শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সব শ্রেণী-পেশার মানুষের কথা চিন্তা করে বাজেট দেয়া হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী

Pm Hasinaআজ শনিবার জাতীয় সংসদের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, সব শ্রেণী-পেশার মানুষের কথা চিন্তা করে বহুমুখী বাজেট দেয়া হয়েছে। আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের কথা মাথায় রেখে অর্থমন্ত্রী বাজেট দিয়েছেন। ঘাটতি বাজেট প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বাজেট ঘাটতি পাঁচ ভাগ। এটা কোনো ঘাটতি না। সকল দেশেই বাজেট ঘাটতি থাকে। ‘রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা’ নিশ্চিতের উপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত দেশের তালিকায় থাকবে। তিনি বলেন, এ বাজেট বাস্তবায়ন হলে আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন আরো বৃদ্ধি পাবে, মানুষ উন্নত জীবন-যাপন করবে। এ সময় তিনি কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন নিশ্চিত করতে ‘রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা’ নিশ্চিত করার উপরও গুরুত্বারোপ করেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০২১ সালের আগেই বাংলাদেশ মধ্য আয়ের দেশে পরিণত হবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস। আমরা ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে পরিণত হব। সেক্ষেত্রে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা দরকার। তিনি বলেন, দেশের মানুষের স্বপ্ন পূরণই একমাত্র লক্ষ্য। আর সে লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।
এদিকে প্রধানমন্ত্রী বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদকে ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়ে নির্বাচনে এসেছেন। আমাকে সমালোচনা করেছেন। গঠনমূলক সমালোচনা। রওশন এরশাদ তার বাজেট বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আপনি যদি বঙ্গবন্ধু কন্যা হয়ে থাকেন তাহলে খাদ্যে বিষ বন্ধ করুন। আপনার মনে দেশের মানুষের জন্য দরদ নেই? বিষ বন্ধ করবেন না?
প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে বিরোধীদলীয় নেতাকে উদ্দেশ্য করে বলেন, খাদ্যে ভেজাল বা ফরমালিন আছে- তা উনি জানতেনই না, যদি না সরকার তা ধরার উদ্যোগ নিতো। মানুষ কীভাবে বাঁচে। নদীর পানি দূষিত, বলেছিলেন রওশন এরশাদ। জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, তারা ক্ষমতায় ছিলেন। তারা শুরু থেকে ব্যবস্থা নিলে এ অবস্থা হতো না।
রওশন এরশাদ বলেন, আপনি ভালো পানি খাচ্ছেন বলে বুঝতে পারছেন না। মানুষ তো খাচ্ছে না। প্রধানমন্ত্রী তার বক্তৃতায় হাসতে হাসতে রওশন এরশাদের সামনে রাখা সুবজ রঙের একটি বোতলের দিকে ইঙ্গিত করে বলেন, আমি দেশি পানিই খাচ্ছি। তাকিয়ে দেখেন ওনার টেবিলে। উনি সবুজ বোতলে বিদেশি পানি খাচ্ছেন। এ কথা বলে প্রধানমন্ত্রী তার টেবিলে রাখা গ্লাসে পানি পান করেন।
অপরদিকে রপ্তানি বৃদ্ধির উপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য, চামড়া, প্লাস্টিক পণ্য এবং তথ্য-প্রযুক্তিতে যারা বিনিয়োগ করতে চান- তাদের সুযোগ দেয়া হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী প্রস্তাবিত বাজেটে শুল্কারোপের কয়েকটি প্রস্তাব পুনঃবিবেচনার এবং মোবাইল ফোনের ব্যবহারের ওপর সারচার্জ আরোপের কথা বলেন।  স্বাস্থ্য ও পরিবেশে সারচার্জ আরোপকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, এটা আগে ছিল না, এটা নতুন প্রস্তাব- এজন্য আপনাকে (অর্থমন্ত্রী) ধন্যবাদ জানাই।
দেশীয় শিল্পকে প্রটেকশন করায় কিছু করারোপ করা হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা দেশে মোবাইল সেট তৈরির পক্ষে। আমরা চাই এ শিল্প দ্রত বিকাশমান হয়ে উঠুক। কিন্তু ব্যবহারের হার এতো বেশি যে দেশীয় উদ্যোক্তরা আমাদের প্রয়োজনীয় সেট সরবরাহ করতে পারছে না। তাই সেট ও যন্ত্রাংশ আমদানির ওপর কর বাদ দেয়া উচিত। অর্থমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে শেখ হাসিনা বলেন, মোবাইল ফোনের আমদানির ওপর শুল্ক বৃদ্ধির প্রস্তাব কিছুটা বেশি হয়ে গেছে। আমদানির ওপর শুল্ক কিছুটা হ্রাস করতে পারেন। তিনি মোবাইল ফোন ব্যবহারের ওপর সার চার্জ আরোপের প্রস্তাব দিয়েছেন। আদায় হওয়া সার চার্জ শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে ব্যবহারেরও প্রস্তাব দেন তিনি। আজ শনিবার সকালে জাতীয় সংসদে অধিবেশনে ২০১৪-১৫ অর্থবছরের বাজেটের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী এ প্রস্তাব দেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, সব শ্রেণী-পেশার মানুষের কথা চিন্তা করে বহুমুখী বাজেট দেয়া হয়েছে।
এলপিজি সিলিন্ডার আমদানির ওপর শুল্ক বাড়ানোর প্রস্তাব পুনঃবিবেচনার ওপর সুপারিশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পাইপ লাইনের মাধ্যমে গ্যাসের অপচয় আর করা যাবে না। এলপিজি সিলিন্ডার আমাদের দেশেও তৈরি হচ্ছে। কিন্তু তা যথেষ্ট না। এলপিজি সিলিন্ডার সহজ শর্তে আমদানি প্রয়োজন। আবাসন শিল্পের ওপর উৎস কর বাড়ানোর যে প্রস্তাব করা হয়েছে- তা কিছুটা নমনীয় করার প্রস্তাব করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আবাসন শিল্প কিছুটা মন্দা যাচ্ছে। সাবান ও ডিটারজেন্টের উপর অতিরিক্ত শুল্কারোপের প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। এটা প্রত্যাহার হলে অসুবিধা হবে না।
পুঁজিবাজার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পুঁজিবাজার এবং এর উন্নয়নে নেয়া সংস্কার অব্যাহত রাখতে হবে। পুঁজিবাজারের যে ব্যবস্থা চালু করেছি- তা যেনো স্থিতিবস্থায় থাকে।
প্রধানমন্ত্রী প্রস্তাবিত বাজেটকে অত্যন্ত সময়োপযোগী হিসাবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রত্যেকটি শ্রেণি-পেশার মানুষের সমস্যা দূর করতে এমন একটি বাস্তবমুখী বাজেট দেয়া হয়েছে। কেউ সমালোচনা করার সুযোগ পায়নি। যারা প্রস্তাবিত বাজেটের সমালোচনা করছেন, তাদের পাল্টা সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যত ভালো কাজই করেন না কেনো- কারো কোনো কিছুই ভাল লাগে না। সব কিছুতেই কিন্তু ভুল খোঁজেন। রাতে না ঘুমিয়ে মধ্যরাতে সমালোচনা করে কি আনন্দ পান-আমি তা জানি না
সুইস ব্যাংকে গচ্ছিত বাংলাদেশের নাগরিকদের অর্থ ফেরত আনতে সরকারের উদ্যোগের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সুইস ব্যাংকে থাকা অর্থের তালিকা চেয়েছি। সে টাকা যতদূর সম্ভব ফেরত এনে দেশের মানুষের উন্নয়নে ব্যয় করবো। তিনি বলেন, ডিসেম্বরে বেতন কমিশনের প্রতিবেদন পেলে সরকারি কর্মকর্তাদের বেতন আরেকদফা বৃদ্ধি করা হবে।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email