রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সরকার চ্যালেঞ্জ নিয়ে দেশ পরিচালনা করছে : রাষ্ট্রপতি

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, সাংবিধানিক প্রক্রিয়া সমুন্নত রেখে গণতন্ত্রের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখার চ্যালেঞ্জ নিয়ে বর্তমান সরকার দেশ পরিচালনা করছে। তিনি বলেন, গণতন্ত্রের বিকাশ, আইনের শাসন সুদৃঢ়করণ এবং সামাজিক শান্তি ও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে সরকার দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। গণতন্ত্রের ধারাবাহিক চর্চা ও অনুশীলন জাতির বিভিন্নমুখী সমস্যার সমাধান দিতে সক্ষম এ বিশ্বাস সরকারের কার্যক্রমে প্রতিফলিত হয়েছে।

আজ সোমবার বিকেলে ১০ম জাতীয় সংসদের ৫ম অধিবেশনে দেয়া স্বাগত ভাষণে তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে আজ সোমবার বিকেল ৪টা ১৬ মিনিটে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের অধিবেশন শুরু হয়। আর রাষ্ট্রপতির ভাষণ শেষে রীতি অনুযায়ী আগামীকাল ২০ জানুয়ারি মঙ্গলবার বিকেল ৪টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত অধিবেশনের মুলতবি করা হয়েছে।
রাষ্ট্রপতি বলেন, ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত গৌরবোজ্জ্বল স্বাধীনতা সমুন্নত এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সমুজ্জ্বল রাখতে, গণতন্ত্র ও আইনের শাসন সুদৃঢ় করতে এবং শোষণমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে, বাঙালি জাতিকে আবারও ইস্পাত কঠিন ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। ধর্ম-বর্ণ-গোত্র নির্বিশেষে এবং দল-মত-পথের পার্থক্য ভুলে জাতির গণতান্ত্রিক অভিযাত্রা ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত করার মাধ্যমেই আমরা লাখো শহীদের রক্তের ঋণ পরিশোধ করতে পারব। এই সুমহান প্রয়াসে আমাদেরকে অবশ্যই পরিপূর্ণ সাফল্য অর্জন করতে হবে।

আবদুল হামিদ বলেন, রূপকল্প-২০২১ এবং দিনবদলের সনদের ভিত্তিতে প্রণীত প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ও ষষ্ঠ পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার আওতায় বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন এবং এ কার্যক্রমে জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের ফলে আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি সাধিত হয়েছে। তিনি বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ মধ্যম-আয়ের দেশে পরিণত হবে, এটাই জাতির প্রত্যাশা। এই প্রত্যাশা পূরণের মাধ্যমেই দেশবাসী স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন করবে। একইভাবে ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশের মর্যাদায় অভিষিক্ত হওয়ার লক্ষ্যে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।

রাষ্ট্রপতি বলেন, সরকার ২০২১ সালের মধ্যে সবার জন্য বিদ্যুৎ সুবিধা নিশ্চিত করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এ লক্ষ্যে সরকার তাৎক্ষণিক, স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করছে। বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা ১১ হাজার ২৬৫ মেগাওয়াটে পৌঁছেছে। বিদ্যুতের সুবিধাভোগী জনগণের সংখ্যা শতকরা ৬৮ ভাগে উন্নীত হয়েছে। ২০০৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৪ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত ৬ হাজার ৩২৩ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হয়েছে। সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০১৮ সালের মধ্যে আরও ৯ হাজার ৬৪৩ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের কার্যক্রম চলছে। ২০২১ সাল নাগাদ বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ২৪ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীত করার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা গ্রহণ করা হয়েছে।

আবদুল হামিদ বলেন, রাষ্ট্রনায়কোচিত ও দূরদর্শী নেতৃত্ব, শান্তি ও গণতন্ত্রের প্রতি সুদৃঢ় অঙ্গীকার এবং নারী ও কন্যাশিশুদের শিক্ষা প্রসারে অগ্রণী ভূমিকার স্বীকৃতিস্বরূপ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইউনেস্কোর ‘শান্তি বৃক্ষ’ পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন। জাতিসংঘ সাউথ-সাউথ কো-অপারেশন দপ্তর ও অর্গানাইজেশন অব আমেরিকান স্টেটস ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে অগ্রণী ভূমিকা রাখার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘গ্লোবাল সাউথ-সাউথ লিডারশীপ এওয়ার্ড-২০১৪’ প্রদান করে। সরকারের বলিষ্ঠ পররাষ্ট্রনীতির ফলে ২০১৪ সালে বাংলাদেশ কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারী এসোসিয়েশনের নির্বাহী কমিটির চেয়ারপার্সন, ইন্টার-পার্লামেন্টারী ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট ও জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলের সদস্য এবং ‘ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়ন’এর কাউন্সিল সদস্যসহ ১৩টি সংস্থার নির্বাচনে জয়লাভ করেছে। এই সকল বিজয় বাংলাদেশের জন্য সম্মান ও গৌরবের পরিচায়ক এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশের ইতিবাচক অবস্থান সুদৃঢ়করণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বের সুফল।

Spread the love