বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সাদুল্যাপুরে প্রশাসনের ছত্রছায়ায় পরিচালিত হচ্ছে সরকারী অনুমোদনবিহীন লটারি

জিল্লুর রহমান মন্ডল পলাশ, গাইবান্ধা

গাইবান্ধার সাদুল্যাপুর উপজেলার ভাতগ্রাম স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে প্রশাসনের ছত্রছায়ায় পরিচালিত হচ্ছে সরকারী অনুমোদনবিহীন লটারি। অবৈধ এই লটারির পুরস্কার নিয়ে প্রতারণা করছে কর্তৃপক্ষ। এসএসসি পরীক্ষা এবং ইরি-বোরো মৌসুম উপেক্ষা করে প্রতিরাত্রে ড্র দেওয়া মুক্তা লাকি কুপন নামের এই লটারির মাধ্যমে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা।

 

ভাতগ্রাম ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম ও নাজমুল হাসান সুমনের নেতৃত্বে কয়েকদিন ধরে পরিচালতি এই লটারির পুরস্কার নিয়ে প্রতিরাত্রেই ঘটছে অপ্রীতিকর ঘটনা। এই ধরণের অপ্রিতিকর ঘটনা থামাতে গিয়ে পুলিশ কর্মকর্তার কাছ থেকে হারিয়ে গেছে থানার ওয়াকিটকি।

 

শুক্রবার রাত্রে লটারির প্রথম পুরস্কার নতুন মটর সাইকেল বিজয়ীহন স্থানীয় উত্তর কাজীবাড়ী সন্তেলা গ্রামের শফিউর রহমান। তিনি পুরস্কারের মটর সাইকেল হাতে নিয়ে দেখতে পান সেটি পুরাতন। অথচ লটারি থেকে সরবারাহকৃত কাগজপত্রে মটর সাইকেলটি সেদিনই ১ লক্ষ ৮ হাজার ৫০০ টাকায় ক্রয় দেখানো হয়েছে। এই মটর সাইকেল নিয়ে ঝামেলা শুরু হলে পুলিশের মধ্যস্থতায় কয়েকদফা আলোচনা শেষে ৬৫ হাজার টাকায় দফা রফা করা হয়। তিন দিন পর মঙ্গলবার বিকালে শফিউর রহমানকে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে পুরাতন মটর সাইকেল ফেরত নেন লটারি আয়োজক সাইফুল ইসলাম। মটর সাইকেল বিজয়ী শফিউর রহমান এই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

 

শনিবার রাত্রে লটারির পুরস্কার নিয়ে আবারও প্রতারণা করায় ঝামেলা বাঁধে। লটারির গ্রাহকদের সঙ্গে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয় কর্তৃপক্ষের। এসব থামাতে গিয়ে সাদুল্যাপুর থানার উপ-পুলিশ কর্মকর্তা গোলাম রাববানীর কাছ থেকে ওয়াকিটকি হারিয়ে যায়। দু’দিন পর একজন সাংবাদিকের মাধ্যমে রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার এক যুবকের নিকট থেকে ওয়াকিটকিটি উদ্ধার হয়। স্থানীয় ধাপেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মতিয়ার রহমান ওয়াকিটকিটি বুঝে নেন।

 

রোববার রাত্রে আবারও লটারির পুরস্কার নিয়ে সংঘর্ষে দশম শ্রেণীর ছাত্র আলম মিয়া ও কৃষক আবদুস ছাত্তার সরকার আহত হয়েছে। অভিযোগ রয়েছে লটারি আয়োজক জনসমুখে নতুন চকচকে জিনিষ দেখিয়ে পুরস্কার দেওয়ার সময় পুরাতন দিচ্ছে। ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলাম জানান লটারির পুরস্কার নিয়ে প্রতারণা করায় প্রায় রাত্রে দ্বন্দ্ব এবং সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে।

 

সাদুল্যাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ জিয়া লতিফুল ইসলাম জানান, আয়োজকরা কতৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে লটারি করছেন। তবে লটারির ড্রতে প্রতারণার বিষয় তার জানা নেই। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহা. আহসান হাবিব জানান, লটারির মাধ্যমে প্রতারণার বিষয়টি খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email