বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরকার দেশজুড়ে বিরোধী নেতাদের হত্যায় মেতেছে: খালেদা জিয়া

Khaladaমঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৪টার পর গুলশানের হোটেল ওয়েস্টিনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলন বিএনপি চেয়ারপারসন ও ১৯ দলীয় জোটের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, সরকার দেশজুড়ে বিরোধী নেতাদের হত্যায় মেতেছে। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডসহ ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে ঘিরে দেশের বিভিন্ন স্থানে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরেন।
খালেদা জিয়া বলেন, যৌথাবাহীনি ও আওয়ামী সন্ত্রাসিদের হাতে গত ২৬ ডিসেম্বর থেকে ২৭ জানুয়ারি পর্যন্ত ৩০০ রাজনৈতিক ব্যক্তি খুন ও গুম হয়েছেন। গত একমাসে দেশের বিভিন্ন জেলার বিভিন্ন ওয়ার্ডের অন্তত ২১জন গুরুত্বপূর্ণ নেতাকে যৌথবাহিনীর অভিযানে গুম করা হয়েছে। গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে অতিদ্রুত সংলাপের মাধ্যমে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের মাধ্যমে প্রমাণ হয়েছে আওয়ামী লীগের অধীনে কোনো নির্বাচন সুষ্ঠ হতে পারে না। আমরা ভুল করিনি, ভুল করেছে সরকার। আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে ও বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচনে যাবেন না অথচ এখন উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে এমন প্রশ্নে উত্তরে তিনি আরো বলেন, স্থানীয় নির্বাচন ও সংসদ নির্বাচন এক নয়। আমরা বলেছি সংসদ নির্বাচনে তাদের অধীনে যাব না।
খালেদা জিয় বলেন, বাংলাদেশে অবাধ হত্যালীলা চলছে বলে অভিযোগ করে এ ব্যাপারে জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক সব মানবাধিকার সংস্থাকে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। জামায়াত প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা কার সঙ্গে থাকবো আর কার সঙ্গে থাকবো না, এটা আমাদের সিদ্ধান্ত। আওয়ামী লীগও জামায়াতে ইসলামের সাথে ছিলো। তাছাড়া অন্য কারো নির্দেশনায় বিএনপি চলে না। বিএনপি চলে তাদের নিজস্ব গতিধারায়।
খালেদা জিয়া আরো বলেন, বর্তমানে দেশে যে অবস্থা বিদ্যামান তা চলতে দেয়া যায় না। চলতে দেয়া হবে না। খুব শীঘ্রই দল গুছিয়ে আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।
স্বরস্বতী পূজা উপলক্ষে হিন্দু ভাই-বোন, বিশেষ করে সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা জানিয়ে খালেদা জিয়া বলেন, দেশে গণতন্ত্র নেই। গণতন্ত্রকে হত্যা করে, প্রায় একদলীয় ও একব্যক্তির স্বৈরশাসন জাতির কাঁধে চেপে বসেছে। এটা করা হয়েছে কারসাজি ও জবরদস্তির মাধ্যমে। ইচ্ছেমতো সংবিধান বদল করে, সেই সংবিধানের দোহাই দিয়ে, বিনাভোটে ও বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় এরা ক্ষমতা দখল করেছে। নির্বাচনকে জালিয়াতিপূর্ণ তামাশায় পরিণত করা হয়েছে। জনগণের ভোটের অধিকার কেড়ে নেয়া হয়েছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email