শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাঙ্গাকারার সেঞ্চুরিতে জিতেছে শ্রীলঙ্কা

Criketএশিয়া কাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে  কুমার সাঙ্গাকারার সেঞ্চুরিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ভারতকে দুই উইকেটে পরাজিত করেছে  শ্রীলঙ্কা। প্রথম ম্যাচে এশিয়া কাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তানকে ১২ রানে পরাজিত করেছিল লঙ্কানরা। এর ফলে এবারের এশিয়া কাপে টানা বিজয় পেলো শ্রীলঙ্কা।
প্রথম ম্যাচে পাকদের বিপক্ষে ৬৭ রান করার পর আজ শুক্রবার ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ১৮তম সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন সাঙ্গাকারা। সেই সাথে ভারতের বিপক্ষে ২৬৫ রানে জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নামা ম্যাথুস বাহিনী দুই উইকেটের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে।
১উইকেটে ১০০ আর ওভার শেষ ২২। ১৬৮ বলে জয় পেতে প্রয়োজন ১৬৫ রান। হাতে ৯ উইকেট। সহজ হিসাব লঙ্কানদের জন্য। ৬৪ রান করা পেরেরাকে অশ্বিনই ফেরালেন ক্যাচ বানিয়ে। এরপর লঙ্কান সবচেয়ে অভিজ্ঞ জুটি সাঙ্গাকারা-মাহেলা ক্রিজে। কিন্তু ৯ রান করা মাহেলা ভয়ঙ্কর হবার আগেই জাদেজা ক্যাচ বানালেন দলের ১৪৮ রানে (৩১.১ ওভার)। পরের বলেই জাদেজা চান্দিমালকে শূন্য রানে বোল্ড করলেন। স্কোর ৪ উইকেটে ১৪৮।
এরপর সাঙ্গাকারা আর ম্যাথুস জুটি। আবারও ভারতীয় আঘাত। ম্যাথুসকে ৬ রানে এলবিডব্লিউ’র ফাঁদে ফেলেন সামি । ৩৬.২ ওভারে ১৬৫ রানে ৫ উইকেট পতনের ফলে ম্যাচটা জমিয়ে তুলে ভারত।  ১৯১ রান করতেই ৪০ ওভারে শ্রীলঙ্কার ৬ উইকেট পতন ঘটে। কারণ ম্যাথুসের পর সেনানায়েকে ১২ রান করে সামির বলে ক্যাচ দিয়েছেন। শেষ ১০ ওভারে ৭৪ রান প্রয়োজন পড়ে লঙ্কানদের।  ৪৮ ওভার শেষে স্কোর ৭ উইকেটে ২৫৩। সাঙ্গাকারা ৯৯ রানে। জয় পেতে ১২ বলে ১২ রান। ৪৮.২ ওভারে সাঙ্গাকারা ১৮তম ওয়ানডে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন বাউন্ডারির সাহায্যে।
৮৪ বলে ১০৩ রান করা সাঙ্গাকারা সামির বলে শর্ট থার্ড ম্যান অঞ্চলে ক্যাচ দিলে কিছুটা হলেও চাপে পড়ে শ্রীলঙ্কা। দলীয় রান তখন ৮ উইকেটে ২৫৮ রান। বাকি কাজটুকু সারেন থিসারা পেরেরা ও অজন্তা মেন্ডিস। ৪ বল বাকি থাকতেই ২৬৫ রান স্কোরবোর্ডে জমা করে জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন থিসারা পেরেরা ও অজন্তা মেন্ডিস। থিসারা ১১ এবং মেন্ডিস ৫ রানে অপরাজিত ছিলেন।
ভারতীয় বোলারদের মধ্যে রবীন্দ্র জাদেজা ও মোহাম্মদ সামি তিনটি করে এবং রবিচন্দ্রন অশ্বিন শিকার করেন দুই উইকেট। এর আগে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২৬৪ রান করে ভারত। কোহলি আর শিখরের চেষ্টায় মূলত ভারত এই রান সংগ্রহ করে।
ভারতের দুই ওপেনার শিখর ধাওয়ান আর রোহিত শর্মা। লঙ্কানদের বোলিং বুঝে শুনে খেলা শুরু করলেও তাতে কাজ হয়নি। ভারতীয়দের নিয়ে হোম ওয়ার্ক যে লঙ্কানরা করেছে সেটা বোঝা গেল ২৮ বলে ১৩ রান করা ওপেনার শর্মাকে সেনানায়েকে এলবিডব্লিউ’র ফাঁদে ফেলে সাজঘরে ফেরত পাঠালে। ওয়ানডাউনে নামা অধিনায়ক বিরাট কোহলি ভারতীয় ব্যাটিংয়ের ভরসা। সেটা তিনি ভালোভাবেই প্রমাণ দিলেন। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে কোহলি সঙ্গী পেলেন শিখর ধাওয়ানকে। গড়লেন ৯৭ রানের পার্টনারশিপ।
শিখর টিকে থাকলেও কোহলি ক্যারিয়ারের ৩১তম ফিফটির দরজায় দাঁড়িয়ে (৫১ বলে ৪৮) মেন্ডিসের স্পিনে বোল্ড হলেন। আজিঙ্কা রাহানেকে সঙ্গী করে শিখর আবারও ইনিংস মেরামতের চেষ্টা করলেন। কিন্তু ২২ রান করা রাহানে সেনানায়েকের বলে ক্যাচ তুলে দিলেন। স্কোর ৩৫.১ ওভারে ৩ উইকেটে ১৭৫ । তখন সেঞ্চুরির পথে শিখর ধাওয়ান। ৯৪ রানে দাঁড়ানো ৫টি ওয়ানডে সেঞ্চুরির মালিক শিখর মেন্ডিসের ডেলিভারিটা কিছুই বুঝলেন না। বল তার ব্যাট-প্যাডের ফাঁক দিয়ে স্ট্যাম্পে আঘাত করে (৪ উইকেটে ১৯৬, ৩৯.৩ ওভার)। ক্যারিয়ারে দ্বিতীয় বার নব্বই-র ঘরে গিয়ে সেঞ্চুরি বঞ্চিত হলেন ভারতীয় ওপেনার। ২০১৩ সালের অক্টোবরে জয়পুরে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ৯৫ রানে ক্যাচ আউট হয়েছিলেন শিখর ধাওয়ান।
৩৯.৪ ওভারে দিনেশ কার্তিক বাউন্ডারি মেরে দলীয় দুই শত পূর্ণ করলেন আর পরের বলে ক্যাচ দিয়ে বিদায়। দলীয় ২১৪ রানে আম্বাতি রাইডু ১৮ রান করে সিলভার বলে ক্যাচ দিলেন। শূন্য রানে স্টুয়ার্ট বিন্নিকে সেনানায়েকে এলবিডব্লিউ-ও ফাঁদে ফেলেন। স্কোর ৭ উইকেটে ৪৩.৩ ওভার। বিগ স্কোর করার স্বপ্নটা ভারতের আগেই শেষ হয়েছিল। বাকি ছিল ৫০ ওভারের কোটা শেষ হবার আগে অলআউট না হওয়া। শেষ দিকে স্কোর ৪৮.৩ ওভারে ২৪৭। পেসার সামি ছক্কা মেরে আড়াই শত পার করলেন। মেন্ডিসের ওই ওভারে সামির দুই ছক্কায় ভারতের স্কোর কিছুটা এগোয়। শেষ ওভারে বল করতে আসেন লঙ্কান পেসার মালিঙ্গা। মালিঙ্গার করা ওই ওভারে ৫ রান যোগ করলে ভারতের স্কোর দাঁড়ায় ২৬৪/৯। লঙ্কান বোলারদের মধ্যে স্পিনার অজন্তা মেন্ডিস চারটি, সচিত্রা সেনানায়েকে তিনটি, লাসিথ মালিঙ্গা ও চতুরঙ্গ ডি সিলভা একটি করে উইকেট শিকার করেন। অসাধারণ ব্যাটিংয়ের কারণে ম্যাচসেরার পুরস্কার পান লঙ্কান ব্যাটসম্যান কুমার সাঙ্গাকারা ।
১ মার্চ শনিবার একই মাঠে বেলা দুইটায় মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email