মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সরগরম ঠাকুরগাঁওয়ের মুড়ির গ্রামগুলো

Thak-Muriঠাকুরগাঁওয়ে কয়েকটি গ্রামের প্রায় সবারই পেশা মুড়ি ভাজা। কথা বলারও নেই ফুরসত। রোজার মাসের মুড়ির চাহিদাকে ঘিরে ব্যস্ত সময় পার করছে গ্রামের নারী-পুরষ এমনকি শিশুরাও। মুড়ির গ্রামখ্যাত ঠাকুরগাঁওয়ের মহব্বতপুর, হরিনারায়ণপুর, গিলাবাড়ি গ্রামে গিয়ে চোখে পড়ে এমন দৃশ্য।
এখানকার প্রায় সব বাড়িতেই এখন মুড়ি ভাজার ধুম। ‘গিগজ’ ধানের মুড়ি। যার খ্যাতি সর্বত্র। রমজান মাস এলেই হাতে ভাজা মুড়ির চাহিদা বেড়ে যায়। ৫০ বছরেরও অধিক সময় ধরে মুড়ি ভেজে জীবনধারণ করে আসছে ঠাকুরগাঁওয়ের কয়েকটি গ্রামের ৫ শতাধিক পরিবার। আগে এর সংখ্যা আরো বেশি থাকলেও নানা সীমাবদ্ধতায় এই পেশা ছেড়ে দিয়েছে অনেকে।
কিছু অসাধু ব্যবসায়ী মুড়িকে আকর্ষণীয় ও আকারে বড় করতে ব্যবহার করছে ক্ষতিকারক হাইড্রোজ। আর এই অসাধু ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে টিকতে পারছে না ঠাকুরগাঁওয়ের মুড়ির গ্রাম মহব্বতপুর, হরিনারায়নপুর, গিলাবাড়ির পাঁচ শতাধিক মুড়ি নারী ব্যবসায়ী।

অন্য মাসের তুলনায় রমজান মাসেই মুড়ির চাহিদা কয়েকগুণ বৃদ্ধি পায়। তাই ঠাকুরগাঁওয়ের মুড়ির গ্রাম হরিনারায়ণপুর ও গিলাবাড়ির পাঁচ শতাধিক নারী এখন ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। ভোরে মুড়ি ভাজার কাজ শেষ করেই পায়ে হেঁটে মাথায় মুড়ি নিয়ে বেরিয়ে পড়েন বিভিন্ন গ্রামে কেউবা শহরে।
গিলাবাড়ি গ্রামের মুড়ি ব্যবসায়ী শ্রাবণী বলেন, রমজানে মুড়ির চাহিদা অনেক। কিন্তু পুঁজির অভাবে ঠিকমতো মুড়ি সরবরাহ করতে পারছি না। মিনতি রানী জানান, ভোর থেকে মুড়ি ভাজি, সকাল সাড়ে ৬টায় বাড়ি থেকে বের হই। শহরের বিভিন্ন পাড়া, মহল্লায় মুড়ি বিক্রি করি। কিন্তু পুঁজির অভাব ও অসাধু ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পালা দিয়ে টিকতে পারছে না এ গ্রামের মুড়ি ব্যবসায়ী নারীরা। তাদের তৈরি ভেজালমুক্ত মুড়ির চাহিদা থাকলেও সরবরাহ করতে পারছে না তারা। আর কেউবা ব্যবসায় টিকতে না পেরে অন্য পেশায় চলে গেছে।
হরিনারায়ণপুরের সুরভী রানী জানান, মুড়ির চাল কিনে বাড়িতে পানিতে ধুয়ে পরিষ্কার করি। এরপর লবণ দিয়ে রাখি। তারপর রোদে শুকিয়ে হাতে ভাজতে হয়। আর মেশিনে যারা মুড়ি ভাজে তারা হাইড্রোজ মিশিয়ে মুড়ি বড় ও সাদা করে কম দামে বিক্রি করে। এদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে টেকা কষ্টকর।
বিনয় ঘোষ জানান, ঠাকুরগাঁওয়ের বেশির ভাগ মুড়ির চাহিদা হরিনারায়ণপুর ও গিলাবাড়ি থেকে মেটানো হয়। অনেক কষ্টে মুড়ি ভেজে হেঁটে মুড়ি বিক্রি করি। ৩ থেকে ৪ দিন মুড়ি বিক্রি করে লাভ হয় ৪০০ টাকা। প্রতি কেজি মুড়ি বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকা।
এদিকে রমজানকে সামনে রেখে মুড়ির কারখানাগুলোতে অসাধু ব্যবসায়ীরা মুড়িতে মেশাচ্ছে ক্ষতিকারক হাইড্রোজ নামে এক ধরনের পাউডার। মানবদেহে এটি ক্ষতিকারক জেনেও ব্যবসা করার জন্যই তা মেশাচ্ছেন বলে জানান ব্যবসায়ীরা। ঠাকুরগাঁও বিসিক শিল্পনগরীর দুটি মুড়ির কারখানাতেই দেদারছে মুড়িতে মেশাচ্ছে ক্ষতিকারক ইউরিয়া -হাইড্রোজ।
ঠাকুরগাঁও বিসিক শিল্পনগরীর জেড এন্ড জেড মুড়ির কারখানা মালিক রবিউল হোসেন জানান, মুড়িতে হাইড্রেজ মেশানো স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর, কিন্তু জনসাধারণ পরিষ্কার মুড়ি ও আকারে বড় না হলে কিনছে না। তাই হাইড্রোজ মেশানো হচ্ছে।
ঠাকুরগাঁও সিভিল সার্জন অফিসের স্যানিটারি কর্মকর্তা গোলাম ফারুক মুড়িতে হাইড্রোজ মেশানো কথা শোনেননি, তবে মুড়িতে হাইড্রোজ মেশালে মুড়ি সাদা ও আকারে বড় হয় বলে জানান। এটি স্বাস্থ্যের জন্য মারাতœক ক্ষতিকারক বলে জানান তিনি।

ঠাকুরগাঁওয়ের সিভিল সার্জন আফজাল হোসের তরফদার বলেন, যেকোনো রাসায়নিক পদার্থ কোনোভাবেই হজম হয় না। সেগুলো পরবর্তী সময়ে মানুষের দেহে এলার্জি, শ্বাসকষ্ট, শরীর ফুলে যাওয়াসহ কিডনীর রোগের সহায়ক হিসেবে কাজ করে।