রবিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ৯ই আশ্বিন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সমস্যা,সম্ভাবনা এবং বীরগঞ্জ…

তেৌফিক রয়েল

আমার বাবা যখন বীরগঞ্জে জমি কেনেন তখন জমির দাম ছিল ৮-৯ হাজার টাকা শতক, তাও প্রাইম লোকেশনে,
এখন সেটা ৩-৪ লাখ এ গিয়ে ঠেকেছে(কখনো কখনো আরো বেশী)।যেখাণে রাজশাহি- রংপুরে ৪-৫ লাখ টাকায় ১ কাঠা জমি পাওয়া যায় সেখাণে বীরগঞ্জ এ জমির এত দাম কেন?
কারণ বীরগঞ্জ ভৌগোলীক ভাবে ভাল অবস্থানে, আর টাকাওয়ালা এখন অনেক বেশি
এই কথা গুলো দিয়ে এটাই বোঝাতে চাচ্ছি যে,বীরগঞ্জ এ টাকা ওয়ালা মানুষ অনেক আছে।
কিন্তু
কাজের এতো অভাব কেন???
বেকারত্তের সমস্যা এত বাড়ছে কেন??
কেনই বা মাদক এর এত ছড়াছড়ি??
কারন হতে পারে,কাজের অ
ভাব…টাকাওয়ালা মানুষ দের উৎপাদনশীল কাজে বিনিয়োগ না করা,বিনিয়োগ না থাকলে কাজ থাকে না,কাজ না থাকলে মানুষ বেকার হয়,আর এই বেকারত্তের আড়ালেই ঢুকে পরে মাদক সহ আর অনেক সামাজিক ব্যাধি,বলছি না,শুধু এ কারণেই মাদক ছড়ে যাচ্ছে,আরো কারন অবশ্যই আছে।
যাই হোক,সমালোচনা করাই যায়,কিন্তু খেয়াল রাখতে হবে তা কতটা গঠনমুলক…

এবার আসা যাক বীরগঞ্জ এর সামাজিক নেতৃত্ব এবং প্রতিষ্ঠিত ব্যাক্তিদের কথায়…
আমাদের বীরগঞ্জ এর যে নেতারা আছেন তারা কেন ভাবেন না বীরগঞ্জ এর এই বেকারত্ত কিংবা মাদক স
photoমস্যা নিয়ে তা আমার ছোট্ট মাথাটা বুঝে উঠতে পারে না।ছোটবেলা ঠেকে বীরগঞ্জ এ অনেক সভা-সমাবেশ এ বক্তিতা শুনেছি,কিন্তু কোথাও এই সব ব্যাপারে খুব বেশি কথা শুন্তে পাই নাই।
আমাদের সবথেকে বড় দাবি কলেজ সরকারিকরন,কিংবা ফায়ার স্টেসন স্থাপ্ন।
-নীলফামারীতে ইপিজেড
-সৈ্যদপুরে বিসিক
-ঠাকুরগাঁ এ বিসিক,পঞ্ছগড় এ কমলা বাগান,চা বাগান

আর আমরা এখনও আছি ফায়ার সার্ভিস সরকারিকরন এর নিয়ে।বলছি না,এসব দাবি অনর্থক।আমার কাছে ব্যাপারটা এমন মনে হয় যে, “ আমার বাবার সামর্থ্য আছে কার কিনে দেওয়ার আর আমি চাইছি সাইকেল, যদিও আমি কার চালাতে পারি” , “ কার চাইলে অন্তত মটর সাইকেল তো পেতাম ”।
এখানেই আমাদের সমস্যা, আমরা ছোট সপ্ন দেখি, চাহিদাও কম।
আর আমাদের প্রতিষ্ঠিত যে বাক্তিরা আছেন তাদের চিন্তা-চেতনা এখনও আমাদের বাপ-দাদার আমালেই আছে। কিছু কিছু উদ্যোগতা কাজ শুরু করেছেন ঠিকই কিন্তু তাদের উদ্যোগও ঢাকামুখী। অনেকেই আছেন যাদের কাছে বীরগঞ্জের কেও বায়োডাটা দিলে নাকি তাও ছিঁড়ে ফেলে দেন(সবাই এরকম না)।
বীরগঞ্জে উদ্যোগ নেওয়ার মত ক্ষেত্র হয়তো তারা খুজেও পান না।
আর সব থেকে মজার ব্যাপার বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠিত বাবসায়ী, যারা ঢাকা কেন্দ্রিক বাবসা করেন তারা বীরগঞ্জের জন্য অনেক কিছু করতে চান, কিন্তু তা ব্যানার,ফেস্টুন এর মধ্যেই সীমাবদ্ধ। হয়তো, তেমন কোন ক্ষেত্র পান না তারা, হয়তো সাহস কিংবা ভরসার অভাব। তবে আশার কথা “বীরগঞ্জ উদ্যোগতা সমিতি” নামে একটি সংগঠনের প্রকাশ ঘটেছে।
এই পর্যন্ত লেখাটি যারা পড়েছেন তাদের অনেকেই হয়তো আমাকে গালি দিয়ে ফেলেছেন কিংবা প্রস্তুতি নিচ্ছেন, বাকিটুকু পড়ে একেবারেই দেবেন। কিন্তু দুঃখের বিষয়, আমার কিচ্ছু করার নাই। গঠনমূলক সমালোচনার সংজ্ঞাটা আমার অনেক ভালো মতো পড়া।
যাই হোক, অনেক সমালোচনা করলাম, অনেক সমস্যার কথা বললাম এবার আসা যাক সম্ভবনার কথায়…
এক বড় ভাই এর সাথে সেদিন কথা বলছিলাম তার বাবার পুকুর পাড়ে বসে, তার একটা আইডিয়ার কথা শুনছিলাম, তার প্লান অনুযায়ি দেড় থেকে দুই লাখ টাকার পুজি হলে একটা ফ্যাক্টরি দেওয়া সম্ভব।(কিসের ফ্যাক্টরি সেটা নাই বলি) ফ্যাক্টরিতে যা উৎপন্ন তার ৮০% এর মার্কেট আছে আশেপাশের ৬ জেলায়। যা ওই জেলাগুলো ঢাকা থেকে নিয়ে আসে। আইডিয়াটা শুনে অনেক ভালো লাগছিল। উনি কাজটা করতে পারছেন না মাত্র ২ লাখ টাকা পুজির অভাবে। এই কাজটি করলে কমপক্ষে ৫০ জন মানুষের কর্মসংস্থান হবে।
আমরা যারা ঢাকাই থাকি, তারা পারাডাইস সুইটস কিংবা পাবনার আরও কিছু মিষ্টির দোকানের নাম জানি, এই দোকানগুলোর মিষ্টির যা মান আমাদের সাধনা, আশা, মকবুল এর থেকে খারাপ মিষ্টি বানায় না। পারাডাইস এর মিষ্টি পাবনা থেকে আসে। আমরা যদি আমাদের সাধনা,আশা সুইটসকে ঢাকাই ব্রান্ডিং করতে পারি তাহলে একটা ভালো ব্যবসা দাঁড় করানো সম্ভব। এটা করা হলে কমপক্ষে ৫০ জন লোকের কর্মসংস্থান তো হতোই আর সাথে সাথে আমাদের বীরগঞ্জকেও চিনতে পারতো ঢাকার মানুষ।
এবার আসা যাক আলুর ব্যাপারে, আমাদের বীরগঞ্জে যে পরিমাণ আলু উৎপন্ন হয় বোম্বে চিপস কোম্পানির মতো বড় কোম্পানির এক বছরে এর থেকে বেশি আলু প্রয়োজন হয় না (অনুমান নির্ভর)। আমরা যদি একটা আলুর পালপ তৈরির কারখানাও দিতে পারি তাহলে কি পরিমাণ কর্মসংস্থান হবে তা অনুমান করাই যায়। শুধু দরকার একটু উদ্যোগ আর একটু সাহস।
ঠিক এরকম আরও একটি উদ্যোগ হতে পারে ভুট্টার ক্ষেত্রেও। এতে করে আমরা অনেক দিক দিয়ে লাভবান হবো। কৃষক পাবে ন্যায্য দাম, কর্মসংস্থান হবে আর উন্নত হবে জনগণের জীবনমান। এরকম হাজার হাজার আইডিয়া চিন্তা করলেই বের হবে। কিন্তু বাস্তবায়নে দরকার টাকা, উদ্যোগ আর সাহস। শেষের দুইটা আমার মতো অনেক তরুণের আছে কিন্তু প্রথমটা নাই।
যাই হোক,এক মুরুব্বীর মুখে শুনেছিলাম ভেটেনারি কলেজটা নাকি বীরগঞ্জে হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আমরা বীরগঞ্জের মানুষ নাকি জমি দেই নাই তাই সেটা বাঁশেরহাটে চলে গেছে।আমি,আমার ছোট্ট মাথা দিয়ে এখন চিন্তা করি যদি সেটা বীরগঞ্জের মাটিতে হতো তাহলে আমাদের বীরগঞ্জের চেহারাটা অন্যরকম হলেও হতে পারতো।
পরিশেষে, একটি কথাই আছে বলার মত, দরকার শুধু একটু সাহস, একটু উদ্যোগ আর একটু positive দৃষ্টিভঙ্গির,তরুণ প্রজন্মের একটু সাহস দরকার,যেটা বড়রাই দিতে পারেন…তাহলেই পালটে ফেলা যাবে অনেক কিছু।
আশা করছি সবাই ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন আমার সমালোচনা গুলোকে।
আর লেখা সম্পর্কে মতামত কিংবা সমালোচনার জন্য লিখে মেইল করতে পারেন।
toufiq.royal@gmail.com
Spread the love