মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সদর উপজেলার ভোটারদের সাথে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আজিজুল ইমাম চৌধুরীর মতবিনিময়

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥দিনাজপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে সদর উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার ভোটারদের সাথে মতবিনিময় করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আজিজুল ইমাম চৌধুরী।

এ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় দিনাজপুর শহরের বন্ধন কমিউনিটি সেন্টারে মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন দিনাজপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইমদাদ সরকার।

বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আজিজুল ইমাম চৌধুরী।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও ৪নং শেখপুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোমিনুল ইসলাম, দিনাজপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র আবু তৈয়ব আলী দুলাল, ৩নং ফাজিলপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অভিজিত বসাক, ৬নং আউলিয়াপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মোস্তফা কামাল, দিনাজপুর পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর কাজী আশরাফুজ্জামান বাবু, ৭নং উথরাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রুহুল আমিন, ২নং সুন্দরবন ইউনিয়ন পরিষদের ২নং ওয়ার্ডের সদস্য হীরেন্দ্র নাথ রায়, ৪নং শেখপুরা ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত ৩নং ওয়ার্ডের সদস্য সুমিত্রা রানী রানী, ৫নং শশরা ইউনিয়ন পরিষদের ৩নং ওয়ার্ডের সদস্য আফজাল হোসেন শাহ, ৬নং আউলিয়াপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ওয়ার্ডের সদস্য শাহ রানা, ৭নং উথরাইল ইউনিয়ন পরিষদের ৪নং ওয়ার্ডের সদস্য দারুল জালাল, ৮নং শংকরপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৯নং ওয়ার্ডের সদস্য মোছাদ্দেক আলী, ৯নং আস্করপুর ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত ১নং ওয়ার্ডের সদস্য জাকিয়া সুলতানা।

আজিজুল ইমাম চৌধুরী বলেন, আমি ১০ বছর দিনাজপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছি। আমি যখন প্রথম জেলা পরিষদের প্রশাসক পদে বসি। প্রথম দিন আমার কাছে জেলা পরিষদের মূল ভবন ভেঙ্গে ফেলার ফাইল আসে। আমি পরবর্তীতে মূল ভবন ভেঙ্গে ফেলার ফাইলটি বাতিল করি। কেননা জেলা পরিষদের মূল ভবনটি আমাদের অনেক অতীত। এই পুরাতন ভবনটি কিভাবে সংরক্ষণ করা যায় তা আমাদের চিন্তা করতে হবে। আমি স্থাপত্য বিভাগের সাথে যোগাযোগ করে আমি ভবনটি যাতে ৫০০ বছর টিকিয়ে রাখা যায় সেই পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। আমি জেলা পরিষদে ১০ বছর দায়িত্ব পালন করেছি। এর মধ্যে অনেক কাজ করেছি। আজ পর্যন্ত আমাকে এই চেয়ারে বসে এককাপ চা খাওয়াতে পারেনি। কোন কর্মকর্তা বা কর্মচারীর বিরুদ্ধে কারো অভিযোগ থাকলে আমি বলেছি আমার কাছে অভিযোগ দেও। আমি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিব। প্রয়োজনে তাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমনে জানাব। কিন্তু আজ পর্যন্ত কারো বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ আসেনি। আমার হাতে যত বাজেট আসে, তা আমি দল মত নির্বিশেষে সকলের মাঝে সমানভাবে বন্টন করে দেই।