মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরকারি দফতরে মানুষের লাখ লাখ অভিযোগের কোনো প্রতিকার নেই

সরকারের গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, দফতর ও অধিদফতরে সাধারণ মানুষের পাঠানো লাখ লাখ অভিযোগ ও আবেদনের কোনো প্রতিকার নেই। বরং সংশ্লিষ্টরা সাধারণ মানুষের এসব অভিযোগ ও আবেদনকে কোনো আমলেই নিচ্ছে না। যদিও বিভিন্ন সরকারি দফতরেই সিটিজেন চার্টার ঝুলিয়ে আবেদন-নিবেদন নিষ্পত্তির জন্য একজন কর্মকর্তাকে দায়িত্বও দেয়া হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে এর কোনো প্রয়োগ নেই। জনগণ এ থেকে কোনো সুফলই পাচ্ছে না। ভুক্তভোগীদের দৃষ্টিতে একমাত্র প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ছাড়া অন্য সব সরকারি দফতরের অভিযোগ বাক্সগুলোই নামসর্বস্ব নিয়ম রক্ষায় রাখা হয়েছে। এসব বাক্সের অভিযোগ-অনুযোগ খতিয়ে দেখার কিংবা ব্যবস্থা গ্রহণের কোনো নজির নেই। মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীল সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, দেশের সরকারি গুরুত্বপূর্ণ ২৯টি দফতর ও অধিদফতরে গত কয়েক বছরে ১২ লাখেরও বেশি আবেদন-নিবেদন ও অভিযোগ জমা পড়েছে। অভিযোগপাত্রগুলোতে অভিযোগপত্রের পাহাড় জমেছে। কিন্তু সুনির্দিষ্ট কোনো প্রক্রিয়ায় এসব অভিযোগের সুরাহার উদ্যোগ নেই। এমনকি নিদেনপক্ষে প্রতিকার প্রার্থীকে একটি চিঠি দিয়েও শান্ত্বনা বা পরামর্শ দেয়াও প্রয়োজন মনে করেন না সংশ্লিষ্টরা। বরং কোনো কোনো সরকারি দফতরে জনগণের পাঠানো অভিযোগনামা নিয়ে অবৈধ বাণিজ্য ফেঁদে বসার চক্র গড়ে উঠেছে। ওই চক্রের সদস্যরা জনগণের আবেদন-নিবেদন নির্ধারিত খাতায় তালিকাভুক্ত করার পরিবর্তে অভিযুক্ত ব্যক্তি বা কর্মকর্তাকে ডেকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে সবকিছু ধামাচাপা দিয়ে নিজেদের পকেট ভারি করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

সূত্র জানায়, সরকারি সব দফতরেই অভিযোগ বাক্স আছে এবং তাতে নিয়মিতই ভুক্তভোগীদের অভিযোগপত্র জমা পড়ছে। কিন্তু সাধারণ মানুষের এসব অভিযোগের প্রতিকার তো দূরের কথা, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এদিকে ফিরেও তাকায় না। গত ৫ বছরে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ ২৯টি দফতর-অধিদফতরে বিভিন্ন অভিযোগবাক্সে ১২ লাখেরও বেশি অভিযোগ ও আবেদন-নিবেদন জমা পড়েছে। কিন্তু এ বিষয়ে কার্যকর কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। তবে একমাত্র প্রধানমন্ত্রীর দফতরের নির্ধারিত সেলে অভিযোগ করে কিছু প্রতিকার পাওয়া গেছে। আর কোথাও থেকে সাড়া না পাওয়ার কথাই জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা। তাদের দৃষ্টিতে একমাত্র প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অভিযোগ সেল ছাড়া বাকি সকল সরকারি দফতরের অভিযোগ বাক্সই মানুষের সামনে প্রতারণার পাত্র মাত্র।

সূত্র আরো জানায়, সরকারি দফতরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অভিযোগপত্র জমা পড়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও এর নিয়ন্ত্রিত বিভাগ পুলিশ সদর দফতর, র‌্যাব, মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরে। পুলিশ সদর দফতরে গত ৫ বছরে ৭০ হাজার অভিযোগ জমা পড়েছে। এরপরই রয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন। সেখানে আবেদন-নিবেদন ও অভিযোগপত্র জমা পড়েছে ৪২ হাজার। আর ভূমি মন্ত্রণালয় ও এর অধীনস্ত দফতর-অধিদফতর মিলিয়ে ৬৩ হাজার, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ দফতরে ৫৮ হাজার, সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের ১৭ হাজারেরও বেশি, স্বাস্থ্য অধিদফতরে ৪১ হাজার, কৃষি অধিদফতরে ৩৫ হাজার, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে ২৫ হাজারের বেশি, এলজিইডিতে ১৪ হাজার, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষে ২৩ হাজার, ঢাকার দুটি সিটি কর্পোরেশনে ১৭ হাজার, ডাক-তার ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে ১৮ হাজার, যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে সাড়ে ২৬ হাজার, আইন মন্ত্রণালয়ে ২৩ হাজার, পরিবেশ অধিদফতরে ৩৬ হাজারেরও বেশি, বিএসটিআইয়ে ২১ হাজার ও কাস্টমস দফতরগুলোতে ২৭ হাজারেরও বেশি অভিযোগপত্র জমা পড়েছে। লিখিত আকারে এসব অভিযোগ ডাক বিভাগের মাধ্যমে চিঠিতে, কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে এবং ই-মেইলে পাঠানো হয়।

এদিকে নিয়মানুযায়ী সরকারি দফতরে কোনো অভিযোগপত্র জমা পড়লে তা নির্ধারিত লগবইতে লিপিবদ্ধ করে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার কাছে পাঠানোর বিধান রয়েছে। এরপর চিঠি ও অভিযাগের গুরুত্ব বিবেচনা করে দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের টেবিলে আবেদনপত্রগুলো পাঠানো হয়। তবে দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে কী প্রতিকার নিলেন সে বিষয়ে লগবইয়ের তালিকাভুক্তির জায়গায় লিপিবদ্ধ রাখার ব্যবস্থা না থাকায় সহজেই ওসব অভিযোগ ধামাচাপা পড়ে যায়। ফলে সরকারি দফতরে নালিশের কোনো প্রতিকার পাওয়া যায় না। তাছাড়া কখনো কখনো অভিযোগ করলে অনেক ক্ষেত্রে বিপদও বাড়ে। অভিযোগ করার কারণে সন্ত্রাসীদের হামলার শিকার হওয়ার আশঙ্কা থাকে। কারণ যে দফতরে বা কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ দেয়া হয় সেখানে অভিযুক্ত ব্যক্তির চেয়ে নিরীহ অভিযোগকারীই বেশি হয়রানি পোহাতে হয়। এ কারণে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ভুক্তভোগীরা অভিযোগের বিষয়ে আগ্রহী নয়।

অন্যদিকে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, পুলিশ সদর দফতরে গত ৫ বছরে প্রায় ৭০ হাজার অভিযোগপত্র জমা পড়েছে। লগবইয়ে লিপিবদ্ধ রাখার তালিকা থেকে এ হিসাব পাওয়া যায়। ওই দফতরে প্রতিদিন ভুক্তভোগী মানুষজন ও হয়রানির শিকার কর্মকর্তাদের পাঠানো প্রায় ৩শ চিঠি আসে। কিন্তু পোস্টঅফিস ও কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে আসা সব অভিযোগ লগবইয়ে লিপিবদ্ধ করা হয় কিনা তা নিয়ে বিস্তর অভিযোগ রয়েছে। বরং অভিযোগ উঠেছে- হাতে গোনা কিছু চিঠি লগবইতে লিপিবদ্ধ করা হলেও কিছু চিঠি একটি অসাধু সিন্ডিকেটের হাতে চলে যায়। ওই সিন্ডিকেটের সদস্যরা মূল দফতরকে এড়িয়ে অভিযোগনামায় বর্ণিত কর্মকর্তাদের ডেকে পাঠান এবং মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে ভুক্তভোগীদের অভিযোগপত্র গায়েব করে ফেলেন। ফলে স্থানীয় পর্যায়ে বিভিন্ন পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট প্রমাণাদিসহ অভযোগপত্র পাঠানো সত্ত্বেও কারোর বিরুদ্ধে কার্যকর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় না।

সরকারি দফতরে অভিযোগপত্র জমা পড়ার দিক থেকে পুলিশের পরেই রয়েছে দুদক। সারাদেশের বিভিন্ন বিভাগের সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা, অন্যান্য প্রতিষ্ঠান এমনকি ব্যক্তিকেন্দ্রিক নানা দুর্নীতির অভিযোগ তুলে প্রতিদিনই হাজার হাজার অভিযোগপত্র আসছে দুদকে। সেখানে অভিযোগপত্রগুলো লিপিবদ্ধ করে তার সারমর্ম কমিশনার পর্যায়ের কর্মকর্তাকে জানানোর বিধান রয়েছে। কিন্তু দুদক কার্যালয়ে একজন পিয়ন ও নিরাপত্তা কর্মী এসব অভিযোগপত্র লগবইতে লিপিবদ্ধ করেন। সরেজমিনে দেখা যায়- ডাক, কুরিয়ার বা হাতে হাতে পৌঁছানো অভিযোগপত্রগুলোর খাম ছিঁড়ে তাতে লেখা বিষয় উল্লেখ করে লগবইতে লিপিবদ্ধ করা হচ্ছে। অধিক গুরুতর অভিযোগের অনেক চিঠিই এখান থেকে লগবইতে না তুলে একজন ক্লাকের টেবিলে পাঠানো হয়। তিনি গুরুত্ব অনুধাবন করে কোনোটা খাতায় লিপিবদ্ধ করেন, আবার কোনো অভিযোগপত্র ফেলে দিচ্ছেন। বিকালে ঝুড়িতে পড়া সব অভিযোগগুলোই গুদামে ফেলার আগে একটি সিন্ডিকেটের হাতে তা পৌঁছে যায়। তারা প্রতিটি চিঠি পুঙ্খানুপুঙ্ঘভাবে পাঠ করার পর নিজেদের সুবিধা মতো ব্যবস্থা নিয়ে থাকেন। সেখানেও টাকা হাতানোর আরেকটি ব্যবস্থা চালু হয়ে গেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে সচিবালয় সংশ্লিষ্ট একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার রূপরেখার অংশ হিসাবে সাধারণ মানুষের অভিযোগ যথাযথ গুরুত্বের সাথে সুরাহা করার জন্য দেশের সব দফতর-অধিদফতরে সিটিজেন চার্টার নিশ্চিত করা হয়। যাতে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি কমিয়ে আনাসহ নির্ধারিত কর্মকর্তার কাছ থেকে সব সেবা নিশ্চিত করতে সহায়তা পাওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয়। কিন্তু একেকটি মন্ত্রণালয়ে সিটিজেন চার্টার অনুযায়ী যথাযথ নাগরিক সেবা পাওয়ার জন্য মাত্র ২-৩ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে নিয়োগ করায় কাজের চাপে তারা রীতিমতো হাঁফিয়ে উঠেন। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মতো বিশাল শাখা-প্রশাখা, অসংখ্য ফতর সম্পৃক্ত মন্ত্রণালয়ের সিটিজেন চার্টারের সেবা নিশ্চিত করতে একজন সিনিয়র সহকারী সচিব এবং একজন সাঁটমুদ্রাক্ষরিক ও একজন এমএলএলএসকে নিয়োজিত রাখা হয়েছে। ফলে জনবলের অভাবে তারা অনেক সেবাই নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হচ্ছে। তবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে স্থাপিত অভিযোগ সেলটি সবচেয়ে বেশি তৎপর থাকে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email