রবিবার ২৬ জুন ২০২২ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শেষ মূহুর্তে জমে উঠেছে সীমান্ত জেলা দিনাজপুরে ঈদ বাজার

Eid-Marketশেষ মূহুর্তে সীমান্ত জেলা দিনাজপুরে জমে উঠেছে জমে উঠেছে ঈদ বাজার। ফুটপাত থেকে শুরু করে অভিজাত বিপণি-বিতানগুলোতে বেড়েছে পছন্দের কাপড় কিনতে ক্রেতাদের ভিড় । সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত বিপণি বিতানগুলো চলছে উৎসব মুখর পরিবেশ। রকমারি ডিজাইন ও বাহারী রঙের পণ্যের পসরা সাজিয়ে বসেছেন দোকানিরা।আকর্ষণীয় পণ্যে ঢেলে সাজানো মার্কেটগুলোতে বেড়েছে ক্রেতা সমাগম। ক্রেতাদের নজর কাড়তে বিভিন্ন দোকানিরা আলোকসজ্জার পাশাপাশি নতুন রঙে সাজিয়ে তুলেছে দোকানগুলি। তবে গত বছরের তুলনায় এবার বেশি দাম হাঁকাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। এমন অভিযোগ ক্রেতাদের। কিন্তু বিক্রেতারা বলছেন, গত বছরের তুলনায় এবার বিক্রি ভালই হচ্ছে। তাদের ব্যবসাও ভালো যাচ্ছে। নিজেদের পছন্দনীয় নিত্য-নতুন ডিজাইনের পোশাক কিনতে এক দোকান থেকে অন্য দোকানে ছুটছেন ক্রেতারা।সরজমিন ঘুরে দেখা গেছে, দিনাজপুর শহরের ষ্টেশন রোডস্থ জাবেদ সুপার মার্কেট, উত্তরা সুপার মার্কেট,আব্দুর রহিম সুপার মার্কেট,সিঙ্গাপুর মার্কেট, মুন্সিপাড়া রোডে লুৎফর নেছা টাওয়ার, গনেশতলা গুলশান মার্কেট,জেল রোডস্থ রেইনবো সুপার মার্কেট, মডার্ণ মোড়স্থ আবেদীন প্লাজা, মালদহপট্রিস্থ নুরজাহান মাকের্টসহ বিভিন্ন দোকানে পাল্লা দিয়ে চলছে কেনাকাটা। বিগত বছরের তুলনায় এবার ভারতীয় পণ্যের চাহিদা বেশি। পোশাকের জগতেও এসেছে বৈচিত্র্য। ক্রেতাদের চাহিদার কথা ভেবে ব্যবসায়ীরা ছেলেদের জন্য সর্ট পাঞ্জাবী, ফ্যাশনেবল পাঞ্জাবী ও বিভিন্ন ব্র্যান্ডের শার্ট আর মেয়েদের জন্য ইন্ডিয়ান পাখি লংস্কার্ট, পাখি লেহেঙ্গা, পিউ লংস্কার্ট আকৃষ্ট করছে ক্রেতাদের।ঈদের কাপড় কিনতে আসা তনুজা শারমিন জানান, পাখি ড্রেসের কাপড় আমার পছন্দ তাই পাখি লংস্কার্ট কিনলাম। তবে এসব পণ্যের দাম একটু বেশি হলেও ক্রেতাদের নাগালের ভিতরেই রয়েছে বলে জানান বিক্রেতারা। জাবেদ সুপার মার্কেট এর ব্যবসায়ী রবিউল জানান, এবার পাখি, পিউ এবং ক্যাটরিনার পোশাক ক্রেতাদের পছন্দের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে। অন্যদিকে শাড়ির দোকানে আকর্ষণ বাড়াতে সাঁটানো হয়েছে ব্যানার ফেষ্টুন। সিল্ক, বেনারসি, টাঙ্গাইল প্রিট, জামদানি, কাতান শাড়ির কদর বেশি বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। বিভিন্ন পোশাক ও শাড়ির সঙ্গে ম্যাচিং করে কসমেটিক্সের দোকানে চুড়ি, লিপস্টিক, নেলপালিশ কেনাতেও ধুম পড়েছে। জেল রোডের ফুটপাতের দুল-চুড়ির দোকানগুলোতে বেড়েছে মহিলা ক্রেতাদের ভিড়। জুতার দোকানেও প্রচুর ভিড় বেড়েছে।

কাপড়ের পাশাপাশি জামা ও পায়জামা বানানোর জন্য দর্জি দোকানেও উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। কাকডাকা ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত সেলাই কাজে ব্যস্ত কারিগররা।

অন্যদিকে ক্রেতা-বিক্রেতাদের নিরাপত্তায় চুরি, ছিনতাই, চাঁদাবাজি ও নাশকতা রোধে কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা নিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। প্রতিটি মার্কেটে রয়েছে বাড়তি পুলিশ। এছাড়াও ভ্্রাম্যমান র‌্যাবের টহল রয়েছে। রাস্তাগুলোতে ট্রাফিক ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email