোনো সমস্যা হয়নি তার। এর পর যোগ করা সময়ে ব্লেরিম জেমাইলির হেড পোস্টে লেগে ফিরে। ফিরতি বল নাপোলি মিডফিল্ডারের পা লেগে বাইরে চলে গেলে বেঁচে যায় আর্জেন্টিনা। শেষ দিকে বিপজ্জনক জায়গায় একটি ফ্রি কিক পেলেও কাজে লাগাতে না পারায় দীর্ঘ প্রায় ৬০ বছর পর দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে সুইসদের বিদায় নিশ্চিত হয়ে যায়। ১০৯ মিনিটেও আবার ত্রাতা বেনাল্লিও। ডানদিক থেকে ডি মারিয়ার জোরালো শট কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন তিনি।
দ্বিতীয় রাউন্ডের ম্যাচে নির্ধারিত ৯০ মিনিটে কোনো দলই গোল পায়নি। অতিরিক্ত সময়ের খেলাও গড়াচ্ছিল টাইব্রেকারের দিকে। তখনই মেসির দারুণ পাস থেকে গোল করে আর্জেন্টিনাকে এগিয়ে দেন আনহেল ডি মারিয়া। প্রথমার্ধে দুবার আর্জেন্টিনার গোলরক্ষককে রোমেরোকে পরীক্ষায় ফেলে সুইজারল্যান্ড। দ্বিতীয়ার্ধে স্বরূপে ফেরে আর্জেন্টিনা। মেসি, ডি মারিয়া, হিগুয়াইনদের অনেক প্রচেষ্টা রুখে দিলেও শেষ রক্ষা করতে পারেননি সুইস গোলরক্ষক দিয়েগো বেনাল্লিও।
৫৯ মিনিটে মার্কোস রোহোর শট ঠিকভাবে ফেরাতে পারেননি বেনাল্লিও। তবে কোনো বিপদ হয়নি। তিন মিনিট পর রোহোর ক্রস থেকে হিগুয়াইনের হেড ঠেকিয়ে আবারো সুইসদের ত্রাতা ভলসবুর্গের গোলরক্ষক। ৪০ মিনিটে সুযোগ এসেছিল ডি মারিয়ার সামনে। তার সঙ্গে ওয়ান টু খেলে ডি বক্সে ঢুকে পড়েন মেসি। নিজে শট না নিয়ে দেন ডি মারিয়াকে। কিন্তু রিয়াল মাদ্রিদ উইঙ্গারের শটে জোর না থাকায় ধরতে কোনো সমস্যা হয়নি বেনাল্লিওর। ৩৯ মিনিটে শাচিরির ক্রস থেকে দারুণ একটি সুযোগ এসেছিল ইয়োসিপ দারমিচের সামনে। রোমেরোকে একা পেয়েও তার হাতে তুলে দিয়ে সবর্ণ সুযোগটি হাতছাড়া করেন তিনি।
সুইসদের এ আক্রমণই তাতিয়ে দেয় দুইবারের চ্যাম্পিয়নদের। দুই মিনিট পর প্রথম সুযোগটি তৈরি করে আলেহান্দ্রো সাবেইয়ার শিষ্যরা। গনসালো হিগুয়াইনের কাঁধে লেগে ডি বক্সে বল পেলেও ঠিকভাবে মারতে না পেরে সুযোগ হাতছাড়া করেন এসেকিয়েল লাভেস্সি। পরের মিনিটে আনহেল ডি মারিয়ার কর্নার থেকে সুযোগ এসেছিল আর্জেন্টিনার সামনে। তার চমৎকার কর্নারে এসেকিয়েল গারায় মাথা ছোঁয়াতে পারলেই এগিয়ে যেতে পারতো আর্জেন্টিনা। ২৭ মিনিটে প্রথম সুযোগটি পায় সুইজারল্যান্ড। জেরদান শাচিরির কাছ থেকে বল পেয়ে ডি বক্সের ভেতর থেকে গ্রানিট জাকার শট ঠেকান রোমেরো। ফিরতি বলে স্টেফান লিখটস্টাইনারের শটও ঠেকান আর্জেন্টিনার গোলরক্ষক।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email