শুক্রবার ১৯ এপ্রিল ২০২৪ ৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সমুদ্র সম্পদ রক্ষায় নৌবাহিনীর ভূমিকা অনস্বীকার্য : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশের বর্ধিত সমুদ্রসীমা এবং সমুদ্র সম্পদ রক্ষায় বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ভূমিকা অনস্বীকার্য। এ সময় তিনি এই বিশাল সমুদ্র এলাকায় নিজেদের নিয়ন্ত্রণ অক্ষুন্ন রাখা এবং সম্পদ আহরণ ও সমুদ্রযান চলাচলের নিরাপত্তা বিধানের ক্ষেত্রে যথাযথভাবে দায়িত্ব পালনের জন্য নৌবাহিনীর কমিশন প্রাপ্ত কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন। দেশের স্বার্থকে সর্বদা ব্যক্তি স্বার্থের উর্ধ্বে স্থান দিয়ে পেশাগত ও ব্যক্তিগত জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে দেশপ্রেম, শৃঙ্খলাবোধ, কর্তব্যনিষ্ঠাকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার প্রদানের মাধ্যমে নৌবাহিনী তথা সশস্ত্র বাহিনীর সম্মান ও মর্যাদা সমুন্নত রাখতে কর্মকর্তাদের আহ্বানও জানান তিনি।

রবিবার চট্টগ্রামের পতেঙ্গায় বাংলাদেশ নেভাল একাডেমিতে ডাইরেক্ট এন্ট্রি অফিসার ২০১৪/বি এবং মিডশীপম্যান ২০১৩/এ ব্যাচের নবীন কর্মকর্তাদের শীতকালীন রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে এ আহ্বান জানান তিনি।

কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে সদ্য কমিশন প্রাপ্ত কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইতিমধ্যেই নৌবাহিনীকে একটি কার্যকর ত্রিমাত্রিক নৌবাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে যা ২০৩০ সালের মধ্যে বাস্তবায়িত হবে। এরই অংশ হিসেবে স্বল্প সময়ে নৌবাহিনীতে ১৬টি যুদ্ধজাহাজ, ২টি হেলিকপ্টার ও ২টি মেরিটাইম পেট্রোল এয়ারক্রাফট সংযোজিত হয়েছে। যার মাধ্যমে বর্ধিত বিশাল সমুদ্র এলাকায় টহল প্রদানের সক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের দৃঢ় প্রত্যয় ও প্রতিশ্রুতির ফলে নৌবাহিনীতে ২টি সাবমেরিন সংযোজনের প্রক্রিয়া চূড়ান্ত হয়েছে যা আগামী ২০১৬ সালের মধ্যেই নৌবহরে যুক্ত হবে।
শেখ হাসিনা বলেন, ইতিমধ্যেই বাংলাদেশ নৌবাহিনী আধুনিক যুদ্ধজাহাজ নির্মাণেও স্বনির্ভরতা অর্জনে সক্ষম হয়েছে। নৌবাহিনীর দক্ষ ব্যবস্থাপনায় খুলনা শিপইয়ার্ড ও নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডে নিজস্ব প্রযুক্তিতে নির্মিত হচ্ছে আধুনিক যুদ্ধজাহাজ। তিনি বলেন, ইতিমধ্যে ভারত ও মায়ানমারের সাথে সমুদ্রসীমা নির্ধারিত হওয়ায় সমুদ্রে অতিশীঘ্রই তেল ও গ্যাস অনুসন্ধান শুরু হতে যাচ্ছে। এ অবস্থায় নৌবাহিনীর দায়িত্ব বহুগুনে বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রতিটি সদস্যকে বর্ধিত এই সমুদ্রসীমার নিরাপত্তা রক্ষায় নিরলসভাবে কাজ করার আহবান জানান। এছাড়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সম্প্রতি মালদ্বীপে পানি সংকট নিরসনে নৌবাহিনী জাহাজ ‘সমুদ্রজয়’ এর মাধ্যমে এক লাখ লিটার বিশুদ্ধ পানি বিতরণের মাধ্যমে মানবতার সেবায় অংশগ্রহণের বিষয়টিও উল্লেখ করেন।
এর আগে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ নেভাল একাডেমিতে এসে পৌঁছালে নৌবাহিনী প্রধান ভাইস এডমিরাল এম ফরিদ হাবিব, এনবিপি, এনডিসি, পিএসসি এবং কমান্ডার চট্টগ্রাম নৌ অঞ্চল রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ আখতার হাবীব, এনজিপি, এনডিসি, এনসিসি, পিএসসি তাকে স্বাগত জানান। মনোজ্ঞ এ কুচকাওয়াজে সংসদ সদস্য, সেনা ও বিমান বাহিনী প্রধানগণ, নৌ সদর দপ্তরের পিএসওগণ, সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর আঞ্চলিক কমান্ডারগণ, মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী নৌ কমান্ডোসহ দেশী-বিদেশী কূটনীতিক এবং শিক্ষা সমাপনী ব্যাচের মিডশীপম্যানদের অভিভাবকগণ উপস্থিত ছিলেন। কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে মনোজ্ঞ কুচকাওয়াজ পরিদর্শন ও সালাম গ্রহণ করেন।
শীতকালীন এ কুচকাওয়াজের অনুষ্ঠানে নৌবাহিনীর ডাইরেক্ট এন্ট্রি অফিসার ২০১৪/বি ব্যাচের ১৩ জন এবং মিডশীপম্যান ২০১৩/এ ব্যাচের ৬০ জনসহ মোট ৭৩ জন কর্মকর্তা কমিশন লাভ করেন। তাদের মধ্যে ১ জন শ্রীলংকান মিডশীপম্যান রয়েছেন। ডাইরেক্ট এন্ট্রি অফিসার ২০১৪/বি ব্যাচ হতে এক্টিং সাব লেফটেন্যান্ট ফারজানা জেসমিন, (এস), বিএনভিআর শ্রেষ্ঠ ফলাফল অর্জনকারী হিসেবে ‘শহীদ মোয়াজ্জম পদক’ লাভ করেন। অন্যদিকে ২০১৩/এ ব্যাচ হতে মিডশীপম্যান কে এম মোর্শেদ আল আসেফ সেরা চৌকস মিডশীপম্যান হওয়ার গৌরব অর্জন করে ‘সোর্ড অব অনার’ লাভ করেন। এছাড়া পেশাগত ও শিক্ষাগত বিষয়ে সর্বোচ্চ মান অর্জনকারী হিসেবে মিডশীপম্যান এম রাকিবুল হাসান ‘ওসমানী স্বর্ণপদক’ এবং মিডশীপম্যান মোসাম্মৎ ফাতেমা আক্তার রোয়াইদা ‘নৌ প্রধান স্বর্ণপদক’ লাভ করেন।

Spread the love