বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা সেমিফাইনালে

বিশ্বকাপের প্রথম কোয়ার্টার ফাইনালে শ্রীলঙ্কাকে ৯ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে দক্ষিণ আফ্রিকা।

টসে জিতে আগে ব্যাটিং করে শ্রীলঙ্কা ৩৭.২ বলে সবকটি উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৩৩ রান সংগ্রহ করে। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ১৮ ওভারেই ১ উইকেট হারিয়ে সহজেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৫ম অর্ধশতক হাঁকিয়েছেন কুইন্টন ডি কক ব্যাট করছেন। ডি কক ১১টি চারের সাহায্যে ৫৭ বলে সর্বোচ্চ ৭৮ রানের দারুণ ইনিংস খেলেন।ফাফ ডু প্লেসিস ৩১ বলে ২১ রান করেন। ছোট টার্গেট তাড়া করতে নেমে প্রোটিয়া ওপেনার হাশিম আমলা সাজঘরে ফেরেন দলীয় ৪০ রানের মাথায়। ইনিংসের ৭ম ওভারের ৪র্থ বলে কুলাসেকারার তালুবন্দি হন আমলা। মালিঙ্গার শিকারে সাজঘরে ফেরার আগে ২৩ বলে ১৬ রান করেন তিনি।
এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৩৭.২ বলে সবকটি উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৩৩ রান সংগ্রহ করে শ্রীলঙ্কা। শ্রীলঙ্কার পক্ষে কুমার সাঙ্গাকারা ৯৬ বলে সর্বোচ্চ ৪৫ রান করেন। এছাড়া লাহিরু থিরিমান্নে ৪৮ বলে ৪১ ও এঞ্জেলো ম্যাথুন ৩৭ বলে ১৯ রান করেন। দক্ষিণ আফ্রিকার বোলারদের মধ্যে ইমরান তাহির ৪ ও জেপি ডুমিনি ৩টি উইকেট নিয়েছেন।
এর আগে সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় লঙ্কান অধিনায়ক এঞ্জেলো ম্যাথুস। ইনিংসের ২য় ওভারেই উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা। কাইল এবোটের করা ১ম ওভারের ৪র্থ বলে উইকেটরক্ষক কুইন্টন ডি ককের অসাধারণ এক ক্যাচে ব্যক্তিগত ৩ রান করে সাজঘরে ফেরেন কুশাল পেরেরা। লঙ্কান আরেক ওপেনার দিলশানকে ফেরান ডেল স্টেইন। ইনিংসের ৫ম ওভারের ১ম বলে ফাফ ডু প্লেসিসের তালুবন্দি হয়ে শূন্য রানেই ফেরেন দিলশান। ফলে দলীয় ৪ রানেই কুশাল ও দিলশানকে বিপাকে পড়ে শ্রীলঙ্কা। এরপর সাঙ্গাকারা ও লাহিরু থিরিমান্নে দেখেশুনেই ব্যাট করতে থাকে কিন্তু ২০তম ওভারের ১ম বলে ৪৮ বলে ৪১ রানে করে লাহিরু থিরিমান্নে আউট হয়ে সাজঘরে ফিরেন।
লাহিরু থিরিমান্নে আউট হওয়ার পর ব্যাটিং ক্রিজে আসেন মাহেলা জয়াবর্ধনে। তবে, এ ম্যাচেও ব্যর্থ তিনি। ইমরান তাহিরের দ্বিতীয় শিকারে ফাফ ডু প্লেসিসের তালুবন্দি হয়ে আউট হওয়ার আগে জয়াবর্ধনে করেন ১৬ বলে মাত্র ৪ রান। দলীয় ৮১ রানের মাথায় টপঅর্ডারের ৪ ব্যাটসম্যান ফিরে গেলে সাঙ্গাকারা এবং লঙ্কান দলপতি এঞ্জেলো ম্যাথুজ দলের হাল ধরার চেষ্টা করেন। তবে ইনিংসের ৩৩তম ওভারে জেপি ডুমিনির করা শেষ বলে ডু প্লেসিসের তালুবন্দি হয়ে ফেরেন লঙ্কান দলপতি। আউট হওয়ার আগে তিনি ৩২ বলে ১৯ রান করেন। এরপর ইমরান তাহির ফেরান থিসারা পেরেরাকে।
আর পরের ওভারের প্রথম দুই বলে কুলাসেকারা এবং অভিষেক ম্যাচে নামা থারিন্ডু কুশলকে ফেরান ডুমিনি। বিশ্বমঞ্চে হ্যাটট্রিক করার গৌরব অর্জন করেন ডুমিনি। শেষ ভরসা হিসেবে থাকা কুমার সাঙ্গাকারাকেও ফিরিয়ে দিয়েছে প্রোটিয়ারা। মরনে মরকেলের বলে ডেভিড মিলারের তালুবন্দি হন সাঙ্গাকারা। আউট হওয়ার আগে তিনি ৯৬ বলে ৪৫ রান করেন। ফলে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ দাঁড়ায় ৯ উইকেট হারিয়ে ১২৭ রান। এরপর ৩৮তম ওভারের ২য় বলে মালিঙ্গা ৩ রান করে আউট হওয়ায় ১৩৩ রানে থেকে যায় লঙ্কানদের ইনিংস। পাওয়ার প্লে’তে (১০ ওভার শেষে) শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ছিল ২ উইকেট হারিয়ে ৩৫ রান।
গ্রুপপর্ব থেকে শেষ আটে আসার ধারাতে মিল রয়েছে দুই দলের। পুল ‘এ’ থেকে আসা শ্রীলঙ্কার ৬ ম্যাচে ৪ জয়ে পয়েন্ট ৮। পুল ‘বি’ থেক দক্ষিণ আফ্রিকা দলও ৮ পয়েন্ট নিয়ে কোয়ার্টারে পা রাখে। মুখোমুখি লড়াইয়েও দুই দলের সমান দাপট। ওয়ানডেতে দুই দল মুখোমুখি হয়েছে ৫৯ বার। এর মধ্যে শ্রীলঙ্কা জিতেছে ২৯ বার। আর দক্ষিণ আফ্রিকার জয় ২৮ বার। একটি ম্যাচ টাই ও একটি পরিত্যক্ত হয়েছে।
বিশ্বকাপে দুই দলের দেখা হয়েছে ৪ বার। ১৯৯২ বিশ্বকাপে প্রোটিয়াদের হারিয়েছিল লঙ্কানরা। ১৯৯৯ বিশ্বকাপে ফিরতি দেখায় ৮৯ রানে জয় পায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ২০০৩ বিশ্বকাপে ডাক ওয়ার্থ লুইস মেথডে ম্যাচটি টাই হয়। আর চতুর্থবার দেখা হয় ২০০৭ বিশ্বকাপে। গায়ানার প্রভিডেন্স স্টেডিয়ামে শ্বাসরুদ্ধকর সেই ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে এক উইকেটে হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা।

Spread the love