শনিবার ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২১শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাদুল্যাপুরের ধাপেরহাটে ছাত্রলীগের অফিস ও দোকান ভাংচুর অগ্নিসংযোগ । ককটেল বিস্ফোরণ

জিল্লুর রহমান মন্ডল পলাশ, গাইবান্ধা

কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকর করার ঘোষণার খবরে গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার ধাপেরহাট বন্দরে অবস্থিত ছাত্রলীগের অফিস ও বেশ কয়েকটি দোকানে হামলা, ভাংচুর এবং অগ্নিসংযোগ করেছে জামায়াত-শিবির কর্মীরা। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯ টা থেকে ১১ টা পর্যন্ত জামায়াত-শিবিরের শতাধিক কর্মী লাঠিসোটা ও অস্ত্র নিয়ে ধাপেরহাট বন্দরে এই হামলা চালান। এ সময় তারা বিভিন্ন শেস্নাগান দিয়ে বন্দরে বিক্ষোভ মিছিল করে বেশ কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়।

 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাত ৯ টার দিকে রংপুর-বগুড়া মহাসড়কের ধাপেরহাট বন্দরে অবস্থান নেয় শতাধিক জামায়াত-শিবির কর্মী। প্রথমে তারা চতরা রোড়ে অবস্থিত ধাপেরহাট ছাত্রলীগের অঞ্চলিক কার্যালয়ে হামলা চালায়। পরে অফিসের আসবাবপত্র ভাংচুর ও বেশ কিছু ব্যানার পোষ্টারে আগুন দেয়। এরপর বাজার মোড়ের নয়ন কুমারের কিটনাশক, উজ্ঝল সাহার পানের দোকান, গণেশের গালামাল, লিখনের পোল্টি ফিডের  দোকানে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে এবং কিছু মালামাল বের করে তাতে আগুন দেয়। একই সময়ে সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা এ্যাডভোকেট আবদুল ওয়াহেদের বাসার গেট ও লাইট ভাংচুর করা হয়।

 

ঘটনার বিষয়টি আগেই অাঁচ করতে পেরে অনেক দোকান মালিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে সটকে পড়েন। এদিকে রাতেই জামায়াত-শিবির কর্মীরা সাদুল্যাপুর-মীরপুর ও সাদুল্যাপুর-নলডাঙ্গা পাকা সড়কের কয়েক কিলোমিটার এলাকা জুড়ে কয়েকটি বড় গাছ কেটে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেন। এছাড়া সকাল ১১ টার দিকে উপজেলার নাগবাড়ি নামকস্থানে একটি মোটরসাইকেল ভাংচুর চালায় জামায়াত-শিবির কর্মী। দুপুর ৩ টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যমত্ম গাছগুলো সড়ানোর উদ্যোগ ও ঘটনাস্থলে যায়নি স্থানীয় পুলিশ বা প্রশাসনের লোকজন।

 

ধাপেরহাট বন্ধরের দোকান মালিক নয়ন কুমার ও উজ্জল সাহা জানান, তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা করার সময় দোকানের মালামাল লুটপাট করেছে জামায়াত-শিবির কর্মীরা। তাছাড়া আক্রামত্মদের সহায়তার জন্য পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়নি বলে অভিযোগ করেন তারা।

 

সাদুল্যাপুর থানার ওসি জিয়া লতিফুল ইসলাম জানান, সকাল থেকে পুলিশ ধাপেরহাটে অবস্থান করছেন। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আছে বলে জানান তিনি।