বৃহস্পতিবার ১১ অগাস্ট ২০২২ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সফল নারী কসাই বীরগঞ্জের জমিলা

শেখ মো. জাকির হোসেন, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর)॥ প্রতিকুলতা ডিঙ্গিয়ে পুরুষের সাথে সমান তালে লড়াই করে চলা সফল দিনাজপুরের বীরগঞ্জে নারী কসাই জমিলা (৪৮)। কসাই হিসেবে নিজেকে স্বাবলম্বী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে জামিলাকে সমাজের নানা বাধা পেরুতে হয়েছে। জমিলা একজন সফল নারী উদ্যোক্তা হলেও অজ পাড়াগ্রায়ে তার জীবনযুদ্ধটা সহজ ছিল না। নানা প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে নিজেকে সফল নারী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন তিনি।
দিনাজপুরের বীরগঞ্জের শতগ্রাম ইউনিয়নের ঝাড়বাড়ী বাজার। এই গ্রাম্য বাজারের কসাই জমিলা। ২০ বছরের টানা অভিজ্ঞতায় এখন গরুর গায়ে হাত দিলেই বুঝতে পারেন, পশুটি সুস্থ নাকি রোগাক্রান্ত। অসুস্থ গরু শত অভাবে পড়েও কখনো কেনেননি তিনি। ফলে তার কোনো গরু কিনে আনার পর জবাইয়ের আগ পর্যন্ত অসুখে পড়ে কখনো মরেনি। জমিলা বেগম এখনো নিজে হাটে গিয়ে দেখে শুনে গরু কেনেন।
তার ‘মায়ের দোয়া মাংস ভাণ্ডার’ দোকানের বৈশিষ্ট্য হচ্ছে মাংস হাঁড় থেকে আলাদা করে বিক্রি করা হয় এখানে। এরপর ডিজিটাল দাঁড়িতে মেপে বিক্রি করা করা হয়। বিয়ে বাড়ি, আকিকা, খতনাসহ আশপাশের গ্রাম-শহরের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে জমিলার দোকানের মাংস যায়। দুই দশকের টানা অভিজ্ঞতায় তিনি ক্রেতাদের কাছে হয়ে উঠেছেন বিশ্বস্ত। এলাকায় এখন ‘জমিলা কসাই’ নামেই পরিচিত তিনি।
প্রতিদিন তিন-চারটি, শুক্রবারে আট-দশটি গরুর মাংস নিজ হাতে কেটে বিক্রি করেন তিনি। ব্যবসায়ী জমিলা বেগমের মাংসের ক্রেতা দিনাজপুর জেলাসহ পাশের নীলফামারী, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড় জেলার মানুষ।
নিজের কসাই হয়ে ওঠা প্রসঙ্গে জমিলা বলেন, ‘স্বামী চলে যাওয়ার পর প্রথম যখন দোকানে বসা শুরু করি তখন অনেকেই বিরোধিতা করেছিল। এলাকার কিছু লোক থানায়, ইউনিয়ন পরিষদে আমার নামে অভিযোগ দিয়েছিল। কিন্তু এলাকার সবাই তো এক রকম না। কয়েকজন আমার পাশে দাঁড়িয়েছিলেন সে সময়।’ তবে বর্তমানে সবাই তাঁকে উৎসাহ জোগান, সাহস দেন বলেও জানান তিনি। এই বাজারে মাংস ব্যবসায়ী রয়েছেন আরও চারজন।
জানা যায়, চার বোন ও এক ভাইয়ের মধ্যে জমিলা মা-বাবার তৃতীয় সন্তান। কোনো দিন স্কুলের বারান্দায় যাওয়া হয়নি জমিলা বেগমের। কিন্তু জীবনের হিসাব ঠিকই মেলাতে পেরেছেন তিনি। ১৫ বছর বয়সে জমিলার বাবা পান ব্যবসায়ী জাকির হোসেন মেয়েকে বিয়ে দেন বগুড়ার গোকুল উত্তর পাড়ার ছ’মিল বন্দর এলাকার রফিকুল ইসলাম ভান্ডারীর সঙ্গে। তিনিও পেশায় একজন কসাই। প্রথম প্রথম ভালোই চলছিল দিনগুলো। এক সন্তান জন্মের কিছুদিন পর স্বামী রফিকুল ইসলাম ভান্ডারী মাদকাসক্ত হয়ে পড়েন। ব্যবসাটাও খুইয়ে ফেলেন। ২০০০ সালের শেষ দিকে স্বামী–সন্তানসহ বাবার বাড়ী বীরগঞ্জের ঝাড়বাড়ী এলাকায় চলে আসেন জমিলা। বাবার সামান্য জমি বিক্রি করে বাজারে একটি দোকানে স্বামীসহ আবারও মাংসের দোকান শুরু করেন। ছেলে জহুরুল তখন নবম শ্রেনীর ছাত্র। ব্যবসা ভালো চলছিল। পরিবারেও শান্তি ফেরে আবার। বিভিন্নভাবে মানুষের কাছ থেকে আড়াই লাখ টাকা ধার করে স্বামী রফিক এক সময় নিখোঁজ হন। জমিলা তখন তিন মাসের সন্তানসম্ভবা। এ সময় জমিলার বাবা তাঁর পাশে দাঁড়ান। পড়াশোনা ছেড়ে দিয়ে একমাত্র ছেলে জহুরুলও মায়ের পাশে দাঁড়ান। সেই থেকে এখন পর্যন্ত শক্ত হয়ে দাঁড়িয়ে আছেন জমিলা। এক ছেলে, ছেলের বউ আর মেয়ে সোহাগীকে (১৪) নিয়ে সুখের সংসার। বাবার ভিটের পাশেই কিনেছেন আরও ১০ শতাংশ জমি।
ছেলেকে ছোট থেকে ব্যবসায় সঙ্গী করতে হয়েছে বলে লেখাপড়া করাতে পারেননি। তবে মেয়ে সোহাগী আক্তার নবম শ্রেণিতে পড়ে।
সোহাগী আক্তার জানায়, সে ঝাড়বাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রী। শুরুতে অনেকেই বলত- তোর মা কসাই, মিশতে চাইত না কেউ কেউ। তবে ভালো ছাত্রী হয়ে সে সমস্যার সমাধান করেছে।
জমিলা বলেন, মেয়েকে সময় দিতে না পারলেও সে বিদ্যালয়ে যাচ্ছে কিনা, পড়ছে কিনা খবর রাখি। মেয়েকে উচ্চশিক্ষিত করতে চাই। যতদিন বাঁচি কসাইয়ের ব্যবসা চালিয়ে যাব।
জমিলাকে নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর সারাদেশে আলোচিত হয় জমিলা। বিবিসিসহ দেশের উচ্চ পর্যায়ের গণমাধ্যমগুলো তাকে নিয়ে সংবাদ প্রকাশের ফলে উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ জয়িতা হন তিনি।
দিনাজপুর জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়ে অর্থনৈতিক ভিত্তিতে সফল ক্যাটাগরিতে এই সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেওয়া হয়।
শতগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান মো. মতিয়ার রহমান মতি বলেন , জমিলা কসাই ঝাড়বাড়ী বাজারে মাংস বিক্রি করেন। তার সুনাম কয়েকটি জেলায় ছড়িয়ে পড়েছে। অনেক দূর-দুরান্ত থেকে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের জন্য জমিলা কসাইয়ের নিকট মানুষ মাংস ক্রয় করে নিয়ে যায়। ওজন, দাম গুনগত মান বজায় রেখেই তিনি মাংস বিক্রি করেন বলে এলাকায় সাধারণ ক্রেতাদের কাছে তিনি বেশ জনপ্রিয়তা লাভ করেছেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email