রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শেষ হলো অমর একুশে গ্রন্থমেলা

আজ সন্ধ্যা ৬টায় শেষ হলো অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৫। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা ভাষণ দেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান।

গ্রন্থমেলার প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৫’র সদস্য সচিব ড. জালাল আহমেদ। এছাড়াও বক্তব্য রাখেন গ্রন্থমেলা আয়োজন সহযোগী টেলিটক বাংলাদেশের উপমহাব্যবস্থাপক শাহ জুলফিকার হায়দার এবং লন্ডনে বাংলা একাডেমি বইমেলা আয়োজনের সংগঠক গোলাম মোস্তফা।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য প্রদান করেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য প্রদান করেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. রণজিৎ কুমার বিশ্বাস এনডিসি। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির সভাপতি এমেরিটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামান।

স্বাগত ভাষণে শামসুজ্জামান খান বলেন, অমর একুশে গ্রন্থমেলার সমাপনী আমাদের জন্য একই সঙ্গে আনন্দ ও বেদনার বিষয়। সফলভাবে বিশাল গ্রন্থমেলা সম্পন্ন করতে পারা যেমন আমাদের জন্য আনন্দের তেমনি বইমেলার শেষ দিকে মৌলবাদী সন্ত্রাসীদের হামলায় যুক্তিবাদী-চিন্তাশীল লেখক অভিজিৎ রায়ের মৃত্যু আমাদের জন্য অত্যন্ত বেদনাবহ ঘটনা।

তিনি বলেন, স্বপ্নের গ্রন্থমেলাকে আমরা প্রত্যাশার দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দিতে আগামী দিনগুলোতে নিরন্তর কাজ করে যাবো।
প্রতিবেদন উপস্থাপন করে ড. জালাল আহমেদ বলেন, এবার বাংলা একাডেমির অমর একুশে গ্রন্থমেলা নতুন পরিসরে ও বৈশিষ্ট্যে গোটা বাঙালি জাতির প্রাণের মেলাতে পরিণত হয়েছে।

অমর একুশে গ্রন্থমেলায় গত ২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রকাশিত বিভিন্ন বিষয়ে আজ পর্যন্ত বিভিন্ন বিষয়ে নতুন বই এসেছে ৩৭০০টি। গতকাল ২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাংলা একাডেমি ১ কোটি ৫০ লাখ টাকার বই বিক্রি করেছে। আজকের বিক্রিসহ একাডেমির মোট বিক্রি হবে আনুমানিক ১ কোটি ৬০ লাখ টাকা। ২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাংলা একাডেমিসহ গ্রন্থমেলায় মোট বিক্রির পরিমাণের সঙ্গে আজকের বিক্রির সম্ভাব্য টাকা যুক্ত করলে এই মেলায় সর্বমোট বিক্রয়ের পরিমাণ (বাংলা একাডেমিসহ) ২১ কোটি ৯৫ লাখ টাকা।
২০১৪ সালে সর্বাধিক সংখ্যক গুণমানসম্মত গ্রন্থ প্রকাশের জন্য মাওলা ব্রাদার্স-কে ‘চিত্তরঞ্জন সাহা স্মৃতি পুরস্কার’, মুর্তজা বশীরের আমার জীবন ও অন্যান্য গ্রন্থ প্রকাশের জন্যে বেঙ্গল পাবলিকেশন্স লিমিটেডকে, রবীন্দ্রসমগ্র খণ্ড-২৩ প্রকাশের জন্যে পাঠক সমাবেশ-কে ‘শহিদ মুনীর চৌধুরী স্মৃতি পুরস্কার’, ২০১৪ সালে সর্বাধিক সংখ্যক গুণমানসম্মত শিশুতোষ গ্রন্থ প্রকাশের জন্য সময় প্রকাশন-কে ‘রোকনুুজ্জামান খান দাদাভাই স্মৃতি পুরস্কার’ হিসেবে ২৫ হাজার টাকার চেক, সনদ ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

২০১৫ সালের অমর একুশে গ্রন্থমেলায় অংশগ্রহণকারী প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে থেকে নান্দনিক অঙ্গসজ্জায় প্যাভিলিয়ন ক্যাটাগরিতে দি ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেড-কে ২০ হাজার টাকার চেক, ক্রেস্ট, সনদ ও স্টল ক্যাটাগরিতে প্রথমা প্রকাশন এবং জ্যার্নিম্যান বুকস্-কে ‘শিল্পী কাইয়ুম চৌধুরী স্মৃতি পুরস্কার’ হিসেবে প্রতিটিকে ১৫ হাজার টাকা করে চেক, সনদ ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, গ্রন্থমেলাকে কেন্দ্র করে নতুন নতুন প্রকাশক এবং পাঠক প্রজন্ম গড়ে উঠছে। এর মধ্য দিয়ে দেশে যেমন বুদ্ধিবৃত্তিক জাগরণের ভিত্তি তৈরি হচ্ছে। তিনি বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে অশুভশক্তি যখন মুক্তচিন্তার দিকে ঘাতক হয়ে তেড়ে আসছে তখন আমাদের সবাইকে এর বিরুদ্ধে সোচ্চার ভূমিকা পালন করতে হবে।

সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন কণ্ঠশিল্পী আবদুল জব্বার, শাম্মী আখতার, তপন মাহমুদ, ফেরদৌস আরা, অদিতি মহসিন, সুজিত মোস্তফা, তালাত সুলতানা, ফারহানা ফেরদৌসী তানিয়া, মোঃ সারোয়ার হোসেন এবং পারভীন আক্তার। যন্ত্রাণুষঙ্গে ছিলেন ইফতেখার আলম প্রধান (তবলা), গাজী আবদুল হাকিম (বাঁশি), মোঃ আলাউদ্দিন মিঞা (বেহালা) এবং সুনীল কুমার সরকার (কী-বোর্ড)।

Spread the love