বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সরকার অনুমোদনবিহীন রমরমা লটারী ব্যবসা

 

দিনাজপুর প্রতিনিধি : তথাকথিত সাংবাদিক কল্যান তহবিল গঠনের নামে পার্বতীপুর প্রেসক্লাবের উদ্যোগে শুরু হয়েছে ২০ লাখ টাকার ৪১টি পুরস্কারের লটারীর টিকেট বিক্রি৷ সরকারী অনুমোদনবিহীন ও সাংবাদিকদের কোন রকমের মতামত ও সিন্ধান্ত ছাড়া রমরমা এ লটারী ব্যবসাকে ঘিরে গোটা উপজেলায় আলোচনা সমালোচনার ঝড় উঠেছে৷

অবৈধ এ লটারী ব্যবসার নেতৃত্ব দিচ্ছেন পার্বতীপুর প্রেসক্লাব ভবন দখল করে থাকা জনকন্ঠের প্রতিনিধি শ,আ,ম হায়দার৷

প্রত্যক্ষদর্শী একাধিক লটারীর টিকেট গ্রহনকারী ব্যক্তিরা জানান, ২০ লাখ টাকা পুরস্কারের অফার দিয়ে প্রতিদিন ১০ টাকা মূল্যমানের হাজার হাজার টিকেট বিক্রি করা হচ্ছে৷ উপজেলা সদরসহ ১০ ইউনিয়নের গ্রাম, পাড়া ও মহল্লায় টিকেট বিক্রির প্রচার কাজে নামানো হয়েছে একাধিক মোটর চালিত যানবাহন৷ শ,আ,ম হায়দারের নিয়োগকৃত অসংখ্য লোক সর্বত্রই নিয়োজিত রয়েছে টিকেট বিক্রির কাজে৷ এছাড়াও শহর ও হাট বাজারের বিভিন্ন দোকানদারগনও লাউড স্পিকারের মাধ্যমে প্রচার চালিয়ে টিকেট বিক্রি করছে৷ টিকেট বিক্রির প্রচারনার ধরন ও পরিধি জাতীয় নির্বাচনের প্রার্থীদের প্রচারনাকেও হার মানিয়েছে৷

আকর্ষনীয় ও লোভনীয় পুরস্কার প্রাপ্তির আশায় হাট, বাজার, গ্রাম ও পাড়া মহল্লায় নারী পুরুষ নির্বিশেষে প্রতিজন ১ থেকে ১০০টি পর্যন্ত টিকেট ক্রয় করছেন৷ লটারীর আয়োজকরা কোন কোন ব্যবসায়ীর নিকট অর্ধেক মূল্য ধরে ১ থেকে ৫ হাজার পর্যন্ত টিকেট বিক্রি করছে বলে জানাযায়৷

উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন সবকিছু জানার পরও অজ্ঞাত কারনে এ অবৈধ লটারীর ব্যবসা বন্ধের জন্য কোন আইনী ব্যবস্থা না নেয়ায় সর্বস্তরের সাংবাদিক ও সচেতন মহলে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে৷

বিষয়টি নিয়ে জাতীয় দৈনিক ইত্তেফাকের পার্বতীপুর সংবাদদাতা প্রবীন সাংবাদিক শামসুল হুদা, প্রথম আলোর প্রতিনিধি আতাউর রহমান, কালের কন্ঠের প্রতিনিধি আব্দুল কাদির, যায়যায় দিনের সংবাদদাতা আজিজুল আলম বাবলু, দৈনিক করতোয়ার প্রতিনিধি মঞ্জুরুল আলম, দৈনিক সংবাদের প্রতিনিধি মোক্তার হোসেন, ভোরের ডাকের প্রতিনিধি একরামুল হক বেলাল, ভোরের কাগজের প্রতিনিধি মোস্তাফিজুর রহমান বকুল, নয়া দিগন্তের মোস্তাকিম সরকার, সংগ্রামের আমজাদ হোসনে, যুগের আলোর প্রতিনিধি বদরুদ্দোজা বুলু, ইনকিলাবের প্রতিনিধি আব্দুল জলিল, দৈনিক জনতার মিজানুর রহমান মিজান, দৈনিক একুশের বানী’র আবু সাঈদসহ অনেকের সাথে কথা হলে তারা সাংবাদিক কল্যান তহবিল গঠনের নামে লটারীর টিকেট বিক্রির বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন,এ অবৈধ কাজের সাথে শ,আ,ম হায়দার ছাড়া অন্য কোন সাংবাদিক জড়িত নেই৷ বিতর্কিত ওই সাংবাদিক একটি বিশেষ রাজনৈতিক দলের নেতার সহায়তায় মোটা টাকার মালিক হওয়ার আশায় এ অবৈধ তত্পরতা শুরু করেছেন৷ একজন নামধারী সাংবাদিকের অপকমের্র জন্য গোটা সাংবাদিক সমাজের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হতে পারেনা৷

এ ব্যাপারে প্রশাসনকে অবগত করলেও এর বিরুদ্ধে কার্যকর কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন৷ বিষয়টি নিয়ে মুঠোফোনে কথা হয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাহেনুল ইসলাম, পার্বতীপুর মডেল থানার ওসি মাহামুদুল আলম ও রেলওয়ে থানার ওসি লুত্ফর রহমানের সাথে৷ প্রশাসনের এ তিন কর্মকর্তার সকলেই অভিন্ন ভাষায় বলেন, সাংবাদিক কল্যান তহবিল গঠনের নামে কোন সংস্থা বা ব্যক্তিকে লটারীর ব্যবসা করার অনুমোদন দেয়া হয়নি৷ তারা বলেন, আমরা শুনেছি মাইকিং করে লটারীর টিকেট বিক্রি করা হচ্ছে৷ লিখিত অভিযোগ ছাড়া আইনগত কোন ব্যাবস্তা নেয়া সম্ভব হচ্ছেনা৷

Spread the love